sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » প্রণোদনার ঋণ বিতরণে গতি আনার আহ্বান বাণিজ্যমন্ত্রীর




করোনা মহামারির ক্ষতি কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের জন্য ঘোষিত প্রণোদনার ঋণ বিতরণ কার্যক্রম গতিশীল করার আহ্বান জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। করোনায় এসএমই উদ্যোক্তাদের ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে দেশি পণ্য ব্যবহার বাড়ানোর প্রচারণা শুরু করেছে এসএমই ফাউন্ডেশন। দেশীয় পণ্য ব্যবহারে ক্রেতাদের উদ্বুদ্ধ করতে বৃহস্পতিবার (১০ ডিসেম্বর) অনলাইনে সোশ্যাল ক্যাম্পেইন কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করে এসএমই ফাউন্ডেশন। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন এমপি বলেন, শিল্প মন্ত্রণালয়রে মাধ্যমে এসএমইদের কাছ থেকে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ পণ্য বা সেবা ক্রয়ের জন্য পাবলিক প্রকিউরমেন্ট আইনে কোটা ব্যবস্থা অন্তর্ভুন্তিকরণের প্রচেষ্টা গ্রহণ করা হয়েছে। এর ফলে এসএমই উদ্যোক্তারা লাভবান হবেন এবং করোনা পরিস্থিতিতে অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। মুক্তবাজার অর্থনীতিতে বিভিন্ন দেশের পণ্যের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে নতুন ও আধুনিক প্রযুক্তি আয়ত্ত করার পাশাপাশি দেশি ও আন্তর্জাতিক ভোক্তাদের চাহিদা অনুযায়ী পণ্যের গুণগতমান উন্নত করা এবং এসএমইদের পণ্য বিপণনের সুবিধা বৃদ্ধির ওপর জোর দেন মন্ত্রী। অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে টিকে থাকার জন্য এসব উদ্যোক্তাদের পাশে দাঁড়ানো এবং তাদের সহযোগিতা করা এখন সময়ের দাবি। বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বাজার ১৭ কোটি মানুষের। তিনি স্বদেশি আন্দোলনের ইতিহাস তুলে ধরে বলেন করোনায় অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে সবাইকে দেশি পণ্য কিনতে হবে। তিনি বলেন, এসএমই উদ্যোক্তারা পাটজাতপণ্য, চামড়াজাতসামগ্রী, ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিকস সামগ্রী, লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং পণ্য, প্লাস্টিকসামগ্রী, কৃষি প্রক্রিয়াজাত পণ্য, হ্যান্ডিক্রাফটস্, ডিজাইন ও ফ্যাশনওয়্যারসহ বিভিন্ন পণ্য উৎপাদন করেন। নারী-উদ্যোক্তারাও এসব শিল্পের সঙ্গে যুক্ত থেকে কর্মসংস্থান ও নারীর ক্ষমতায়নে ভূমিকা রাখছেন। বাণিজ্যমন্ত্রী আশা করেন, সরকার ঘোষিত ২০ হাজার কোটি টাকা প্রণোদনা প্যাকেজ শতভাগ ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তাদের কাছে পৌঁছানোর ক্ষেত্রে ব্যাংকগুলো আন্তরিকভাবে কাজ করবে। অনুষ্ঠানের সভাপতি এসএমই ফাউন্ডেশনের চেয়ারপারসন অধ্যাপক ড. মো. মাসুদুর রহমান বলেন, দেশি ফ্যাশন ডিজাইনাররা বছরে প্রায় ২০ হাজার কোটি টাকার পণ্য উৎপাদন করেন। তাই সরকারি কেনাকাটায় এসএমই উদ্যোক্তাদের কাছ থেকে পণ্য ক্রয়ের জন্য কোটা নির্ধারণ করা হলে দেশি পণ্যের ব্যবহার বাড়ার ক্ষেত্রে তা যুগান্তকারী ভূমিকা রাখবে। উল্লেখ্য, দেশীয় পণ্য ব্যবহারে সাধারণ মানুষকে উদ্বুদ্ধ করতে এসএমই ফাউন্ডেশন বিভিন্ন প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক, অনলাইন ও সামাজিক মিডিয়ায় প্রচারের জন্য ২৫টি স্লোগান তৈরি করেছে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply