sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » দেশে কেউ গৃহ ও ভূমিহীন থাকবে না : ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী




দেশে কেউ গৃহ ও ভূমিহীন থাকবে না : ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী নওগাঁর মহাদেবপুর ও পোরশা উপজেলায় দুর্যোগ সহনীয় ঘর নির্মাণকাজ পরিদর্শন করছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান।

দেশে কেউ গৃহ ও ভূমিহীন থাকবে না উল্লেখ করে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান বলেছেন, ‘সারা দেশে সরকার নয় লাখ বাড়ি নির্মাণ করে গৃহহীন পরিবারের মধ্যে বরাদ্দ দেবে। এ কার্যক্রম চলমান রয়েছে। তাঁর কারণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার লক্ষ্য এ দেশের কোনো মানুষ গৃহহীন থাকবে না। কেউ ঠিকানাহীন থাকবে না।’ আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে নওগাঁর মহাদেবপুর ও পোরশা উপজেলায় দুর্যোগ সহনীয় ঘর নির্মাণকাজ পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী। এ সময় দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোহসিন, জেলা প্রশাসক হারুন অর রশিদসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। নির্মাণকাজ পরিদর্শন শেষে সন্তোষ প্রকাশ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘দেশে নয় লাখ এ রকম বাড়ি তৈরি করা হবে। এর অংশ হিসেবে প্রথম পর্যায়ে ৭০ হাজার বাড়ি তৈরি করা হচ্ছে। এক লাখ ৭১ হাজার টাকা ব্যয়ে তৈরি এসব বাড়ি পাবে ভূমি ও গৃহহীনরা। আগামী ২০ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী ভার্চুয়ালি উদ্বোধন করে এসব বাড়ির চাবি উপকারভোগীদের কাছে হস্তান্তর করবেন।’ এর আগে আজ বিকেলে নওগাঁয় ত্রাণ গুদাম কাম দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা তথ্যকেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করেন প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান। এ সময় তিনি বলেন, ‘দেশে বিভিন্ন দুর্যোগ মুহূর্তে জরুরিভিত্তিতে সারা দেশে দ্রুত ত্রাণ সহযোগিতা পৌঁছে দেওয়ার জন্য মোট ৬৬টি এ ধরনের গুদাম কাম তথ্যকেন্দ্র নির্মাণ করা হচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে নওগাঁয় এটির নির্মাণকাজ হাতে নেওয়া হলো। জেলা পর্যায়ের এসব গুদামে ত্রাণ সামগ্রী মজুদ থাকলে দ্রুত সময়ের মধ্যে ওই জেলার সব উপজেলায় জরুরি ত্রাণ সহায়তা পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হবে। এ লক্ষ্যে একই প্রকল্পের আওতায় আরো ৫০০টি উপজেলায় এমন ত্রাণ গুদাম কাম তথ্যকেন্দ্র নির্মাণের পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে। শিগগিরই এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেওয়া হবে।’ জেলা ত্রাণ গুদাম কাম দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা তথ্যকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে এক কোটি ৫৫ লাখ ৬৬ হাজার ৩৯২ টাকা।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply