sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » তেহরানের পরমাণু কর্মসূচি: যুক্তরাষ্ট্রকে পাত্তা দিচ্ছে না ইরান




তেহরানের পরমাণু কর্মসূচি: যুক্তরাষ্ট্রকে পাত্তা দিচ্ছে না ইরান শুক্রবার (২৯ জানুয়ারি) তুরস্ক সফরে যান ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ। বৈঠক করেন তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলুর সঙ্গে। ইস্তাম্বুলের বৈঠকে দুই দেশের বিভিন্ন স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় ও আঞ্চলিক ইস্যু নিয়ে কথা বলেন তারা। যৌথ সংবাদ সম্মেলনে তেহরানের পরমাণু কর্মসূচি প্রসঙ্গে ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ বলেন, নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা না হলে পারমাণবিক কর্মসূচি এগিয়ে নেওয়া থেকে পিছু হটার মার্কিন দাবি মানবে না ইরান। তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র বেআইনিভাবে সবার আগে চুক্তি থেকে বের হয়ে গেছে। তাই যুক্তরাষ্ট্রকেই সবার আগে চুক্তিতে ফিরে আসতে হবে। সবগুলো শর্ত পুরোপুরি মানতে হবে। আমরা আমাদের প্রতিশ্রুতি মানতে সব সময় প্রস্তুত। মার্কিন সরকার নিষেধাজ্ঞায় আসক্ত। এতে বিশ্ব এবং যুক্তরাষ্ট্র নিজেই ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।’ একই সংবাদ সম্মেলনে তুর্কি পরররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলু আশা প্রকাশ করে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের নতুন প্রশাসন পরমাণু চুক্তিতে আবারো ফিরে আসবে। এসময় ইরানের ওপর থেকে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের আহ্বান জানান তিনি। কাভুসোগলু বলেন, ‘আশা করি, বাইডেন প্রশাসন পরমাণু চুক্তিতে আবারো ফিরে আসবে এবং পরমাণু ইস্যুতে দায়িত্বশীল ও সহযোগিতাপূর্ণ আচরণ করবে। আমি ইরানের ওপর থেকে দ্রুত অবরোধ প্রত্যাহারের আহ্বান জানাচ্ছি।’ আঙ্কারার এমন আহ্বানের মধ্যেই ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ ২০ শতাংশে উন্নীত করার কথা জানিয়েছে তেহরান। এদিন ইরানের স্পিকার বলেন, বর্তমানে তাদের হাতে ১৭ কিলোগ্রাম ‘২০ শতাংশ সমৃদ্ধ ইউরেনিয়াম’ রয়েছে। চলতি বছরে তা বাড়িয়ে ১২০ কিলোগ্রাম করা হবে বলেও জানান তিনি। এদিকে, মার্কিন প্রশাসন বলছে, ইরানের পরমাণু কর্মসূচি রুখতে আলোচনাকেই প্রধান্য দিচ্ছেন নতুন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। এক সাক্ষাতকারে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জ্যাক সুলিভান বলেন, তেহরানের সঙ্গে উত্তেজনা কমিয়ে আনতে নতুন একটি চুক্তিকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। এর আগে, নতুন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন আলোচনার জন্য তেহরানকে সবার আগে পরমাণু চুক্তিতে ফিরে আসার আহ্বান জানান। তার ঐ আহ্বানের পরই ওয়াশিংটন-তেহরান উত্তেজনা ও পরমাণু কর্মসূচি নতুন করে আলোচনায় আসে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply