sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » ফাওয়াদের সংগ্রামী শতকে পাকিস্তানের লিড




দীর্ঘ ১৪ বছর পর পাকিস্তানের মাটিতে টেস্ট খেলতে নেমে প্রথম দিনেই ২২০ রানে অলআউট হয় দক্ষিণ আফ্রিকা। তবে প্রতিপক্ষকে অলআউট করেও স্বস্তিতে ছিল না পাকিস্তান। দিন শেষে ৩৩ রানেই ৪টি উইকেট হারিয়ে মহাবিপদে তারা। তবে ছয় নম্বরে নামা ফাওয়াদের ব্যাটে চড়ে আজ সেই বিপদ কাটিয়ে লিডও নিয়েছে স্বাগতিকরা। আগের দিনের ৪ উইকেটে ৩৩ রান নিয়ে আজ বুধবার দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু করে পাকিস্তান। অভিজ্ঞ আজহার আলির সঙ্গে শুরু থেকেই দেখেশুনে খেলেতে থাকেন মাত্র আট ম্যাচ খেলতে নামা বাঁহাতি ফাওয়াদ আলম। এসময়ে ফিফটির পথেই ছিলেন দুজনেই। তবে নিজের ৩৩তম ফিফটি তুলে নেয়া আজহার খেই হারিয়ে ফেলেন লাঞ্চের পরেই। স্পিনার মহারাজের বলে উইকেটের পিছনে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন সাবেক এই অধিনায়ক। তার আগে ১৫১ বল খেলে চারটি চারের সাহায্যে নামের পাশে যোগ করেন ৫১টি রান। একসঙ্গে পঞ্চম উইকেটে ফাওয়াদের সঙ্গে গড়েন ৯৪ রানের মূল্যবান জুটি। এরপর রিজওয়ান এসে ফাওয়াদের সঙ্গে গড়েন ৫৫ রানের আরেকটি কার্যকর জুটি। যাতে খাদের কিনার থেকে সম্মানজনক পর্যায়ে পৌঁছে দলের স্কোর। অর্থাৎ ১৭৬ রানে পড়ে পাকিস্তানের ষষ্ট উইকেট। লুঙ্গি এনগিদির বলে ডু প্লেসিসের হাতে ধরা পড়ার আগে রিজওয়ানের ব্যাট থেকে আসে ৩৩টি রান। ৫৯ বলে ছয়টি চারের মারে এই রান করেন উইকেটকীপার ব্যাটসম্যান। এরপর অলরাউণ্ডার ফাহিম আশরাফকে নিয়ে লিডের পথে ছুটতে থাকেন ফাওয়াদ। এসময়ে নিজের তৃতীয় টেস্ট সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন ৩৫ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যান। ২২০তম বলে মহারাজকে ছক্কা হাঁকিয়েই নিজের তৃতীয় টেস্ট শতকে পৌঁছে যান ফাওয়াদ আলম। তিন অংকের এই ম্যাজিক ফিগারে পৌঁছাতে তিনি আটটি চারের সঙ্গে দুটি ছক্কা হাঁকান। তার এমন সংগ্রামী শতকে চড়ে দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত পাকিস্তানের স্কোর পৌঁছেছে ২৭০/৬-এ। যাতে এখন পর্যন্ত ৫০ রানের লিড পেয়েছে বাবর বাহিনী। এর আগের দিন ৬৯ দশমিক ২ ওভার বল করে দক্ষিণ আফ্রিকাকে গুটিয়ে দিয়ে নিজেদের ইনিংস শুরু করে পাকিস্তান। দিনের শেষ ভাগে ১৮ ওভার ব্যাট করার সুযোগ পেয়ে মহাবিপদেই পড়ে তারা। স্কোর বোর্ডে ৩৩ রান উঠতেই প্যাভিলিয়নে ফিরেছেন শীর্ষ চার ব্যাটসম্যান। দুই ওপেনার অভিষেক ম্যাচ খেলতে নামা ইমরান বাট ৯ ও আবিদ আলি ৪ রান করে রাবাদার শিকার হন। অধিনায়ক বাবর আজমকে ৭ রানে থামান দক্ষিণ আফ্রিকার স্পিনার কেশব মহারাজ। নাইটওয়াচম্যান হিসেবে নেমে খালি হাতে ফেরেন শাহিন আফ্রিদি। শিকার হন এনরিক নর্টজের। দিন শেষে আজহার আলি ও ফাওয়াদ আলম ৫ করে অপরাজিত থাকেন। দক্ষিণ আফ্রিকার রাবাদা ৮ রানে ২ উইকেট নিয়েছেন।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply