sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » যেভাবে শীর্ষ কোটিপতি হলেন আমাজনের জেফ বেজস




একটা বিষয় পরিষ্কার, কোনো কিছু নিয়ে অভিযোগ করা যাবে না। পৃথিবী যেমন, সেভাবেই খাপ খাইয়ে সামনে এগিয়ে যেতে হবে। প্রযুক্তি খাতের সবচেয়ে সমালোচিত প্রধান নির্বাহীদের একজন তিনি। এখন বিশ্বের সবচেয়ে কোটিপতি। বলছি, জেফ বেজসের কথা। নিউ মেক্সিকোতে ১৯৬৪ সালে জন্ম তার। তার মা ছিলেন একজন স্কুলশিক্ষিকা। বাবা ছিলেন একজন কিউবা অভিবাসী, তিনি বেজসকে দত্তক নিয়েছিলেন। তার জন্মদাতার সঙ্গে তার কোনোদিনই দেখা হয়নি। বয়স যখন ২২, তখন প্রিন্সটোন থেকে ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি। সঙ্গে ছিল কম্পিউটার সায়েন্স ডিগ্রিও। মাত্র ৩০ বছর বয়সে অনলাইন টেক জায়ান্ট প্রতিষ্ঠান আমাজন চালুর পরিকল্পনা করেন তিনি। বেজসের বাবা মা তাকে ৩ লাখ ডলার দিয়ে কোম্পানির কার্যক্রম শুরু করতে বলেন। বেজস তার গ্যারেজে স্বল্প পরিসরে কার্যক্রম শুরু করে। প্রথম দিকে তিনি শুধু অনলাইনে বই বিক্রি করতেন। ধীরে ধীরে তিনি বুঝতে শুরু করেন ইন্টারনেটের ব্যবহার সারাবিশ্বে কীভাবে বাড়ছে। কিন্তু ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই তিনি সমালোচিত। কারণ সাধারণ বইয়ের দোকানের প্রচলন তিনি অনলাইনভিত্তিক করে তুলছিলেন। ১৯৯৭ সালে জনসমক্ষে আসে আমাজন। অনলাইনে মিউজিক, ইলেকট্রনিকসসামগ্রী বিক্রি করেই বাজিমাত করে এ অনলাইন জায়ান্ট। এরপর শুরু করে পোশাক আর খেলনা বিক্রি। এরপর শুরু করে গৃহস্থালি পণ্য বিক্রি। এসবই অনলাইনে বিক্রি করে আমাজন পুরো বিশ্বে। অনেকেই জিজ্ঞাসা করত, আমাজন কবে লাভের মুখ দেখবে, বেজস কোনো প্রশ্নের উত্তর দিতেন না। কিন্তু শেষমেশ উত্তর দেয়ার সুযোগ এসেছে। ২০১৮ সালে আমাজনের বাজারমূল্য এক লাখ ৭০ হাজার ডলার বেড়ে যায়। এরপর তিনি হোলসেল ফুড মার্কেট, অডিও বুক পাবলিশার অডিবল ডট কম, লাইভ স্ট্রিমিং প্লাটফর্ম টুইচ, পত্রিকা ওয়াশিংটন পোস্টের মালিক বনে যান। ৩৬ বছর বয়সে যাত্রা শুরু করে তার মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ব্লু অরিজিন। এই প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্য মহাকাশে পর্যটন ব্যবস্থা সম্প্রসারিত করা। বেজস বলেন, পৃথিবীতে অনেক কিছুই করা সম্ভব না, যেটা মহাকাশে সম্ভব। ২০১০ সালে বিল গেটস আর ওয়ারেন বাফেটের সঙ্গে চুক্তিতে আসতে অসম্মতি জানান বেজস, বর্তমানে যাদের মতো বেজসও একজন বিলিয়নিয়ার। ২০১৮ সালে তিনি বিশ্বের শীর্ষ ধনী ব্যক্তির স্থান দখল করতে শুরু করেন। তার মোট সম্পদ হয় ১১ হাজার ২০০ কোটি ডলার। এই খবরে আন্দোলনে নামে আমাজন কর্মীরা। তাদের দাবি, বেতন কম দেয়া হয়, কর্মঘণ্টা অনেক বেশি, এর সঙ্গে কর্মক্ষেত্রে অনেক কিছু সহ্য করতে হয় কর্মীদের। ৫৫ বছর বয়সে স্ত্রী ম্যাকেনজি বেজসকে তালাক দেন তিনি। ২৫ বছরের বৈবাহিক জীবনের ইতি টানেন। এই দম্পতির সন্তান ৪ জন। পৃথিবীর ইতিহাসে সবচেয়ে ব্যয়বহুল তালাকের একটি বেজসের তালাক। এরপর ম্যাকেনজি বেজস হয়ে যান বিশ্বের সবচেয়ে ধনী নারী। ভাগ হয়ে যায় তাদের ১৪ হাজার কোটি ডলারের সম্পত্তি। ২০১৯ সালে আমাজনের ১৫শ’ কর্মী বিক্ষোভে নামে। কাজের পরিবেশ নিশ্চিতের দাবিত বিক্ষোভে ফেটে পড়েন তারা। বেজস আমাজনকে তখন ২০৪০ সালের মধ্যে কার্বন নিঃসরণমুক্তভাবে পরিচালনার ঘোষণা দেন। ২০১৯ সালে আমাজন বিশ্বের সবচেয়ে বড় খুচরা বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানের জায়গা করে নেয়। ওয়ালমার্ট পড়ে যায় পেছনে। ২০২০ সালের আগস্টে যখন আমাজন রেকর্ড মুনাফার তথ্য প্রকাশ করে, মজুরি বাড়ানোর দাবিতে বিক্ষোভ করেন কর্মীরা। ২০২১ সালে ফেব্রুয়ারিতে বেজস জানান, আমাজনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার পদ থেকে সরে যাচ্ছেন তিনি।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply