sponsor

sponsor


Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » স্বাধীনতার ৫০ বছরে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে ব্যাপক উন্নয়ন




স্বাধীনতার ৫০ বছরে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে ব্যাপক উন্নয়ন (ভিডিও) স্বাধীনতার ৫০ বছরে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের ব্যাপক উন্নয়ন ঘটে গেছে। মূলত: জাতির পিতার দেখানো পথেই এই উন্নয়ন। পাকিস্তানিদের ধ্বংস করে যাওয়া বিদ্যুৎ খাতকে আবারও টেনে তুলতে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড স্থাপন করা হয়। রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের যে স্বপ্ন তিনি দেখেছিলেন তা আজ বাস্তব রুপ পাচ্ছে। ঘরে ঘরে পৌঁছেছে বিদ্যুৎ। এগিয়ে যাচ্ছে জ্বালানি খাতও। যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশ। অনেক স্থানেই ধ্বংসপ্রাপ্ত বিদ্যুতের সঞ্চালন লাইন। আর সব খাতের মতো বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের দিকে নজর দিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। প্রথমই খনিজ সম্পদের ওপর রাষ্ট্রের মালিকানা প্রতিষ্ঠা করলেন। ব্রিটিশ কোম্পানির কাছে থাকা গ্যাস ক্ষেত্রগুলো কিনে নেন। পরিকল্পিতভাবে বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করতে প্রতিষ্ঠা করেন বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড। সংবিধানের ১৬ অনুচ্ছেদে গ্রামীণ বিদ্যুতায়নের কথা যুক্ত করেছিলেন। ভেবেছিলেন পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কথা। বঙ্গোপসাগরে তেল-গ্যাসের অনুসন্ধান তিনিই শুরু করেছিলেন। পচাত্তরে জাতির পিতাকে স্বপরিবারে হত্যার পর সব কিছুই থমকে যায়। বিদ্যুতের জন্য প্রাণ দিতে হয় কৃষককে। ৯৬ সালে নতুন করে শুরু করেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। ২০০৮ সালে দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় এসে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়ার স্বপ্ন দেখেন। গতি পায় দেশের অর্থনীতি। বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, মাত্র সাড়ে তিন হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎতের জায়গায় দেশে এখন উৎপাদন সাড়ে ২৪ হাজার মেগাওয়াট। নতুন নতুন কেন্দ্র উৎপাদনে এসেছে। রুপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কাজও শেষ পর্যায়ে। ৩ কোটি ৯৪ লাখ গ্রাহক পেয়েছে বিদ্যুতের সংযোগ। তিনি আরও বলেন, স্বাধীনতার পর আবিষ্কৃত হয়েছে ১৭টি গ্যাসফিল্ড। শক্তিশালী হয়েছে রাষ্ট্রীয় তেল ও গ্যাস অনুসন্ধান কোম্পানী বাপেক্স। অনুসন্ধান আরও গতিশীল করায়, ড্রিলিং বেড়েছে। এখন গ্যাসের দৈনিক গড় উৎপাদন ২ হাজার ৭শ ঘনফুট। প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানী বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক ই ইলাহী চৌধুরী বীর বিক্রম বলেন, দেশে এখন ভাসমান এলএনজি টার্মিনাল তৈরী হয়েছে। এখন তরল গ্যাস আমদানী ও গ্রিডে যুক্ত হচ্ছে ৭ থেকে ৮শ এএমএমসি। বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ প্রতিমন্ত্রী বলেন, দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন, সঞ্চালন লাইনের উন্নয়ন, বিতরণ ব্যবস্থার উন্নয়নসহ সার্বিক অবকাঠামো নির্মাণের কর্মযজ্ঞ চলছে। জাতির পিতার দেখানো পথেই গ্রাহক পর্যায়ে মানসম্পন্ন ও নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়াই মূল লক্ষ্য।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply