sponsor

sponsor


Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » দেশের বিদ্যালয়সমূহে ২০৩০ সালের মধ্যে হাইস্পিড ইন্টারনেট: পলক




তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে দেশের এক লাখ ৭০ হাজার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় ফাইবার অপটিক্যাল হাইস্পিড ইন্টারনেট কানেক্টিভিটি যুক্ত হবে। আইসিটি বিভাগের অধীন ডিজিটাল কানেক্টিভিটি প্রকল্পের আওতায় এ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হবে। তিনি বলেন, প্রযুক্তিতে কেউ যেন পিছিয়ে না থাকে সে লক্ষ্যে গার্লস ইন আইসিটি প্রোগ্রাম, জব অপরচ্যুনিটি অ্যান্ড এমপাওয়াম্যান্টসহ বিভিন্ন কার্যক্রম হাতে নেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার (২৯ জুন) আন্তর্জাতিক টেলিকমিনিউকেশন ইউনিয়নের এশিয়া এন্ড দি প্যাসিফিক রিজিওনাল অফিসের উদ্যোগে ‘গালর্স ইন টেক ডে বাংলাদেশ ২০২১’ অনুষ্ঠান উদ্বোধনকালে অনলাইনে সংযুক্ত হয়ে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আন্তর্জাতিক টেলিকমিনিউকেশন ইউনিয়নের এশিয়া ফর প্যাসিফিক রিজিওনাল ডিরেক্টর অসুকু ওকুন্ডা, এশিয়া এন্ড প্যাসিফিক এলাইন্স ফর ইন্টারনেট ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ফাউন্ডেশনের রিজিওনাল হেড অন্জু মন্ডল। প্রতিমন্ত্রী বলেন, ইউনাইটেড নেশনস (ইউএন) এর সহযোগিতায় ওয়াইফাই প্রোগ্রামের মাধ্যমে ৫০ হাজার এন্টারপ্রেনিয়র তৈরি করা হয়েছে। ফিল্যান্সার থেকে এন্টারপ্রেনিয়র তৈরির লক্ষ্যে ৪ হাজার নারীকে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। এছাড়াও আইটি সার্ভিস প্রোভাইডার ও ওমেন কল সেন্টার এজেন্ট হিসাবে প্রায় ৭ হাজার নারীকে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। পলক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারি-বেসরকারি ও বাণিজ্যিক তথ্য ও সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে বটম আপ এপ্রোচ (প্রান্ত থেকে কেন্দ্র) পদ্ধতি বাস্তবায়নে ২০১০ সালে ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার উদ্বোধন করেন। বর্তমানে সাড়ে ৭ হাজারের অধিক ডিজিটাল সেন্টারে ১৫ হাজারের বেশি উদ্যোক্তা কাজ করছে। যার মধ্যে ৫০ শতাংশই নারী। সেন্টারগুলোর মাধ্যমে প্রায় ৩শ টিরও অধিক সেবা প্রদান করা হচ্ছে। প্রতি মাসে ৬০ লাখের অধিক সেবা গ্রহীতা ডিজিটাল সেন্টারের মাধ্যমে সেবা গ্রহণ করছেন। প্রতিমন্ত্রী ‘মুক্তপাঠ’ বাংলা ভাষায় সর্ববৃহৎ ই-লার্নিং প্লাটফর্ম উল্লেখ করে বলেন, যেখানে অনলাইনে সাধারণ শিক্ষা, কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা এবং সমগ্র জীবনব্যাপী শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ রয়েছে। আগামী বছর থেকেই প্রাথমিক পর্যায়ে কোডিং শিক্ষা অন্তর্ভুক্ত করতে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে নিবিঢ় ভাবে কাজ করছে আইসিটি বিভাগ। বর্তমান ও আগামী প্রজন্মকে দক্ষ করে তুলতে দেশে আরও ৩৫ হাজার আধুনিক ডিজিটাল কম্পিউটার ল্যাব প্রতিষ্ঠা করা হবে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply