sponsor

sponsor


Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » মোমিনুলদের লক্ষ্য এখন সাড়ে চারশ




মিরাজ-সাকিবের স্পিন বিষে নীল হয়ে স্বাগতিক জিম্বাবুয়ে প্রথম ইনিংসে অলআউট হয়ে গেছে ২৭৬ রানেই। যার ফলে ১৯২ রানের বিশাল লিড নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমেছে বাংলাদেশ। বিনা উইকেটে ৪৫ রান তুলে তৃতীয় দিন শেষ করেছে সাদমান ও সাইফ। যাতে সফরকারীদের লিড বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৩৭ রানে। লক্ষ্য এখন সাড়ে চারশ। দলের পক্ষে মেহেদি হাসান মিরাজ ৮২ রানে ৫টি এবং সাকিব আল হাসান ৮২ রানে ৪টি উইকেট শিকার করেন। বাকী উইকেটটি দখল করেন অসাধারণ বোলিং করা পেসার তাসকিন আহমেদ। জিম্বাবুয়ের হয়ে অভিষেক হওয়া ওপেনার কাদুজাওয়ানসে কাইটানো দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৮৭ রান করেন। ৩১১টি বল মোকাবেলায় ৯টি বাউন্ডারি হাঁকান তিনি। এছাড়া ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক ব্রেন্ডন টেলর করেন ৮২ রান এবং রেজিস চাকাভা অপরাজিত থাকেন ৩১ রানে। অভিষিক্ত ওপেনার কাইটানো, ব্রেন্ডন টেলর ও ডিওন মেয়ার্সের সৌজন্যে একটা সময় মনে হচ্ছিল সমান তালেই পাল্লা দিচ্ছে জিম্বাবুয়ে। মাত্র ২টি উইকেট হারিয়ে ২২৫ রানও তুলে ফেলেছিল দলটি। তবে ওই সময়েই সাকিব আল হাসান তৃতীয় উইকেটটি তথা ৬৫ বল মোকাবেলায় ২৭ রান করা মেয়ার্সকে তুলে নিতেই যেন তাসের ঘরের মতো ধ্বসে পরে রোডেশিয়রা। মিরাজ-সাকিবের যৌথ অভিযানে মাত্র ৫১ রানের ব্যবধানেই হারিয়ে ফেলে ৮টি উইকেট। এই দুজনের স্পিন ভেল্কিতে পড়ে জিম্বাবুয়ে দল তাদের সবকটি উইকেট হারালে একপ্রান্তে অবশ্য সঙ্গীহীন অসহায় অবস্থায় মাঠ ছাড়েন ৭১ বলে অপরাজিত ৩১ রানের ইনিংস খেলা রেগিস চাকাভা। এর আগে হারারে স্পোর্টস ক্লাবে অনুষ্ঠিত সফরের একমাত্র টেস্টের প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের সংগ্রহ ছিল ৪৬৮ রান। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ১৫০ রান করে অপরাজিত থাকেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। এছাড়া লিটন দাস ৯৫, তাসকিন আহমেদ ৭৫ ও মোমিনুল হক ৭০ রান করেন। জিম্বাবুয়ের পক্ষে শুরুর দিকে আগুনে বোলিং করে টাইগার শিবিরে ত্রাস সৃষ্টি করে একাই চারটি উইকেট শিকার করেন ব্লেসিং মুজারাবানি। এছাড়া ২টি করে উইকেট নেন ভিক্টর নিয়াউচি ও ডোনাল্ড তিরিপানো। এদিকে, ২৩৭ রানের লিড নিয়ে আজ চতুর্থ দিনে ব্যাট করতে নামবে বাংলাদেশ। তাদের হাতে রয়েছে পুরো ১০টি উইকেট এবং পুরো দুটি দিন অর্থাৎ ছয়টি সেশন। আমার মতে, আজ পুরো দুটি সেশন ব্যাট করে আরও দুইশ রান তুলে মোট সাড়ে ৪শ’র টার্গেট দিলে বাকী চার সেশনে জিম্বাবুয়েকে অলআউট করতে সক্ষম হবে ফুরফুরে মেজাজে থাকা টাইগার বোলাররা। কেননা, ইতোমধ্যেই তিন সেশনের মধ্যে তাদেরকে অলআউট করে দেখিয়েছে মিরাজ-সাকিব-তাসকিনরা। ২৭ টেস্টের ক্যারিয়ারে ইতোমধ্যেই ইনিংসে ৮ম বার পাঁচ বা ততোধিক উইকেট দখল করে যারপরানাই মহাখুশি মেজাজে আছেন ডানহাতি স্পিনার মেহেদী মিরাজ। লক্ষ্য এবার ম্যাচে তৃতীয়বারের মতো দশ বা তার বেশি উইকেট নেয়ার। অন্যদিকে, গত ইনিংস নিয়ে ৯ম বার ৪ উইকেট নেয়া সাকিব আল হাসানের লক্ষ্য থাকবে ক্যারিয়ারে ১৯তম বার পাঁচ বা ততোধিক উইকেট শিকারের। ৫৮ টেস্ট খেলার সাকিবের মোট উইকেট সংখ্যা এখন ২১৪টি। ম্যাচে দশ বা তার বেশি উইকেট শিকার করেছেন মিরাজের মতোই দুইবার।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply