sponsor

sponsor


Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » বিতর্ক চান না, তবে মুসলিম না বলে ছাত্রী বললেই খুশি হতেন, বললেন ‘প্রথম’ রুমানা




উচ্চ মাধ্যমিকে রাজ্যে সর্বোচ্চ নম্বর পেয়েছেন। তাঁকে নিয়ে উচ্ছ্বাস শুরু হয়েছে বৃহস্পতিবার থেকেই। কিন্তু পাশাপাশিই শুরু হয়েছে বিতর্ক। বিতর্ক এই নিয়ে যে, তাঁর ফলাফল নিয়ে বলতে গিয়ে ‘মুসলিম’ বলে পরিচয় দেওয়া কি যুক্তিযুক্ত হয়েছে। ছাত্রীর নাম রুমানা সুলতানা। শুক্রবার যিনি আনন্দবাজার অনলাইনকে বললেন, ‘‘মুসলিম না বললেই ভাল হত। একজন ছাত্রী বললেই বেশি ভাল হত। তবে আমি এটা নিয়ে কোনও বিতর্ক চাই না।’’ বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক না-করার জন্যও আবেদন জানিয়েছেন রুমানা। বিতর্কের সূত্রপাত বৃহস্পতিবার দুপুরে। উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা করতে গিয়ে উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের প্রধান মহুয়া দাস বলেছিলেন, ‘‘সর্বোচ্চ নম্বরের ভিত্তিতে একটা ইতিহাস সংসদে হয়েছে। সেটা একটু বলতে ইচ্ছে করছে। যিনি সর্বোচ্চ নম্বর পেয়েছেন একা।’’ এর পরেই মহুয়া বলেন, ‘‘একক ভাবে সর্বোচ্চ নম্বর পেয়েছেন এক মুসলিম কন্যা। মুসলিম… মুর্শিদাবাদ জেলা থেকে একজন মুসলিম লেডি… গার্ল। তিনি একক ভাবে ৪৯৯ সর্বোচ্চ নম্বর পেয়েছেন।’’ সংসদের প্রধানকে প্রশ্ন করা হয়, তাঁর নামটি কি বলা যাবে। তিনি জবাবে বলেন, ‘‘ওয়েবসাইট দেখে নেবেন।’’ ওয়েবসাইটে গিয়ে রুমানার নাম দেখা যায়। তার পর থেকেই নেটমাধ্যম এবং রাজনৈতিক মহলে বিতর্ক শুরু হয়েছে। সহ-নাগরিকদের মধ্যে অনেকে অভিমত প্রকাশ করেছেন সংসদের প্রধানের পক্ষে। তাঁরা মনে করছেন, একজন মুসলিম মেয়ে এত ভাল ফল করেছেন, সেটা অবশ্যই বলা উচিত। কারণ, এখনও এ রাজ্যে মুসলিম মেয়ে এবং মহিলাদের অনেক বাধাবিপত্তির মধ্য দিয়ে যেতে হয়। জীবনের অন্যান্য অনেক বিষয়েও মতো শিক্ষার ক্ষেত্রেও। আবার অন্য পক্ষের বক্তব্য, কেন ভাল ফলাফলের জন্য কোনও কৃতী পড়ুয়ার জাত বা ধর্ম বলতে হবে! তা করলে কি সংশ্লিষ্ট পড়ুয়াকে আরও বিড়ম্বিত করা হয় না? যেন তিনি তাঁর ধর্ম বা জাতের নিরিখে পরীক্ষায় ভাল বা মন্দ ফল করেছেন! তৃণমূল সাংসদ শান্তনু সেন বাদল অধিবেশনের জন্য সাসপেন্ড হলেন রাজ্যসভা থেকে মুর্শিদাবাদ জেলার কান্দি রাজা মনীন্দ্রচন্দ্র উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের ছাত্রী রুমানা। বৃহস্পতিবার দিনভর শুভেচ্ছাবার্তা-সহ অন্যান্য ব্যস্ত ছিলেন তিনি। শুক্রবার সকালে বহরমপুরের জেলাশাসক দফতরের কালেক্টরেট রুমে রুমানাকে সংবর্ধনা দেন জেলাশাসক শরদ কুমার দ্বিবেদী। তার আগেই বহরমপুরে আনন্দবাজার অনলাইনকে রুমানা জানান, তাঁর ফলের কথা বলতে গিয়ে ‘মুসলিম’ শব্দটি না বললেই ভাল হত। একজন ‘ছাত্রী’ হিসেবে সম্বোধন করলেই তিনি বেশি খুশি হতেন। তবে এ নিয়ে আর বিতর্ক চাইছেন না রুমানা বা তাঁর পরিজনেরা। রুমানার বাবা রবিউল আলম পেশায় স্কুলশিক্ষক। রবিউল মুর্শিদাবাদের ভরতপুর গয়েশাবাদ অচলা বিদ্যাপীঠের প্রধান শিক্ষক। মা সুলতানা পারভিন শিক্ষিকা। তাঁরা এই বিতর্ক নিয়ে বিশেষ কোনও মন্তব্য করতে চাননি। প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালে রুমানা মাধ্যমিকে রাজ্যে পঞ্চম স্থান অধিকার করেছিলেন। উচ্চ মাধ্যমিকে ৫০০-র মধ্যে ১ নম্বর কম পেয়ে সর্বোচ্চ নম্বর পেয়েছেন— ৪৯৯। বাবা-মায়ের থেকে শিক্ষালাভ করেই তাঁর এই সাফল্য বলে জানিয়েছেন রুমানা।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply