Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » » চিলিকে হারিয়ে সেমিফাইনালে ব্রাজিল




কোপা আমেরিকার কোয়ার্টার ফাইনালে চিলিকে হারিয়ে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে স্বাগতিক ব্রাজিল। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে লুকাস পাকুয়েতার গোলে এগিয়ে যাওয়ার পর ১০ জনের দলে পরিণত হয় তিতের দল। এই সুবিধা কাজে লাগিয়ে তাদেরকে চেপে ধরে চিলি। কিন্তু একের পর এক আক্রমণ ঠেকিয়ে ব্যবধান ধরে রাখে ব্রাজিল। বাংলাদেশ সময় শনিবার (৩ জুলাই) সকালে রিও দে জেনেইরোর নিল্তন সান্তোস স্টেডিয়ামে চিলির বিপক্ষে ১-০ গোলে জিতে ব্রাজিল। বিরতির সময় বদলি নামা লুকাস পাকুয়েতা করেছেন ম্যাচের একমাত্র গোলটি। ঘরের মাঠে ম্যাচের ২০তম মিনিটের মাথায় এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছিল ব্রাজিল। এ সময় নেইমারের বাড়িয়ে দেওয়া বল থেকে গোল করার দারুণ সুযোগ পেয়েছিলেন রবার্তো ফিরমিনো। কিন্তু তিনি মিস করেন। বারের ওপর দিয়ে মারেন তিনি। ৩৭তম মিনিটে গাব্রিয়েল জেসুসের বাড়ানো বলে নেইমারের ফ্লিক ফ্রান্সিসকো সিয়েরালতার পায়ে লেগে ব্যর্থ হয়। ছয় মিনিট পর জেসুসের শট কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন চিলি গোলরক্ষক। দ্বিতীয়ার্ধে ফিরমিনোর বদলে মাঠে নামা পাকুয়েতা ৬০ সেকেন্ডের মধ্যে গোল করেন। এ সময় সমন্বিত আক্রমণে বক্সের মধ্যে নেইমারের বাড়িয়ে দেওয়া বল থেকে ভলিতে গোল করেন পাকুয়েতা। তাতে এগিয়ে যায় ব্রাজিল। এগিয়ে যাওয়ার পর ম্যাচের ৪৯তম মিনিটে ১০ জনের দলে পরিণত হয় ব্রাজিল। অনেক উপরে পা তুলে বল নিয়ন্ত্রণে নিতে চেয়েছিলেন জেসুস। কিন্তু তার বুট গিয়ে লাগে ইউজেনিও মেনার মুখে। ঘটনার গুরুত্ব বুঝে সঙ্গে সঙ্গেই মাথায় হাত দিয়ে বসে পড়েন ম্যানচেস্টার সিটির এই ফরোয়ার্ড। বিপজ্জনক ফাউলের জন্য তাকে লাল কার্ড দেখান রেফারি পাত্রিসিও লোসতাও। গত আসরের ফাইনালেও লাল কার্ড দেখেছিলেন জেসুস। বাকি সময় দশজন নিয়েই খেলতে হয় ব্রাজিলকে। এই সুযোগ নিয়ে আক্রমণের ধার বাড়ায় চিলি। কিন্তু কাঙ্খিত গোলের দেখা পায়নি তারা। তবে, ৬২তম মিনিটে বল জালে পাঠিয়েছিল চিলি। কিন্তু অফসাইডের জন্য মিলেনি গোল। এর চার মিনিট পর ব্যবধান বাড়ানোর দারুণ সুযোগ আসে নেইমারের সামনে। প্রতি আক্রমণে বল পায়ে ডি বক্সে ঢুকে পড়েন পিএসজি ফরোয়ার্ড। কিন্তু তার শট সহজেই ফিরিয়ে দেন ব্রাভো। ৬৯তম মিনিটে একটুর জন্য সমতা ফেরাতে পারেনি চিলি। মেনার দারুণ ক্রসে ব্রেন বেরেটনের হেডে লাফিয়েও হাত ছোঁয়াতে পারেননি এদেরসন। ক্রসবারে লেগে বল ফিরে মাঠে। বেঁচে যায় ব্রাজিল। বাকি সময়ে রক্ষণাত্মক খেলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ব্রাজিল। সেমিফাইনালে ব্রাজিল লড়বে পেরুর বিপক্ষে। এদিন আরেক কোয়ার্টার ফাইনালে টাইব্রেকারে প্যারাগুয়েকে হারিয়ে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করে পেরু।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply