sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » বিজেপির আশঙ্কাই সত্যি, পিএসি চেয়ারম্যান হিসেবে Mukul Roy-কে বাছলেন স্পিকার




বিধানসভা থেকে ওয়াকআউট করেন বিরোধী দলের বিধায়করা। বিজেপির আশঙ্কাই সত্যি, পিএসি চেয়ারম্যান হিসেবে Mukul Roy-কে বাছলেন স্পিকার নিজস্ব প্রতিবেদন: আশঙ্কা করেছিল বিজেপি। সেটাই বাস্তবে। শুক্রবার পাবলিক অ্যাকাউন্টস কমিটির (PAC) চেয়ারম্যান হিসেবে মুকুল রায়কে (Mukul Roy) মনোনীত করলেন বিধানসভার অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়। কৃষ্ণনগর উত্তরের বিধায়কের নাম ঘোষণা হতেই বিধানসভায় হট্টগোল শুরু করে বিজেপি। প্রতিবাদে অধিবেশন কক্ষ থেকে ওয়াকআউট করেন গেরুয়া শিবিরের বিধায়করা। সাংবাদিক বৈঠকে বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী (Suvendu Adhikari) বলেন,'বিরোধী দলের তরফে পিএসি চেয়ারম্যান হন। সেই ঐতিহ্যকে ভাঙলেন অধ্যক্ষ মহোদয়।' বিধানসভার রীতি অনুযায়ী পিএসি-র (PAC) চেয়ারম্যানের পদ পান বিরোধী দলের বিধায়ক। তবে পিএসি-র সদস্য হিসেবে মুকুল রায় মনোনয়ন দেওয়ার পর থেকে শুরু হয় জল্পনা। ২০ সদস্যের পিএসি-তে ৬ জনের নাম দেয় বিজেপির পরিষদীয় দল। বিবেকানন্দ বাউড়ি, অম্বিকা রায়, শুভেন্দু অধিকারী, অশোক লাহিড়ী, নিখিলরঞ্জন দে এবং বঙ্কিমচন্দ্র ঘোষকে সদস্য হিসেবে মনোনীত করেন অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়। একই সঙ্গে পিএসি-র সদস্য হিসেবে ঠাঁই পান মুকুল রায়ও। তাঁর মনোনয়নে আপত্তি তুলে বিজেপি স্পিকারকে চিঠি দিয়ে জানায়,'মুকুল রায় খাতায় কলমে বিজেপির বিধায়ক। ফলে তাঁর নাম প্রস্তাব করতে পারে তারাই।' যদিও স্পিকার জানিয়ে দেন, তাঁর সিদ্ধান্ত এক্ষেত্রে চূড়ান্ত। ঘটনা হল, মুকুলের মনোনয়ন বাতিলও করেননি অধ্যক্ষ। তখনই আভাস মিলেছিল, মুকুলকে পিএসি চেয়ারম্যান করা হতে পারে। যদিও দলত্যাগ বিরোধী আইন প্রয়োগের হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। শেষপর্যন্ত শুক্রবার পিএসি চেয়ারম্যান হিসেবে মুকুলের নামেই পড়ল শিলমোহর। এ দিন শুভেন্দু ফের জানান,'মুকুল রায়ের বিধানসভার সদস্য পদই টিকিয়ে রাখতে পারবে না। কারণ দলত্যাগ বিরোধী আইন কার্যকর করার লক্ষ্যে অঙ্গীকারবদ্ধ ভারতীয় জনতা পার্টি।' পিএসি চেয়ারম্যান নিয়ে সরকার পক্ষ যে সংঘাতে যাবে তা বোঝা গিয়েছিল মুখ্যমন্ত্রীর কথাতেই। মমতা বলেছিলেন,'মুকুল রায় (Mukul Roy) তিনি তো বিজেপি পার্টির মেম্বার। অসুবিধার কী আছে? তাঁকে কালিম্পং থেকে বিনয় তামাংদের পার্টি সমর্থন দিয়েছে। আমরাও দেব।' একইসঙ্গে হুঁশিয়ারি দেন,'আসুক না কার কত শক্তি দেখে নিক না।'






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply