Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » বিদেশযাত্রায় নিহত ২, মাদারীপুরে চলছে মাতম




কোনোভাবেই থামছে না অবৈধভাবে সমুদ্রপথে বিদেশযাত্রা। এবার তিউনিসিয়ায় ট্রলার ডুবিতে প্রাণ গেল মাদারীপুরের দুই যুবকের। তাদের পরিবারে চলছে শোকের মাতম। এ ঘটনায় দালালদের বিচার দাবি করেছেন নিহতের স্বজন ও এলাকাবাসী। পুলিশ বলছে, দালালদের বিরুদ্ধে নেওয়া হবে আইনগত ব্যবস্থা। আদরের সন্তান আর ফিরে আসবে না, এ শোক কিছুতেই মানতে পারছে না নিহত সাব্বিরের মা নাজমা বেগম। শনিবার (২০ নভেম্বর) রাত ২টার দিকে ছেলের মৃত্যুর খবর আসলে কান্নায় ভেঙে পড়েন স্বজনরা। এদিকে নিহত সাকিবের পরিবারেও চলছে মাতম। এলাকাবাসী জানায়, মাদারীপুর সদর উপজেলার পশ্চিম খাগদী গ্রামের সাব্বির খান ও বড়াইলবাড়ী গ্রামের সাকিব তালুকদারসহ বেশ কয়েকজন ৬ মাস আগে ইতালি যাবার উদ্দেশে বাড়ি থেকে বের হয়। শনিবার তাদের লিবিয়া থেকে অবৈধভাবে সমুদ্রপথে ট্রলারে যাত্রা করায় দালালচক্র। রাত ৮টার দিকে তিউনিসিয়ায় ভূমধ্যসাগরে ট্রলারডুবিতে মারা যান সাব্বির ও সাকিব। পরে সাব্বির ও সাকিরের মারা যাবার বিষয়টি মুঠোফোনে জানান দালালচক্রের সিন্ডিকেটের সদস্যরা। স্বজনরা জানায়, সদর উপজেলার কালিকাপুর ইউনিয়নের চরনাচনা গ্রামের দালালচক্রের সক্রিয় সদস্য সেকেন মোড়লের ছেলে আতিবর মোড়ল (ইতালি প্রবাসী) ও কাশেম মোড়ল এবং পেয়ারপুর ইউনিয়নের বড়াইলবাড়ী গ্রামের কবির মীরা ছেলে সবুজ মীরা (ইতালি প্রবাসী) ও সুমন মীরা ইতালি নেওয়ার কথা বলে প্রত্যেকের পরিবারের কাছ থেকে সাড়ে ৯ লাখ টাকা করে নেয়। কিন্তু লিবিয়া যাবার পর পরিবারের কাছে দাবি করে আরও টাকা। পরে পরিবারদের না জানিয়ে ট্রলারে যাত্রা করালে এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগ স্বজনদের। এ ঘটনায় দালালদের কঠোর শাস্তি দাবি করেছেন স্বজন ও এলাকাবাসী। আরও পড়ুন: ছয় মাসের সাজার ভয়ে ১২ বছরের পলাতক আসামি ধরা এলাকাবাসী জানায়, যখনই বিদেশযাত্রা পথে কোনো দুর্ঘটনায় কেউ মারা যায়, তখনই প্রশাসন নড়েচড়ে বসে। দালালদের প্রশাসনের লোকজন আটকও করে। কিন্তু কিছুদিন পরে দালালরা জামিনে বেরিয়ে এসে একই কাজ করে থাকে। এ ঘটনায় প্রশাসন কঠোর পদক্ষেপ না নিলে এই অবৈধপথে বিদেশযাত্রা থামবে না। নিহত সাব্বিরের মা নাজমা বেগম বলেন, আমার ছেলেকে যারা মেরে ফেলছে, তাদের কঠিন বিচার চাই। তাদের ফাঁসি চাই। সাব্বিরের খালু ওবায়দুর তালুকদার বলেন, এ ঘটনার পর এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে দালালচক্রের সদস্যরা। প্রশাসনের কাছে জোর দাবি করছি অপরাধীদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হোক। নিহত সাকিব তালুকদারের বাবা হাবিবুর রহমান তালুকদার বলেন, দালালদের এখন ফোন দিলে আর ফোন রিসিভ করে না। নানা ধরনের প্রতিশ্রুতি দিলেও একটি রাখেনি তারা। মাদারীপুরের পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল জানান, দুই যুবক মারা গেছে, এমন খবর এখনো পাওয়া যায়নি। তবে পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ দিলে দালালদের বিরুদ্ধে নেওয়া হবে আইনগত ব্যবস্থা।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply