Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » যৌন নিপীড়নের অভিযোগের পর নিখোঁজ সেই চীনা টেনিস তারকার খোঁজ মিলেছে!




চীনের বেইজিংয় একটি টেনিস টুর্নামেন্টে অতিথি হিসেবে হাজির হয়েছেন টেনিস তারকা খেলোয়াড় পেং শুয়াই। রোববার (২১ নভেম্বর) চীনা রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমের একটি ভিডিওতে তা দেখানো হয়েছে। ৩ মিনিটে পড়ুন রাষ্ট্র-অধিভুক্ত মিডিয়াটি টুইটারে একটি ক্লিপ পোস্ট করেছে, যেটিতে পেং শুয়াই রয়েছেন বলে দাবি করা হচ্ছে। তাকে দেখা যাওয়া সম্পর্কে এটিই সবচেয়ে হালনাগাদ তথ্য। সরকার, টেনিস কর্মকর্তা এবং খেলোয়াড়রা তার বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। দুই সপ্তাহ আগে তিনি চীনের সাবেক উপ-প্রধানমন্ত্রী বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ তোলেন। তারপর থেকে তিনি নারী টেনিস অ্যাসোসিয়েশনের সাথে সরাসরি কোনো যোগাযোগ করেননি। কী অভিযোগ টেনিস তারকার? চীনের সামাজিক মাধ্যম সাইট ওয়েইবোতে দেওয়া এক পোস্টে পেং বলেন, সাবেক উপ-প্রধানমন্ত্রী ঝাং গাওলি তার সাথে যৌন মিলনে পেং-কে 'বাধ্য' করেছিলেন। পেং এই পোস্ট দেন ২ নভেম্বর। এই প্রথম চীনের ঊর্ধ্বতন কোনো রাজনৈতিক নেতার বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগ আনা হলো। চীনের উপ-প্রধানমন্ত্রী পদে ৭৫ বছর বয়সী ঝাং গাওলি দায়িত্ব পালন করেন ২০১৩ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত। তিনি চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং-এর ঘনিষ্ঠ। পেং-এর এই দাবির কোনো উত্তর দেননি ঝাং। আরও পড়ুন: ভয়াবহ বায়ু দূষণে অসুস্থ হচ্ছেন ভারতীয়রা ‘উপ-প্রধানমন্ত্রী ঝাং গাওলি, আমি জানি আপনার মতো একজন বিশিষ্ট ব্যক্তি বলবেন আপনি ভীত নন,’ পেং তার পোস্টে এ কথা লেখেন, ‘তারপরও এটা যদি বড় পাথরের গায়ে নুড়ি দিয়ে আঘাত করার মতো, বা নিজে পুড়ে মরবে জেনেও একটা মথ যেভাবে আগুনে ঝাঁপ দেয়, তার সমতুল্য হয়, তাহলেও আমি আপনার সম্পর্কে সত্য কথাটা বলতে চাই।’ পেং বলেন, টেনিস খেলার জন্য তিনি ঝাও-এর বাসভবনে গেলে প্রথমে তিনি তার ওপর জোরাজুরি করেন। ‘সেদিন বিকেলে আমি আপনার সাথে এ কাজ করার অনুমতি দেইনি, আমি সারাক্ষণ কাঁদছিলাম,’ পোস্টে তিনি লেখেন, ‘আপনি আমাকে আপনার বাসার ভেতরে নিয়ে যান এবং আপনার সাথে মিলিত হতে বাধ্য করেন।’ পেং স্বীকার করেন তার দাবির সমর্থনে তিনি কোনো প্রমাণ দিতে পারবেন না। ‘আমার কাছে কোনো সাক্ষ্যপ্রমাণ নেই। কোনো সাক্ষ্যপ্রমাণ থাকাও অসম্ভব ছিল ...আপনি সারাক্ষণ ভয় পাচ্ছিলেন আমি কোনো রকম টেপ রেকর্ডার নিয়ে গেছি কি না, কোনো কিছু প্রমাণ বা কিছু রেকর্ড করেছি কি না ...আমার কাছে কোনো অডিও রেকর্ডিং নেই, ভিডিও রেকর্ডিং নেই, শুধু আছে আমার অতি সত্য, ভয়াবহ অভিজ্ঞতাটুকু।’ ইন্টারনেট থেকে পোস্ট উধাও পেং ওয়েইবোতে এই পোস্ট দেওয়ার কয়েক মিনিটের মধ্যেই তা চীনের ইন্টারনেট থেকে মুছে ফেলা হয়। পেং-এর অ্যাকাউন্ট থেকে সম্প্রতি দেওয়া অন্যান্য সাম্প্রতিক পোস্টগুলোও মুছে ফেলা হয়। ওয়েইবো-তে পেং শুয়াই-য়ের অনুসারীর সংখ্যা পাঁচ লাখ। পেং শুয়াই একজন বিশাল তারকা। চীনের সবচেয়ে জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন বাইদু-তে তার নাম দিয়ে সার্চ করলে ৭০ লাখের বেশি ফলাফল আসে। তবে এই পোস্টের পর থেকে চীনের সিনা ওয়েইবো মাইক্রোব্লগ সাইট, যা চীনে ফেসবুকের সমতুল্য সেখানে পেংকে নিয়ে মানুষ যাতে কথাবার্তা বলতে না পারে তার জন্য ব্যাপক দমনমূলক পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে এমন প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে জানাচ্ছেন বিবিসির চীনা বিষয়ে মিডিয়া বিশ্লেষক কেরি অ্যালেন। পেং নাম দিয়ে সার্চ করে তার বিষয়ে এখন সীমিত পরিসরে তথ্য ইন্টারনেটে পাওয়া যাচ্ছে। তার অনুসারীর সংখ্যা পাঁচ লাখের বেশি হওয়ার পরও এখন তারা পেং-এর অ্যাকাউন্টের সন্ধান করে কোনো তথ্য পাচ্ছে না। সূত্র: আল-জাজিরা, বিবিসি






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply