Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » আড়াই বছর পর টেস্ট প্রত্যাবর্তনে স্বপ্নের সেঞ্চুরি!




আড়াই বছর পর টেস্ট প্রত্যাবর্তনে স্বপ্নের সেঞ্চুরি! আবেগি খোয়াজার স্ত্রী, খোয়াজার অসাধারণ ইনিংসে চালকের আসনে অস্ট্রেলিয়া।

নিজস্ব প্রতিবেদন: সাল ২০১৯, মাস অগাস্ট, ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে লিডসে শেষবার অস্ট্রেলিয়ার হয়ে টেস্ট খেলেছিলেন উসমান খোয়াজা (Usman Khawaja)। আড়াই বছর পর টেস্ট দলে প্রত্যাবর্তন করলেন খোয়াজা। বৃহস্পতিবার সিডনিতে চতুর্থ অ্যাশেজ টেস্টের দ্বিতীয় দিনে খোয়াজার ব্যাট থেকে এল ২৬০ বলে ১৩৭ রানের ইনিংস। ৪১০ মিনিট ক্রিজে থেকে ১৩টি চারে নিজের শতরানের ইনিংস সাজালেন খোয়াজা। কামব্যাক টেস্ট স্মরণীয় করে রাখলেন অসাধারণ সেঞ্চুরিতে। লাল বলের ক্রিকেটে অষ্টম শতরানের স্বাদ পেলেন তিনি। খোয়াজার ব্যাটে ভর করে ও স্মিথের ঝকঝকে ৬৭ রানের সৌজন্যে অস্ট্রেলিয়া প্রথম ইনিংসে ৪১৬/৮ ডিক্লেয়ার করেছে। জবাবে ইংল্যান্ড দ্বিতীয় দিনের শেষে বিনা উইকেটে ১৩ রান যোগ করেছে স্কোরবোর্ডে। দুই ওপেনার হাসিব হামিদ (২) ও জ্যাক ক্রলে (২) অপরাজিত আছেন ক্রিজে। খোয়াজা এদিন যখন সেঞ্চুরির পর সেলিব্রেশন শুরু করেন তখন ক্যামেরা প্যান করে চলে যায় গ্যাালারির দিকে। সেখানে খোয়াজার স্ত্রী ব়্যাচেল তাঁদের কন্য় আইশাকে কোলে নিয়ে বসেছিলেন। খোয়াজার শতারানের পরেই ব়্যাচেল লাফিয়ে ওঠেন আইশাকে ওপরের দিকে তুলে। এই ভিডিও সোশ্যালে ভাইরাল হয়ে যায়। ব়্যাচেল পরে জানান যে, তিনি চেয়েছিলেন যে, খোয়াজা ঘরের মাঠে অন্তত শেষ একটা টেস্ট খেলুক। আর এই সেঞ্চুরি গর্বিত করেছে গোটা পরিবারকে। দুই টেস্ট বাকি থাকতেই অ্যাশেজে (The Ashes) ধরে রেখেছে প্যাট কামিন্স অ্যান্ড কোং। চলতি অ্যাশেজে অস্ট্রেলিয়া প্রথম টেস্টে গাবায় ৯ উইকেটে জিতেছিল। এরপর অ্যাডিলে়ডে দিন-রাতের টেস্টে ২৭৫ রানে জেতে অস্ট্রেলিয়া। এরপর অজিরা মেলবোর্নে বক্সিং-ডে টেস্ট ইনিংস ও ১৪ রানে জিতে সিরিজ পকেটে পুরে ফেলে। সিরিজের পঞ্চম তথা শেষ টেস্ট হোবার্টের বেলেরিভ ওভালে। অ্যাডিলেডের পর ফের অ্যাশেজ দেখবে গোলাপি বলে দিন-রাতের টেস্ট। ঘটনাচক্রে অ্যাশেজের পঞ্চম টেস্ট হওয়ার কথা ছিল পার্থে। কিন্তু পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার রাজধানীতে কোভিড (Covid-19) সংক্রান্ত কোয়ারেন্টিন ও রাজ্যের সীমানায় বিধিনিষেধ জারি হওয়ায় টেস্ট স্থানান্তরিত করে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply