Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » জার্মানিতে বাংলাদেশিদের জন্য দারুণ সুযোগ আসছে




নানা খাতে দক্ষ কর্মীর চাহিদা বাড়ছে ইউরোপের সবচেয়ে সমৃদ্ধ দেশ জার্মানিতে। অপ্রতুল জনবল ও করোনায় ভঙ্গুর অর্থনীতিকে নতুন করে চাঙ্গা করতেই দেশটির বর্তমান ক্ষমতাসীন জোট সরকার ইইউ-এর বাইরের দেশ থেকে প্রতিবছর প্রায় কয়েক লাখ কর্মী নেওয়ার বিষয়ে সমঝোতাও প্রায় নিশ্চিত। এটি চূড়ান্ত হলে বাংলাদেশের জন্যও হবে দারুণ একটি সুযোগ। চিকিৎসা, প্রকৌশল, কারিগরি কিংবা সেবামূলক নানা খাতে দিনের পর দিন দক্ষ জনবলের চাহিদা বেড়েই চলেছে প্রায় সাড়ে আট কোটির জনসংখ্যার দেশ জার্মানিতে। গেল দুই বছরে করোনায় মুমূর্ষু অর্থনীতিকে বাঁচাতে ইউরোপের বাইরের তৃতীয় যেকোনো দেশ থেকে দক্ষ কর্মী নেওয়ার বিষয়েও সমঝোতা হয়েছে বর্তমান ক্ষমতাসীন দল এসপিডি, সবুজদল ও এফডিপির জোট সরকারের মধ্যে। এতে বাংলাদেশিদের জন্য সম্ভাবনা দেখছেন দেশটিতে বসবাসরত প্রবাসী তরুণরা। এক প্রবাসী বাংলাদেশি বলেন, বহু শিক্ষার্থী লেখাপড়া শেষে চাকরির সুবাদে এখানেই স্থায়ী হয়েছেন। অদূর ভবিষ্যতে জার্মানিতে বহু দক্ষ পেশাজীবী দরকার। এরইমধ্যে ইইউ'এর বাইরের দেশ থেকে দক্ষ জনবল আনার বিষয়ে একটি সমন্বিত পয়েন্ট পদ্ধতি চালুর বিষয়েও ঐক্যমত্যে পৌঁছেছে চ্যান্সেলর ওলাফ শলজের নেতৃত্বাধীন জোট সরকার। এমনকি চলতি বছরের অক্টোবর থেকে প্রতি ঘণ্টায় জাতীয় নূন্যতম মজুরি ৯ ইউরো ৬০ সেন্টের পরিবর্তে ১২ ইউরো করার পরিকল্পনায় সম্মতি দিয়েছে দেশটির অন্য রাজনৈতিক দলগুলোও। দেশটির বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত তরুণরা এই সুযোগটি নিতে পারে বলে মত প্রবাসী শিক্ষার্থীদের। আরও পড়ুন: ৩ কোটি ডোজ টিকা দেবে জার্মানি এক বাংলাদেশি শিক্ষার্থী বলেন, এটি অবশ্যই দারুণ সুযোগ। লেখাপড়া শেষে কারও এখানে থেকে যাওয়ার ইচ্ছা না থাকলেও নিজেদের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে দেশে ভালো কিছু করতে পারবেন। জার্মানির ১৬টি অঙ্গরাজ্যে বসবাসরত প্রায় ২০ হাজারের বেশি প্রবাসীরা মনে করেন, বার্লিনের বাংলাদেশ দূতাবাস আন্তরিকতা ও স্বচ্ছতার মাধ্যমে বিষয়টিতে গুরুত্ব দিলে ষাটের দশকের তুরস্কের মতো খুলে যেতে পারে বাংলাদেশের ভাগ্য। তাই দেশ থেকে বাণিজ্য-বন্ধু জার্মানিতে জনবল বিনিয়োগের খুঁটিনাটি নানা বিষয় আরও গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনার আশ্বাস দেন জার্মানিতে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply