Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » বাবা-মায়ের কোলে ফিরল হারিয়ে যাওয়া ছোট্ট শিশু




অবশেষে বাবা-মায়ের কোলে ফিরল কাবুল বিমানবন্দরে হারিয়ে যাওয়া ছোট্ট শিশু সোহেইল আহমাদি। আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল তালেবানের নিয়ন্ত্রণে চলে যাওয়ার পর সেখানকার বিমানবন্দরে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির মধ্যে হারিয়ে যায় মাত্র দুই মাস বয়সের ওই শিশু। শনিবার (৮ জানুয়ারি) তার পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেওয়া হয় তাকে। রয়টার্সের প্রতিবেদন প্রকাশের পর শিশুটির সন্ধান মেলে বলে জানিয়েছে বিবিসি। কতই না খোঁজাখুঁজি। সন্তানকে ফিরে পাওয়ার আকুতি। অবশেষে অপেক্ষার প্রহর শেষ হলো বাবা-মায়ের। দীর্ঘ কয়েক মাসের চেষ্টায় সন্তানকে ফিরে পেল বাবা-মা। সন্তানও খুঁজে পেল আপন ঠিকানা। এ গল্প কাবুল বিমানবন্দরে হারিয়ে যাওয়া সেই শিশু সোহেইল আহমাদির। সোহেইলকে খুঁজে পান ট্যাক্সিচালক হামিদ সাফি। তিনি জানান, বিমানবন্দরে পড়ে থেকে একা একা কাঁদতে দেখেন শিশুটিকে। তার বাবা-মাকে অনেক খুঁজেও বের করতে না পেরে সোহেইলকে বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। শিশুটিকে বাড়িতে নিয়ে যান এবং নাম রাখেন মোহাম্মাদ আবেদ। ফেসবুক পেজে নিজের নাতি-নাতনিদের সঙ্গে সুহেইলের ছবি শেয়ার করেন। আরও পড়ুন: কারাগারই কি সু চি-র স্থায়ী ঠিকানা বার্তা সংস্থা রয়টার্সে নভেম্বরে এ ঘটনা নিয়ে একটি প্রতিবেদনসহ শিশুটির ছবি প্রকাশ করা হয়। পরে শিশুটি কাবুলে আছে বলে খোঁজ পাওয়া যায়। খোঁজ পাওয়ার পর দীর্ঘ সাত সপ্তাহের আলোচনা ও আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তালেবান পুলিশের হস্তক্ষেপে ২৯ বছর বয়সী হামিদ সাফি শিশুটিকে কাবুলে থাকা তার আত্মীয়দের কাছে ফিরিয়ে দেন। শিশুটিকে ফেরত পেয়ে আনন্দে আত্মহারা তার পরিবারের সদস্যরা। গতবছর ১৯ অগাস্ট কাবুল বিমানবন্দরে আফগানিস্তান ছাড়তে জড়ো হওয়া যাত্রীদের ব্যাপক ভিড়ের মধ্যে শিশু সোহেইলকে বেড়ার ওপর দিয়ে এক মার্কিন সেনার হাতে তুলে দিয়েছিলেন তার বাবা-মা। বিমানবন্দরের দেয়ালের ওপর দিয়ে তারা তুলে নেন শিশুটিকে। ভেবেছিলেন, বিমানবন্দরে ঢোকার পর শিশুকে নিয়ে নেবেন। কিন্তু তালেবানের সদস্যরা তখন বিমানবন্দরের বাইরে ভিড় কমানোর চেষ্টায় সবাইকে পেছনে ঠেলতে থাকে। এ কারণে বিমানবন্দরে ঢুকতে দেরি হয়ে যায় সোহাইলের বাবা মির্জা আলি আহমাদি এবং মা সুরাইয়ার। এরপর তারা আর তাদের শিশু সন্তানকে খুঁজে পাননি।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply