Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » পাবিপ্রবি ভিসির বিরুদ্ধে নিয়োগে অনিয়ম ও শিক্ষক লাঞ্ছনার অভিযোগ




পাবিপ্রবি ভিসির বিরুদ্ধে নিয়োগে অনিয়ম ও শিক্ষক লাঞ্ছনার অভিযোগ

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এম রোস্তম আলীর বিরুদ্ধে গণিত বিভাগের শিক্ষক নিয়োগে অস্বচ্ছতা, অনিয়ম ও একই বিভাগের চেয়ারম্যানকে লাঞ্ছিতের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন করেছেন গণিত বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ। বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারি) বিকেলে পাবনা প্রেসক্লাবের ভিআইপি সেমিনার হলরুমে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে প্রফেসর হারুন বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে গণিত বিভাগে ২ জন শিক্ষক নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু হয়। নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে ওই নিয়োগ প্রক্রিয়ায় আমাকে সদস্য হিসেবে আমন্ত্রণ জানানো হয়। কিন্তু বৃহস্পতিবার সকালে নিয়োগ বোর্ডে উপস্থিত হতে গেলে ভাইস চ্যান্সেলরের ইশারায় তার পেটুয়া কর্মকর্তা ও কর্মচারী বাহিনী আমাকে নিয়োগ বোর্ডের কক্ষে প্রবেশে বাঁধা প্রদান করে এবং শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে ওই বিল্ডিং থেকে বের করে দেয়। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ভিসি স্যারের মেয়াদ একেবারেই শেষ পর্যায়ে। যাওয়ার সময়ে নানা অনিয়ম, দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতিসহ বিশ্ববিদ্যালয়টিকে দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত করে যাচ্ছেন তিনি। নিজের খেয়াল খুশিমতো অনিয়ম ও অনৈতিক সুবিধা নিয়ে অযোগ্য, অদক্ষ জনবল নিয়োগ, স্বেচ্ছাচারিতাসহ বিভিন্ন অপকর্ম করছেন। কেউ এসব কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদ করলেই তার ওপর নেমে আসে দুর্বিসহ স্বেচ্ছাচারী আচরণ ও চাপ। সেকশন অফিসার পদে নিয়োগপ্রার্থী আতিকুল ইসলাম জানান, গত বছরের ১৬ জুন নিয়োগ বোর্ডে মেধা যাচাই ও যোগ্যতাসম্পন্ন প্রার্থীদের না নিয়ে নিয়োগ বোর্ডের সভাপতির দায়িত্বে থেকে ভিসি স্যার তার আপন ভাতিজি কানিজ ফাতেমাকে প্রথম শ্রেণির সেকশন অফিসার পদে নিয়োগ দিয়েছেন। একই পদে আরও চারজনকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে শুধুমাত্র অর্থের বিনিময়ে। অথচ লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় পরীক্ষার্থীদের অংশগ্রহণের নামে নাটক সাজিয়ে সেই পরীক্ষার কোনো রোস্টারই টাঙানো হয়নি। এছাড়াও নাটক সাজিয়ে আরও বেশ কয়েকটি নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি। এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে ভিসি প্রফেসর ড. এম রোস্তম আলী তার ভাতিজির নিয়োগের কথা স্বীকার করেন। তবে কানিজ ফাতেমার নিয়োগে মৌখিক পরীক্ষার সময়ে তিনি ঢাকাতে ছিলেন বলে জানান। ওই নিয়োগের বিষয়ে অস্বচ্ছতার অভিযোগ অস্বীকার করেন তিনি। নিজস্ব পেটুয়া বাহিনী দিয়ে গণিত বিভাগের চেয়ারম্যানকে লাঞ্ছিতের বিষয়ে তিনি বলেন, নিয়োগ বোর্ডের সদস্য হলেও তার স্ত্রী চাকুরি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করায় তাকে বিধি মোতাবেক নিয়োগ বোর্ডে রাখা সম্ভব হয়নি। যে কারণে অফিস স্টাফরা তাকে নিয়োগ বোর্ডে ঢুকতে না দিয়ে চলে যেতে বলেছেন। সংশ্লিষ্ট অভিযোগের প্রেক্ষিতে গণিত বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদও স্বীকার করেন তার স্ত্রী পরীক্ষার্থী। তবে যেহেতু লিখিত পরীক্ষায় তার স্ত্রী উত্তীর্ণ হননি, ফলে মৌখিক পরীক্ষায় তার উপস্থিত থাকার অধিকার আছে বলে দাবি করেন তিনি। তিনি বলেন, আমার বিভাগে শিক্ষক নিয়োগ হবে আর আমি সেখানে থাকতে পারবো না, এমন কোনো বিধি নেই। এ ঘটনা নিয়ে তিনি থানায় মামলা করবেন বলেও জানান। পাশাপাশি শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও ইউজিসি বরাবর অভিযোগ দায়ের করার কথাও বলেন। তবে শুরু থেকেই প্রফেসর রোস্তম আলী তার বিরুদ্ধে অভিযোগ অস্বীকার করছেন। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয় এমন কোনো কাজ করা হয়নি। উল্টো যে বা যারাই অভিযোগ করেছেন, তারা নিজেদের স্বার্থ হাসিল করতে পারেননি বলেই মিথ্যা মনগড়া অভিযোগ তুলছেন বলে অভিযোগ তোলেন তিনি।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply