Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » মিশা-জায়েদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিবেন আলমগীর




শিল্পী সমিতির নির্বাচন নিয়ে এফডিসিতে এখন উৎসবমুখর পরিবেশ। কিন্তু এই নির্বাচন নিয়ে কাদা ছোড়াছুড়িও কম হচ্ছে না। এরইমধ্যে মিথ্যাচারের আশ্রয় নেওয়ায় মিশা সওদাগর ও জায়েদ খানের বিরুদ্ধে ফৌজদারি আইনে মামলা করবেন বলে জানালেন বিশিষ্ট অভিনেতা আলমগীর। মঙ্গলবার ইলিয়াস কাঞ্চন-নিপুন পরিষদের প্যানেল পরিচিতি সভায় শুভেচ্ছা জানাতে হাজির হয়ে নিজের বক্তব্যে একথা জানান তিনি। কিংবদন্তি এই অভিনেতা মিশা-জায়েদকে চ্যালেঞ্জ করে বলেন, ‘‘ ১৮৪ জন ভোটার বাতিলের রেজ্যুলিউশনটা আমাকে দেখাও। সেখানে আমার স্বাক্ষর আছে, আমি জড়িত আছি এটা প্রমাণ করতে পারলে- কথা দিলাম তোমাদের প্যানেলকে ভোট দেবো।’’ যোগ করে আলমগীর আরো বলেন, ‘‘যদি প্রমাণ না দিতে পারো তবে আমি তোমাদের নামে আইনি ব্যবস্থা নেবো। ফারুক ভাই, সোহেল রানা ভাই, উজ্জ্বল ভাই যদি আমার সঙ্গে নাও আসেন, আমি একাই তোমাদের নামে ফৌজদারি মামলা করবো।’’ তিনি মিশা-জায়েদকে আরো বলেন, ‘‘মিথ্যা বন্ধ করো। আল্লাহকে ভয় করো, না হলে আল্লাহই টেনে নামাবে। আমরা যারা আছি, ইন্ডাস্ট্রির গাছের মতো। আমাদের মেরে ফেলে আগায় পানি দিও না। পাতাগুলো ঝরে যাবে, সতর্ক হও। আমাদের কাছে আসলে ভালো পরামর্শের জন্য আসো। আমরা সবাই চাই চলচ্চিত্রের অবস্থা ভালো হোক।’’ এ সময় ইলিয়াস কাঞ্চনকে নিয়ে আলমগীর বলেন, ‘‘আজ এখানে ইলিয়াস কাঞ্চন সভাপতি পদে নির্বাচন করছে। ও এমন একজন মানুষ যার আসলে প্রশংসার শেষ নেই। ওর সঙ্গে কথা বললে মনে হয় বড় ভাইয়ের সঙ্গে কথা বলছি। প্রায়ই ভাবি, ও আমার বড় ভাই হলো কবে। ওর কথা শুনলে মুগ্ধ হই। আমি কাঞ্চন ও তার প্যানেলের জন্য শুভেচ্ছা জানাই।’’ ইলিয়াস কাঞ্চন-নিপুন পরিষদের প্যানেলের পরিচিতি অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ইলিয়াস কাঞ্চন, নিপুণ, রিয়াজ, ফেরদৌস, সাইমন, নিরব, ইমন, সীমান্ত, সাংকো পাঞ্জা, আরমান, গাঙ্গুয়া, নানাশাহ, জেসমিন, কেয়া, শাহনূরসহ অনেকেই। উল্লেখ্য, ২৮ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির দ্বিবার্ষিক এই নির্বাচন। নির্বাচনে দুটি প্যানেল অংশ নিয়েছে। নির্বাচনে কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন অভিনেতা পীরজাদা হারুন। আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যান পরিচালক সোহানুর রহমান সোহান। বোর্ডের সদস্য করা হয়েছে মোহাম্মদ হোসেন জেমী ও মোহাম্মদ হোসেনকে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply