Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » ক্যামেরুনের রাজধানীতে আগুন এবং বিস্ফোরণে অন্ততঃ ১৭ জন নিহত




ক্যামেরুনের রাজধানী ইয়াউন্ডে রবিবার এক অগ্নিকাণ্ড এবং তার ফলে ঘটা বিস্ফোরণে নিহত ১৭ জনের নাম ও জাতীয়তা খুঁজে বের করার জন্য একটি তদন্ত শুরু করেছে দেশটির সরকার। একটি জনপ্রিয় নাইট ক্লাবে বিস্ফোরণে আটজন আহত হয়েছে। চলমান আফ্রিকা কাপ অফ নেশনস ফুটবল টুর্নামেন্টের জন্য হাজার হাজার ফুটবল অনুরাগী ইয়াউন্ডে অবস্থান করায়, সরকার সবাইকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছে। রবিবার সকালে ক্যামেরুনের সরকারী কর্মকর্তাসহ শত শত মানুষ ইয়াউন্ডের দুর্ঘটনাস্থল বাস্তোসে উপস্থিত হয়।তারা ঐ এলাকার বাসিন্দা, জনপ্রিয় নাইট ক্লাব লিভস-এর কর্মী এবং ক্যামেরুনের মিলিটারি ফায়ার ব্রিগেডের কর্মীদের উদ্ধার তৎপরতা প্রত্যক্ষ করে। কর্মীরা ওই এলাকায় তিনটি অগ্নিদগ্ধ বিল্ডিংয়ে অনুসন্ধান চালায়। আহতদের সন্ধানে সহায়তাকারী বেসামরিক নাগরিকদের মধ্যে ২৭ বছর বয়সী গুস্তাভ লেমেলুও ছিলেন। লেমেলু বলেছেন, বেসামরিক লোকজন এবং ক্যামেরুনের মন্ত্রকের ফায়ার ব্রিগেড অন্তত ৪০ জনের জীবন বাঁচিয়েছে। তিনি বলেন, আহত এবং নিহতদের নাম এবং জাতীয়তা জানা কঠিন, কারণ লিভস নাইটক্লাব-এ ঢোকার জন্য কাউকে কোনও পরিচয়পত্র দেখাতে হয়না। লেমেলু বলেন, তিনি নিশ্চিত যে আক্রান্তদের মধ্যে চলমান আফ্রিকান কাপ অফ নেশনস-এর জন্য ক্যামেরুনে আসা লোকজনও রয়েছে। দুর্ঘটনার পর এক বিবৃতিতে, সরকার বলেছে, নাইটক্লাবে দুর্ঘটনাজনিত আগুন পাশের একটি রান্নার গ্যাসের দোকানে ছড়িয়ে পড়ে। সেখান থাকা ছয়টি গ্যাস ক্যানিস্টারের বিস্ফোরণে আশপাশে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। ক্যামেরুনের জনস্বাস্থ্যমন্ত্রী মানাউদা মালাচি বলেছেন, দুর্ঘটনাটি ঘটার সাথে সাথে প্রেসিডেন্ট পল বিয়াকে জানানো হয়। মানাউদা বলেন, প্রেসিডেন্ট বিয়া আহতদের ইয়াওন্ডে সেন্ট্রাল হাসপাতালে নিয়ে যেতে স্বাস্থ্যকর্মীদের নির্দেশ দিয়েছেন। ক্যামেরুনের যোগাযোগ মন্ত্রী রেনে ইমানুয়েল সাদি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি বলেন, নিহত ও আহতদের নাম ও দেশ সম্পর্কে এত তাড়াতাড়ি কিছু জানা যায়নি। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলেও জানান সাদি। ক্যামেরুনে ওই টুর্নামেন্টের জন্য হাজার হাজার লোক সেখানে গেছে। ৯ই জানুয়ারী শুরু হওয়া ওই টুর্নামেন্ট শেষ হবে আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply