Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » রাজধানীজুড়ে সবজির বাজারে হঠাৎই অস্বস্তি দেখা দিয়েছে।




রাজধানীজুড়ে সবজির বাজারে হঠাৎই অস্বস্তি দেখা দিয়েছে। কয়েকদিন ধরে বেড়েছে সব ধরনের সবজির দাম। বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে। শশা ও শিমের দাম তুঙ্গে। যদিও কেজি প্রতি কমেছে ব্রয়লার মুরগির দাম। আজ শুক্রবার রাজধানীর কাওরানবাজার, মিরপুর, যাত্রাবাড়ী, মুগদা, শাহাজাহানপুর, হাতিরপুলসহ বিভিন্ন বাজারে গিয়ে এ চিত্র দেখা গেছে। বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, রাজধানীর বাজারগুলোতে ব্রয়লার মুরগ

ির কেজি কমেছে। বিক্রি হচ্ছে ১৭০ থেকে ১৭৫ টাকা দরে। ব্রয়লার মুরগির পাশাপাশি সোনালি ও লাল লেয়ার মুরগির দামও কমেছে। সোনালি মুরগি কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ২৪০ থেকে ২৬০ টাকায়, আর লাল লেয়ার মুরগি ২৩০ থেকে ২৪০ টাকায়। সবজির বাজার বাজারে ফুলকপির সঙ্গে বেড়েছে শিমের দাম। বাজারে ৬০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে ফুলকপি। কেজি প্রতি শিম বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৮০ টাকায়। দাম অপরিবর্তিত রয়েছে পাকা টমেটো, গাজর, মুলা, শালগমের। বাজারে টমেটোর দাম কেজি বিক্রি ৫০ টাকা, গাজর ৪০ টাকা, মুলা ৪০ টাকা, শালগম (ওল কপি) ৪০ টাকা, বরবটির কেজি ৭০ টাকা, লালশাকের আঁটি ১৫ টাকা, মুলাশাক ১৫ টাকা, পালংশাক ২০ টাকা। মাছের বাজার মাছবাজারে রুই ও কাতলা মাছের কেজি ৪৫০ টাকা, শিং ও টাকি মাছ ৩৫০ টাকা, শোল মাছের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০০ টাকা, তেলাপিয়া ও পাঙাশ মাছের কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ১৭০ টাকা। এক কেজি ওজনের ইলিশ মাছ বিক্রি হচ্ছে ১২০০ টাকায়। ছোট ইলিশের কেজি ৬০০ টাকা। নলামাছ ২০০ টাকা ও চিংড়ির কেজি ৬৫০ টাকা। কাওরানবাজারে হাবিবুল্লাহ নামে এক ক্রেতা এনটিভি অনলাইনকে বলেন, ‘কয়েকদিন ধরে মুরগির দাম খুব বেশি ছিল। পরে সবজি কিনছিলাম। আজ বাজারে গিয়ে দেখি, সবজির দামও অনেক। এভাবে দাম বাড়লে সবজিও কিনে খেতে পারব না।’ রাকিব নামের আরেক ক্রেতা বলেন, ‘আজ ছুটির দিন বাসায় ভালোমন্দ খাবারের ব্যবস্থা করা হয়। মাংস ও পোলাও করলে সালাদের জন্যে শশা লাগে। সে শশার দিকে তাকানো যাচ্ছে না। বাজারের সবচেয়ে দামি এখন শশা।’ মুগদার সবজি বিক্রেতা টুটন বলেন, ‘বাজারে হঠাৎ শশার চাহিদা দেখা দিয়েছে। এই কারণে দাম অনেক। পাইকারি বাজার থেকে বেশি দিয়ে কিনতে হচ্ছে, তাই বিক্রিও করতে হচ্ছে বেশি দামে।’






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply