Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » » ব্যাটে-বলে চমৎকার দিন পার করল বাংলাদেশ




বাংলাদেশ ও নিউজিল্যান্ডের মধ্যকার ম্যাচ। মাউন্ট মঙ্গানুই টেস্টের দ্বিতীয় দিনের প্রথম সেশন রাঙিয়েছেন বাংলাদেশের বোলারেরা। মেহেদী হাসান মিরাজের স্পিনঘূর্ণিতে প্রথম সেশনেই অলআউট হয়ে যায় নিউজিল্যান্ড। এরপর ব্যাট করতে নেমে পরের দুই সেশনও নিজেদের করে নিয়েছে সফরকারীরা। ব্যাটে-বলের দাপটে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সাদা পোশাকে চমৎকার দিন পার করল মুমিনুল হকের দল। আজ রোববার প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে দুই উইকেটে ১৭৫ রানে দিন শেষ করেছে বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসে ১৫৩ রান পিছিয়ে আছে সফরকারীরা। দিন শেষে আজ ৭০ রানে অপরাজিত ছিলেন মাহমুদুল হাসান জয়। তাঁর সঙ্গে ৮ রানে ব্যাট করছিলেন অধিনায়ক মুমিনুল হক। বে ওভালে দিনের প্রথম সেশনে নিউজিল্যান্ডকে আজ ৩২৮ রানেই অলআউট করে বাংলাদেশ। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ১২২ রান করেছেন ডেভন কনওয়ে। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৭৫ রান করেছেন হেনরি নিকোলস। দ্বিতীয় দিনের শুরুতে নিউজিল্যান্ডকে থামাতে মূল কাজ করেছেন মিরাজ। গতকাল প্রথম দিন বল হাতে নিষ্প্রাণ থাকা মিরাজ আজ একাই নিয়েছেন তিনটি উইকেট। পাঁচ উইকেটে ২৫৩ রান নিয়ে আজ দ্বিতীয় দিন শুরু করে নিউজিল্যান্ড। প্রথম ঘণ্টায় ১৩.৪ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে ৩৯ রান যোগ করে কিউইরা। এর পর পানি পানের বিরতির পর ৩১ রানের মধ্যে হারায় শেষ ৪ উইকেট। মোট ৫ উইকেট হারিয়ে দিনের প্রথম সেশনে তারা স্কোরবোর্ডে ৭০ রান যোগ করে অলআউট হয়। প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের হয়ে বল হাতে প্রথম ইনিংসে তিন উইকেট নিয়েছেন মিরাজ। সমান ৩ উইকেট নিয়েছেন পেসার শরিফুল ইসলামও। অধিনায়ক মুমিনুল হক পেয়েছেন দুটি উইকেট। আর ইবাদত পেয়েছেন একটি উইকেট। কিউইদের থামিয়ে প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নামে বাংলাদেশ। ব্যাটিংয়ের শুরুটা দুই উদ্‌বোধনী ব্যাটসম্যান সাদমান ইসলাম ও মাহমুদুল হাসান জয় ভালোই করেন। কিন্তু, সে ছন্দ থামে দলীয় ৪৩ রানে। ১৯তম ওভারে ওভারে সাদমানকে নিজের শিকার বানান ওয়‍্যাগনার। ৫৫ বলে ২২ রান নিয়ে ফেরেন সাদমান। সাদমান ফিরলেও খুব একটা সমস্যা হয়নি বাংলাদেশের। দ্বিতীয় উইকেটেই হাল ধরেছেন নাজমুল হোসেন শান্ত ও জয়। দুই ব্যাটার মিলে সামলেছেন শুরুর ধাক্কা। দুজনে থিতু হয়ে তুলে নেন হাফসেঞ্চুরি। দিনের ৫১তম ওভারে রাচিন রবীন্দ্রর বলে ছক্কা মেরে অর্ধশতকে পৌঁছান শান্ত। হাফসেঞ্চুরি স্পর্শ করতে তাঁর লেগেছে ৯০ বল। এর কিছুক্ষণ পর রবীন্দ্রর বলেই সিঙ্গেল নিয়ে নিজের টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম অর্ধশতক স্পর্শ করেন জয়। অবশ্য শান্তর চেয়ে কিছুটা সাবধানী ব্যাটিং করেছেন জয়। অর্ধশতক ছুঁতে তাঁর লেগেছে ১৬৫ বল। শান্ত-জয়ের জুটি লম্বা সময় ধরে কিউই পেসারদের মাথা ব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। ৫৮তম ওভারে অবশেষে ওই জুটি ভাঙেন ওয়‍্যাগনার। উইল ইয়ংয়ের হাতে ক্যাচ দিয়ে শান্তকে বিদায় করেন তিনি তিনি। ১০৯ বলে সাত বাউন্ডারি এক ছক্কায় ৬৪ রান করে ফেরেন শান্ত। তাঁর বিদায়ে ভাঙে ১০৪ রানের জুটি। শান্ত ফিরলে অধিনায়ক মুমিনুলের সঙ্গে দিনের বাকি অংশ পার করে দেন জয়। ব্যাটিংয়ে কিছুটা সাবধানী হলেও বেশ দায়িত্বের সঙ্গে ব্যাট করে যান মাত্র নিজের দ্বিতীয় টেস্ট খেলতে নামা জয়। সংক্ষিপ্ত স্কোর : নিউজিল‍্যান্ড ১ম ইনিংস : (আগের দিন ২৫৮/৫) ১০৮.১ ওভারে ৩২৮ (ল্যাথাম ১, ইয়ং ৫২, কনওয়ে ১২২, টেইলর ৩১, টম ব্লান্ডেল ১১, নিকোলস ৭৫, রাচিন ৪, জেমিসন ৬, সাউদি ৬, ওয়‍্যাগনার ০, বোল্ট ৯*; তাসকিন ২৬-৭-৭৭-০, শরিফুল ২৬-৭-৬৯-৩, ইবাদত ১৮-৩-৭৫-১, মিরাজ ৩২-৯-৮৬-৩, শান্ত ২-০-১০-০, মুমিনুল ৪.১-০-৬-২)। বাংলাদেশ ১ম ইনিংস : ৬৭ ওভারে ১৭৫/২ (সাদমান ২২, মাহমুদুল ৭০*, শান্ত ৬৪, মুমিনুল ৮*; সাউদি ১৫-২-৪১-০ , বোল্ট ১৪-৫-৩৭-০, জেমিসন ১৩-৪-৩৫-০ , ওয়‍্যাগনার ১৬-৫-২৭-২, রাচিন ৯-১-২৬-০)।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply