Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » অগ্ন্যুৎপাতের ছাইয়ে ঢেকে গেছে টোঙ্গা, নিহত ২




টানা ৪ দিন পর আগ্নেয়গিরি শান্ত হলেও এখন অগ্নুৎপাতের ছাইয়ে ঢেকে গেছে দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপরাষ্ট্র টোঙ্গা। এই দুর্যোগে এখন পর্যন্ত ২ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। গেল বৃহস্পতিবার থেকে সক্রিয় হওয়া শুরু করে টোঙ্গার আগ্নেয় পর্বত হাঙ্গা টোঙ্গা-হাঙ্গা হাপেই। শনিবার থেকে শুরু হয় লাভা, গ্যাস ও ছাইয়ের উদ্গীরণ। এর প্রভাবেই সৃষ্টি হয় ভূমিকম্প, এবং ভূমিকম্পের কারণে সাগরে সুনামি দেখা দেয়। একদিকে সুনামির কারণে আকস্মিক বন্যা ও জলোচ্ছাসে ভয়াবহ দুর্যোগের মধ্যে পড়ে টোঙ্গার দ্বীপগুলো। সোমবার জাতিসংঘের ওয়েবসাইটে আগ্ন্যুৎপাত ও সুনামি বিধ্বস্ত টোঙ্গার কিছু স্যাটেলাইট ইমেজ প্রকাশিত হয়। সেসব ছবিতে দেখা যায়, টোঙ্গার নমুকা, কোলোমোতুয়া, টোঙ্গাটাপু, ফাফা ও কোলোফৌ দ্বীপ সম্পূর্ণ ঢেকে গেছে অগ্নুৎপাতের ছাইয়ে। গাছ-পালা, শহর, গ্রাম- কোনো কিছুই আর আলাদা করে চেনা যাচ্ছে না ছা্য়ইর স্তরের কারণে। এছাড়া পুরো দ্বীপরাষ্ট্রের বন্যা কবলিত এলাকাগুলোর চিত্রও পাওয়া গেছে স্যাটেলাইট ইমেজে। এদিকে আগ্নেয়গিরি থেকে এখনো ছাই ওড়ায় উদ্ধার অভিযান বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। স্বেচ্ছাসেবীরা টোঙ্গার প্রধান বিমানবন্দেরের রানওয়ে পরিষ্কারে চেষ্টা চালাচ্ছেন, যাতে দুর্যোগ কবলিত এলাকায় বিশুদ্ধ পানি ও খাবার নিয়ে দ্রুত পৌঁছাতে পারে প্লেন। টোঙ্গা সরকার জানিয়েছে, দেশটিতে ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন। তবে স্থানীয় কিছু টেলিফোন সেবা এখনো চালু রয়েছে। যোগাযোগ ব্যবস্থা পুরোপুরি সচল করতে কাজ করছে কর্তৃপক্ষ। সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দ্বীপগুলো থেকে লোকজন সরিয়ে নেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে বলেও জানিয়েছে দেশটির সরকার। একাধিক সূত্রের বরাত দিয়ে সোমবার এক প্রতিবেদনে ব্রিটিশ দৈনিক দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে, গত ৩০ বছরে এত বড় ও ব্যাপক মাত্রার অগ্ন্যুৎপাত দেখেনি টোঙ্গাবাসী। মূল যোগাযোগ ক্যাবল ধ্বংস হয়ে যাওয়ায়, দেশজুড়ে ঘটে যাওয়া এই দুর্যোগের সাম্প্রতিক অবস্থা সম্পর্কে হালনাগাদ তথ্যও তেমনভাবে পাওয়া যাচ্ছে না। টোঙ্গার সরকারি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, যোগাযোগ ব্যবস্থা স্বাভাবিক করতে কয়েক সপ্তাহ লেগে যেতে পারে। এদিকে প্লেন এ যাতায়াত বন্ধ থাকায় নৌপথে টোঙ্গায় ত্রাণ সামগ্রী পাঠাচ্ছে নিউজিল্যান্ড। সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply