Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » ইউক্রেন ছেড়ে পালাচ্ছে ধনীরা




ইউক্রেন সীমান্তে এক লাখের বেশি সেনা জড়ো করে রেখেছে রাশিয়া। যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের ধারণা, যে কোনো সময় ইউক্রেনে হামলা চালাবে রাশিয়া। হামলার ভীতি ইউক্রেনের সাধারণ মানুষের মধ্যেও ছড়িয়ে পড়েছে। এমনই পেক্ষাপটে দেশ ছেড়ে পালাতে শুরু করেছেন ইউক্রেনের ধনীরা। দেশ ছেড়ে পালানোর এই তালিকায় আছেন ধনী ব্যবসায়ী এমনকি রাজনীতিকও! ভাড়া করা বিমানে পরিবার ও আত্মীয়স্বজনদের নিয়ে নিরাপদ আশ্রয়ের উদ্দেশ্যে দেশ ছাড়ছেন এসব ব্যক্তিরা। ইউক্রেনের গণমাধ্যম ‘ইউক্রেনস্কায়া প্রাভদা’র বরাত দিয়ে সোমবার এ খবর জানায় দ্য মস্কো টাইমস এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, হামলার আশঙ্কায় কূটনীতিকসহ সেখানে বসবাসরত নাগরিকদের ইউক্রেন ত্যাগের পরামর্শ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জার্মানি, কানাডা, নেদারল্যান্ডস, নিউজিল্যান্ড, এস্তোনিয়াসহ ১২টির বেশি পশ্চিমা দেশ। ইতোমধ্যে অনেকে ইউক্রেন ছেড়েছেন। অনেকে আবার দেশটি ত্যাগের প্রস্তুত নিচ্ছেন। কিন্তু বিদেশিদের ইউক্রেন ত্যাগের স্রোতে দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাচ্ছেন উল্লেখযোগ্যসংখ্যক ইউক্রেনীয় নাগরিক। প্রতিবেদনে বলা হয়, স্থানীয় সময় গত রোববার অন্তত ২০টি ভাড়াটে বিমান কিয়েভ ছাড়ে। যার সবগুলোই ধনী ব্যবসায়ী ও তাদের পরিবারগুলোর জন্য ‘রিজার্ভ’ ছিল। সংবাদ মাধ্যমটির মতে, গত ছয় বছরে একদিনে এত ধনী দেশ ছাড়েনি। আরও পড়ুন : ইউক্রেন-রাশিয়া নিয়ে আট প্রশ্নের বিশ্লেষণ প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ওইদিন দেশ ছেড়েছেন ইউক্রেনের সবচেয়ে ধনী দুই ব্যক্তি রিনাট আখমেতোভ ও ভিক্টর পিনচুকও ছিলেন। এছাড়া জাহাজ ব্যবসায়ী আন্দ্রেই স্তাভনিতসার ও কৃষিপণ্য ব্যবসায়ী ভাদিম নেস্তারেঙ্কোও একই দিনে ইউক্রেন ছেড়ে যান। এছাড়া একই দিনে ইউক্রেনের রুশপন্থি বিরোধী দল লাইফ পার্টির অন্যতম নেতা ও রাজনীতিক ইগর আব্রামোভিচ পরিবার ও দলের ৫০ সদস্য অস্ট্রিয়া পাড়ি দিয়েছেন। ব্যবসায়ী ও ইউক্রেনের সাবেক উপপ্রধানমন্ত্রী বরিস কোলেসনিকোভও একইদিনে কিয়েভ ছাড়েন। আরও পড়ুন: ‘ইউক্রেনের মাথায় বন্দুক ধরে আছে রাশিয়া’ প্রসঙ্গত, সম্প্রতি ইউক্রেন সীমান্তে এক লাখেরও বেশি সেনা মোতায়েন করেছে রাশিয়া। পশ্চিমা বিশ্বের দাবি, যে কোনো সময় ইউক্রেনে হামলা শুরু করবে দেশটি। এ নিয়ে পশ্চিমা বিশ্বের সঙ্গে রাশিয়ার উত্তেজনাও বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু রাশিয়া বারবারই এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলছে, সামরিক মহড়ার অংশ হিসেবে তারা সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। যদিও উত্তেজনা প্রশমনে রাশিয়া স্থানীয় সময় মঙ্গলবার সীমান্ত থেকে কিছুসংখ্যক সেনা প্রত্যাহার করে নিয়েছে বলে খবর দিয়েছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply