Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » » প্রোটিয়াদের চ্যালেঞ্জিং টার্গেট বাংলাদেশের




সিরিজের প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে বড় লক্ষ্যই বেধে দিল বাংলাদেশ। লিটন, সাকিব ও ইয়াসিরের ফিফটিতে প্রোটিয়াদের বিপক্ষে নির্ধারিত ওভার শেষে টাইগারদের সংগ্রহ ৭ উইকেট হারিয়ে ৩১৪ রান। রাবাদাদের মাটিতে প্রথম ইনিংসে এটি বাংলাদেশের সর্বোচ্চ সংগ্রহ। এর আগে শুক্রবার (১৮ মার্চ) সেঞ্চুরিয়নে টসে জিতে বাংলাদেশকে ব্যাটিংয়ে পাঠান প্রোটিয়া অধিনায়ক টেম্বা বাভুমা। ব্যাট হাতে লিটন-তামিমের দারুণ শুরুর পর, সাকিব-ইয়াসিরের শত রানের জুটিতে বড় সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ। ইয়াসির ও লিটন সমান ৫০ রান করে আউট হন। সাজঘরে ফেরার আগে সাকিব করেন ৭৭ রান। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে এই প্রথমবার বাংলাদেশের তিন ব্যাটসম্যান একই ম্যাচে ৫০ পেরোলো। প্রোটিয়া বোলারদের মধ্যে মার্কো জানসেন ও কেশভ রাজ ২টি করে উইকেট শিকার করেন। এর আগে ব্যাট হাতে নেমেই বাংলাদেশকে দারুণ শুরু এনে দেন দুই টাইগার ওপেনার তামিম ইকবাল ও লিটন কুমার দাস। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে যত রেকর্ড, সবগুলোতেই আছেন তামিম ইকবাল খান। প্রথম ওয়ানডেতে লিটনকে সঙ্গে নিয়ে উদ্বোধনী জুটিতেও আগের ৪৬ রানের রেকর্ড ভেঙে গড়েছেন নতুন নজির। তবে দলীয় শতরান এবং ব্যক্তিগত অর্ধশতকের দোরগোড়ায় গিয়ে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়লেন তামিম। আন্দ্রে পেহেলুকায়োর বলে সাজঘরে ফেরার আগে তামিম ৬৭ বল খেলে ৩ চার ও এক ছয়ে করেছেন ৪১ রান। আরও পড়ুন: সাকিব-ইয়াসিরের জুটিতে রেকর্ড অপরদিকে সময়টা যেন নিজের করেই নিয়েছেন লিটন দাস। দেশের মাটিতে কিংবা বিদেশে সবখানেই দুরন্ত ছন্দে। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে আজ প্রথম ওয়ানডেতেও ফিফটি করেছেন। তবে ব্যক্তিগত অর্ধশতকের পরই কেশব মহারাজের বলে সরাসরি বোল্ড হয়ে ফিরলেন। তবে এদিন হতাশ করেছেন মিস্টার ডিফেন্ডেবল মুশফিকুর ১২ বল মোকাবিলায় তিনি মাত্র ৯ রান করে মাঠ ছেড়েছেন। মুশফিকের বিদায়ের পরে প্রোটিয়াদের বিপক্ষে সাকিব ও ইয়াসিন চতুর্থ উইকেট জুটিতে রেকর্ড ১১৫ রানের পার্টনারশিপ গড়েন। ক্যারিয়ারের প্রথম তিন ম্যাচে মাত্র ১ রান করলেও, চতুর্থ ম্যাচে এসে সে আস্থার প্রতিদান দিলেন ইয়াসির আলী। ৪৩ বলে পূর্ণ করে ফেললেন অর্ধশতক। তবে তাকে ইনিংস বড় করতে দেননি কাগিসো রাবাদা। ৪৪ বলে ৪ চার ও ২ ছক্কার মারে সাজানো ছিল ইয়াসিরের ইনিংসটি। অন্যদিকে সাকিব ফিরেছেন ৭৭ রান করে। ৬৪ বল মোকাবিলায় টাইগার অলরাউন্ডারের ব্যাট থেকে আসে ৭টি চার ও ৩টি ছক্কার মার। শেষদিকে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ১৭ বলে ২৫, আফিফ হোসেনের ১৩ বলে ১৭ এবং মেহেদী মিরাজের ১৩ বলে ১৯ রানের ‍ওপর ভর করে তিনশো ছাড়ায় বাংলাদেশ। আরও পড়ুন: ফিফটির আগে তামিম পরে লিটনের বিদায় এদিকে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ উদ্বোধনী জুটিটি ১৫৪ রানের। ২০১৫ সালে সেটি গড়েছিলেন সৌম্য সরকার ও তামিম ইকবাল। তবে দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে তাদের বিপক্ষে প্রথম উইকেটে সর্বোচ্চ জুটিটি ৪৬ রানের। ২০০৮ সালের সে ওপেনিং জুটিতেও ছিলেন তামিম, তার সঙ্গী ছিলেন ইমরুল কায়েস। এবার লিটনকে সঙ্গে নিয়ে সে রেকর্ড ভাঙলেন তামিম। জুটিতে আসে ৯৫ রান। আরও পড়ুন: মাঠে নেমেই মাশরাফীকে ছাড়ালেন সাকিব এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ভালো শুরু পেয়েছিল বাংলাদেশ। আগেই জানা ছিল, দক্ষিণ আফ্রিকার মতো বিরুদ্ধ কন্ডিশনে তাদের শক্তিশালী পেস অ্যাটাক মোকাবিলা করাই বড় চ্যালেঞ্জ হবে তামিমদের জন্য। হলোও তাই। রাবাদা-লুঙ্গি এনগিডিদের বাড়তি বাউন্স আর গতি বৈচিত্র্যে বলতে গেলে প্রথম থেকেই অস্বস্তিতে ছিলেন বাংলাদেশের দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও লিটন দাস।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply