Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » » 'NATO যুদ্ধ করবে না Russia-র সঙ্গে, জোটে যোগ দিতে চাই না', দাবি Zalensky-র




'NATO যুদ্ধ করবে না Russia-র সঙ্গে, জোটে যোগ দিতে চাই না', দাবি Zalensky-র Zelensky বলেন যে এই "এই ছদ্ম প্রজাতন্ত্রকে রাশিয়া ছাড়া অন্য কেউ স্বীকৃতি দেয়নি। তবে আমরা আলোচনা করতে পারি এবং এই অঞ্চলগুলি কীভাবে বেঁচে থাকবে সে বিষয়ে সমঝোতার পথ খুঁজে বের করতে পারি।"

রাষ্ট্রপতি ভলোদিমির জেলেনস্কি (Volodymyr Zelensky) জানিয়েছেন যে তিনি আর ইউক্রেনের (Ukraine) জন্য ন্যাটো (NATO) সদস্যপদ পাওয়ার জন্য চেষ্টা করবেন না। রাশিয়ার (Russia) ইউক্রেন আক্রমনের অন্যতম কারণ ছিল এই সদস্যপদের দাবি। মস্কোকে (Moscow) শান্ত করার লক্ষ্যে আরেকটি বিষয়ে সম্মতি জানিয়ে, জেলেনস্কি বলেছিলেন যে তিনি দুটি বিচ্ছিন্ন রুশ-পন্থী অঞ্চলের অবস্থার বিষয়ে "আপস করার" জন্য কথা বলতে রাজি। এই দুটি অঞ্চলকে রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন (Vladimir Putin) ২৪ ফেব্রুয়ারি আক্রমণ শুরু করার ঠিক আগে স্বাধীন হিসাবে স্বীকৃতি দিয়েছিলেন। জেলেনস্কি বলেন, "আমি অনেক আগেই এই প্রশ্নটি সম্পর্কে নিশ্চিত হয়েছি যখন আমরা বুঝতে পেরেছি যে... ন্যাটো ইউক্রেনকে মেনে নিতে প্রস্তুত নয়।" তিনি আরও বলেন, "এই জোট কোনও বিতর্কিত বিষয় এবং রাশিয়ার সঙ্গে সংঘর্ষকে ভয় পায়।" NATO সদস্যপদের কথা উল্লেখ করে, জেলেনস্কি একজন দোভাষীর মাধ্যমে বলেন যে তিনি "এমন একটি দেশের রাষ্ট্রপতি হতে চান না যেটি হাঁটু গেড়ে কোনও কিছুর জন্য ভিক্ষা করবে।" রাশিয়া জানিয়েছে যে তারা প্রতিবেশী ইউক্রেন NATO-তে যুক্ত হোক তা চায় না। তাদের বক্তব্য সোভিয়েত ইউনিয়নের থেকে ইউরোপকে রক্ষা করতে স্নায়ুযুদ্ধের শুরুতে তৈরি হয় এই ট্রান্সআটলান্টিক জোট। আরও পড়ুন: Bangladesh Covid 19 Update: প্রবেশে বাধ্যতামূলক নয় করোনা পরীক্ষা, বড় ঘোষণা বাংলাদেশ সরকারের by TaboolaSponsored LinksYou May Like সান ফ্রান্সিসকোতে বিলাসবহুল অ্যাপার্টমেন্টগুলি আপনার ধারণার চেয়ে সস্তা হতে পারে সান ফ্রান্সিসকো অ্যাপার্টমেন্ট | বিজ্ঞাপন অনুসন্ধান দুবাইতে ভিলার দাম আপনাকে অবাক করে দিতে পারে দুবাই এ অ্যাপার্টমেন্ট | স্পন্সর লিঙ্ক সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সাবেক সোভিয়েত ব্লকের দেশগুলিকে এই জোটে গ্রহণ করে তারা আরও পূর্বে নিজেদেরকে প্রসারিত করেছে। এই ঘটনা ক্রেমলিনকে (kremlin) ক্ষুব্ধ করেছে। রাশিয়া NATO-র সম্প্রসারণকে একটি হুমকি হিসাবে দেখে। কারণ এর ফলে তাদের সিমান্তের পাশেই পশ্চিমী দেশগুলির সামরসজ্জা চলে আসবে। ইউক্রেন আক্রমণের আদেশ দিয়ে বিশ্বকে চমকে দেওয়ার কিছুক্ষণ আগে, পুতিন পূর্ব ইউক্রেনে দুটি বিচ্ছিন্নতাবাদী অঞ্চল ডনেৎস্ক এবং লুহানস্ককে রুশপন্থী "প্রজাতন্ত্র" হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছিলেন। এই অঞ্চলদুটি ২০১৪ সাল থেকে কিয়েভের (Kyiv) সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত রয়েছে। পুতিনের দাবি ইউক্রেনকেও এই দুটি অঞ্চলকে সার্বভৌম ও স্বাধীন হিসেবে স্বীকৃতি দিতে হবে। রাশিয়ার দাবি সম্পর্কে জেলেনস্কি বলেছিলেন যে তিনি আলোচনার জন্য তৈরি। তিনি বলেন, "আমি নিরাপত্তা গ্যারান্টির কথা বলছি"। তিনি বলেন যে এই "এই ছদ্ম প্রজাতন্ত্রকে রাশিয়া ছাড়া অন্য কেউ স্বীকৃতি দেয়নি। তবে আমরা আলোচনা করতে পারি এবং এই অঞ্চলগুলি কীভাবে বেঁচে থাকবে সে বিষয়ে সমঝোতার পথ খুঁজে বের করতে পারি।" জেলেনস্কি বলেন, "আমার কাছে যা গুরুত্বপূর্ণ তা হল এই অঞ্চলের মানুষরা কীভাবে বাস করবে যারা ইউক্রেনের অংশ হতে চায়, অথবা ইউক্রেনের যারা বলবে যে তারা তাদেরকে নিয়ে থাকতে চায়।" "সুতরাং প্রশ্নটি শুধুমাত্র তাদেরকে স্বীকার করার থেকেও আরও বেশি কঠিন।" রাষ্ট্রপতি বলেছিলেন। তিনি যোগ করেন যে, "এটি আরেকটি আল্টিমেটাম এবং আমরা আলটিমেটামের জন্য প্রস্তুত নই। প্রেসিডেন্ট পুতিনকে অক্সিজেনহীন তথ্যের বুদ্বুদে থাকার পরিবর্তে আলোচনা শুরু করতে হবে।"






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply