Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » » মারিউপোল দখলের দাবি রাশিয়ার




কিয়েভ: ‘অস্ত্র নামিয়ে আত্মসমর্পণ করো, নয়তো মরো’— মারিউপোল রক্ষায় লড়তে থাকা ইউক্রেনীয় সেনার উদ্দেশে এমনই হাড় হিম করা হুঁশিয়ারি দিয়েছিল রুশ সেনা। মস্কোর তরফে রবিবার ভোর তিনটের সময়সীমাও বেঁধে দেওয়া হয়। যদিও, প্রতিরোধের শেষ প্রাচীর হিসেবে মারিউপোলে মোতায়েন ইউক্রেনীয় সেনারা সেই প্রস্তাবে রাজি হয়নি। উল্টে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি দাবি করেছেন, ‘গোটা মারিউপোল শহর ও সেখানকার অধিবাসীদেরও নিশ্চিহ্ন করে দিতে চাইছে রাশিয়া।’ মারিউপোল যে কোনওভাবেই মাথা নত করবে না, তা এদিন স্পষ্ট করে দিয়েছেন ইউক্রেনের উপ প্রতিরক্ষামন্ত্রী হানা মালয়ার। রবিবার তিনি জানান, মারিউপোলে হামলার বহর ক্রমশ বাড়াচ্ছে রাশিয়া। তা সত্ত্বেও আজভ সাগরের গুরুত্বপূর্ণ বন্দর এখনও তারা ছিনিয়ে নিতে পারেনি। এবার জল ও স্থলপথেও হামলার পরিকল্পনা করছে। যদিও, ইউক্রেনীয় সেনা যেকোনও হামলার জবাব দিতে প্রস্তুত বলেই দাবি করেন হানা। বস্তুত, মারিউপোলের অধিকাংশ জায়গা থেকেই নিশ্চিহ্ন হয়ে গিয়েছে ইউক্রেনীয় সেনা। রাশিয়ার দাবি, আজভ সাগরের এই বন্দর শহরটি তারা দখল করেই ফেলেছে। কয়েকজন ইউক্রেনীয় সেনা একটি স্টিল কারখানায় লুকিয়ে থেকে লড়াই চালাচ্ছে। সূত্রের খবর, কয়েকজন ইউক্রেনীয় সেনা আপাতত আশ্রয় নিয়েছেন আজভস্তাল স্টিল মিলে। সেখানকার বিরাট বিরাট গুদামঘর, কয়লার ফার্নেস, ব্রয়লার এবং সুড়ঙ্গগুলি ব্যবহার করেই রুশ সেনার চোখে ধুলো দিচ্ছে তারা। কিন্তু, ওই সেনাদের সঙ্গে থাকা গোলা-গুলি শেষ হলে কী হবে? তা নিয়ে চিন্তিত প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি এদিনও পশ্চিমের দেশগুলির কাছে বিভিন্ন সমরাস্ত্র সরবরাহের আর্জি জানিয়েছেন। তাঁর কথায়, ‘মারিউপোলের প্রতিরোধকে টিকিয়ে রাখতে পশ্চিমী সহযোগীদের অবিলম্বে অস্ত্র ও যুদ্ধবিমান দিতে হবে আমাদের। না হলে সমঝোতার রাস্তাতেই হাঁটতে হবে।’ বসে নেই রাশিয়াও। ইউক্রেনকে চাপে রাখতে লাগাতার হামলা চালিয়ে যাচ্ছে তারা। রবিবারই রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের মুখপাত্র ইগর কোনাশেনকভ জানান, কিয়েভের উপকণ্ঠে ব্রোভারি গ্রামের কাছে একটি গোলা-গুলি তৈরির কারখানা ক্ষেপণাস্ত্র হানায় গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply