Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস খেলে জয়ের ইতিহাস




ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস খেলে জয়ের ইতিহাস নিউজিল্যান্ডের মাউন্ট মঙ্গানুইয়ের পর এবার ডারবানে চলছে জয় ঝলক। কিউইদের মাটিতে ৭৮ রানে থামলেও ডারবানে এখনো অপরাজিত আছেন এই ব্যাটার। কিংসমিডে অপরাজিত ৮০ রানের ইনিংস খেলেই নতুন এক ইতিহাস গড়লেন টাইগার ওপেনার মাহমুদুল হাসান জয়।

ক্যারিয়ার সেরা এই ইনিংস খেলার পথে দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে টাইগারদের হয়ে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রানেরও মালিক বনে গেলেন এই ওপেনার। স্বাগতিকদের প্রথম ইনিংসে করা ৩৬৭ রানের জবাবে ব্যাটিং করতে নেমে হতাশাই উপহার দিতে থাকেন বাংলাদেশের ব্যাটাররা। সেখানে ওপেনে নেমে একপ্রান্ত আগলে রেখে ব্যতিক্রম ছিলেন মাহমুদুল জয়। প্রোটিয়া বোলারদের, বিশেষ করে সিমন হার্মারের বিধ্বংসী স্পিনে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ১০১ রানের মধ্যেই ৫ উইকেট হারিয়ে ফেলে বাংলাদেশ। যার মধ্যে দুই অঙ্ক ছুঁতে পারেননি শান্ত ছাড়া অন্য কেউই। শান্ত করতে পারেন ৩৮ রান। এছাড়া সাদমান ৯, মোমিনুল ০, মুশফিক ৭ ও তাসকিন করতে পারেন মাত্র ১ রান। তবে অপরপ্রান্তে প্রোটিয়াদের কোনো সুযোগ না দিয়ে সাবধানী ক্রিকেট খেলতে থাকেন তরুণ জয়। ম্যাচের দ্বিতীয় দিনে ১৪১ বল খেলে ৪৪ রানে অপরাজিত থাকা এই ওপেনার তৃতীয় দিন সকালের সেশনেই ফিফটি স্পর্শ করেন জয়। যা তার ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ফিফটি। ১৭০তম বলে পাঁচটি চারের সাহায্যে পঞ্চাশের মার্কে পৌঁছান জয়। শেষ পর্যন্ত লাঞ্চে যান অপরাজিত ৮০ রান করে, ২৩০ বল খেলে ৮টি চার ও একটি ছয়ের মারে। ধৈর্য্যশীল ও পরিণত এই ইনিংস খেলার পথে দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে ইতিহাস গড়েন এই ব্যাটার। ইতোমধ্যে টাইগারদের মধ্যে প্রোটিয়াভূমে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত রানের ইনিংস খেলে ফেলেছেন জয়। এর আগে দক্ষিণ আফ্রিকায় মোমিনুল হকের ৭৭ রানই ছিল বাংলাদেশের পক্ষে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ইনিংস। টাইগার ওপেনারদের মধ্যেও দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে জয়ের ইনিংসটিই সর্বোচ্চ। এর আগে ২০০২ সালে ওপেনিংয়ে আল শাহরিয়ার রোকন ৭১ রানের ইনিংস খেলেন। একইসঙ্গে বাংলাদেশি ব্যাটারদের মধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকায় টেস্টে এক ইনিংসে সর্বোচ্চ বল খেলার কীর্তিও গড়েছেন জয়। এর আগে দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংলাদেশের পক্ষে এক ইনিংসে সর্বোচ্চ ১৫০ বল খেলেছিলেন মোমিনুল হক। যাইহোক, প্রথম ফিফটির মতো তরুণ জয় তার প্রথম শতকটাও দেশের বাইরেই হাঁকান কিনা, সেটাই এখন দেখার অপেক্ষা। এদিকে, লাঞ্চের পর মাঠে ফিরেই আউট হয়ে গেলেন লিটন দাস। লিজাড উইলিয়ামসের বল বোল্ড হওয়ার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ৪১ রান। লিটনের ৯২ বলের এই ইনিংসে ছিল ছয়টি চারের মার। সেইসঙ্গে ষষ্ঠ উইকেটে জয়ের সঙ্গে গড়েন মূল্যবান ৮২ রানের জুটি। যাতে ১৮৩ রানে পৌঁছে বাংলাদেশের স্কোর।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply