Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » এক সপ্তাহ ধরে পানিবন্দি সিলেটের ১২ লাখ মানুষ




সিলেটের বন্যায় বেড়েছে পানি। ছবিটি শুক্রবার কোম্পানীগঞ্জের রাধানগর মুজিবনগর আশ্রয়কেন্দ্র থেকে তোলা। সিলেটে পাহাড়ি ঢল ও টানা বর্ষণে এক সপ্তাহ ধরে পানিবন্দি আছেন সিলেট জেলার ১৩টি উপজেলা ও নগরীর প্রায় ১২ লাখ মানুষ। দীর্ঘ বন্যায় অসহায় হয়ে পড়েছেন ক্ষতিগ্রস্তরা। ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এমন বন্যা আগে দেখেননি বলে দাবি তাঁদের। এদিকে, অনেকের কাছেই এখন পর্যন্ত কোনো সাহায্য পৌঁছেনি বলে রয়েছে অভিযোগ। যদিও জেলা প্রশাসন বলছে, ক্ষতিগ্রস্তদের সর্বোচ্চ সহযোগিতা করা হচ্ছে। আজ শুক্রবার সকালেও সিলেট নগরীতে বৃষ্টিপাত হয়েছে। এর আগে বৃহস্পতিবার রাতেও ভারী বৃষ্টিপাতে বেড়েছে জলাবদ্ধতা। দুপুর থেকে সুরমার পানি অনেকটা কমে এলেও বেড়েছে কুশিয়ারা নদীর পানি। এছাড়া জকিগঞ্জের অমলসীদে ভারতের বরাক নদী ও সিলেটের সুরমা ও কুশিয়ারা নদীর উৎসস্থলে নদী প্রতিরক্ষা বাধ ভেঙে নতুন করে পানি প্রবেশ করছে। এতে কানাইঘাট ও জকিগঞ্জ উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়ে উঠেছে। এভাবে পানি বাড়লে সুরমা ও কুশিয়ারা নদী তীরবর্তী দুটি উপজেলা ছাড়াও অন্যান্য এলাকা তলিয়ে যাবে বলে আশঙ্কার কথা জানিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। গত ১৪ মে শনিবার থেকে সিলেটের সীমান্তবর্তী ৫টি উপজেলার নিম্নাঞ্চল প্রথম দিকে প্লাবিত হয়। পরদিন থেমে থেমে বাড়তে থাকে পানি। এর পরদিন এক রাতেই তলিয়ে যায় সিলেট নগরীসহ সবকটি উপজেলা। তারপর কয়েকদিন কিছুটা অপরিবর্তিত থাকলেও আজ থেকে সুরমার পানি কমতে শুরু করেছে। অন্যদিকে, অমলসীদে বাধ ভেঙে যাওয়ায় কুশিয়ারা নদীর পানি বাড়ছে। এ কারণে জকিগঞ্জ ও কানাইঘাট ছাড়াও ফেঞ্চুগঞ্জসহ কয়েকটি উপজেলায় নতুন করে গ্রাম প্লাবিত হচ্ছে। এদিকে নগরীতে গত তিনদিন ধরে পানিবন্দি আছেন ৭টি ওয়ার্ডের মানুষ। বাসাবাড়িতে ঢুকে পড়েছে পানি। অনেকে মাচা তৈরি করে বসবাস করছেন। এসব এলাকায় বিশুদ্ধ পানি, সাপ্লাইয়ের পানিসহ, স্যানিটেশন ব্যবস্থা একেবারে ভেঙে পড়েছে। সংকট দেখা দিয়েছে খাবার ও বাসস্থানের। সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে খোলা হয়েছে আশ্রয়কেন্দ্র। গঠন করা হয় একাধিক মেডিকেল টিম। গতকাল বৃহস্পতিবার যুক্তরাজ্য সফর থেকে ফিরে সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সকল প্রকাশ ছুটি বাতিল করেছেন। নির্দেশ দেন বন্যা কবলিত মানুষদের উদ্ধার ও খাবারসহ সর্বোচ্চ সহযোগিতা দেওয়ার। এসময় তিনি সুরমার নাব্য নিয়ে সরকারের গাফিলতির কথা তুলে ধরেন এবং দ্রুত নদী খননের উদ্যোগের অনুরোধ জানান। তবে, সরকারি উদ্যোগসহ রাজনৈতিক দলের উদ্যোগে বিভিন্ন জায়গায় ত্রাণসামগ্রী বিতরণের খবর পাওয়া গেছে। জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল কাইয়ুম চৌধুরী গতকাল বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলন করে প্রতিটি উপজেলায় দলের উদ্যোগে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণের কথা জানান। এ ছাড়া মহানগর বিএনপির সহসভাপতি আসাদ উদ্দিন আহমদ জানান, প্রতিদিন তাঁরা বন্যা কবলিত এলাকায় সহযোগিতা করে আসছেন। আগামীকালও বন্যার্তদের মধ্যে রান্না করা খাবার বিতরণের জন্য আজ রাতে একটি কমিউনিটি সেন্টারে রান্না করা হচ্ছে। আসাদ বলেন, ‘রাজনীতির মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে মানুষের সেবা করা। এই সময়ে মানুষের সেবা ও সহযোগিতায় পাশে না থাকলে রাজনীতি করার প্রয়োজন নেই।’ ব্যবসায়ী মো. শাহজাহান বলেন, ‘পানি ঠেকাতে দিনরাত কষ্ট করছি। কিন্তু, এরপরও ঠেকাতে পারছি না। বেচা-কেনার কথা বাদ দিলাম। এখন দোকানে থাকা মালগুলো রক্ষা করাই বড় দায় হয়ে দাঁড়িয়েছে। ক্ষয়ক্ষতি হলে পথে বসা ছাড়া উপায় নেই।’ সিলেটে ঢলের পানিতে তলিয়ে গেছে বোরো ধান। বোরোর পর এবার আউশেও আঘাত হেনেছে বন্যা। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসের হিসেবে, চলমান বন্যায় বৃহস্পতিবার পর্যন্ত আউশ ধানের বীজতলা এক হাজার ৩০১ হেক্টর, বোরো ধান এক হাজার ৭০৪ হেক্টর এবং গ্রীষ্মকালীন সবজির এক হাজার ৪ হেক্টর পানিতে তলিয়ে গেছে। বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী এ কে এম নিলয় পাশা এনটিভি অনলাইনকে জানান, সুরমার পানি হ্রাস পেয়েছে। তবে অমলসীদে বাধ ভেঙে যাওয়ায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। আবহাওয়া অফিসের কর্মকর্তা সাঈদ চৌধুরী জানিয়েছেন, আগামী রোববার পর্যন্ত ভারতের শিলং ও চেরাপুঞ্জি এবং সিলেটে বৃষ্টিপাত হতে পারে। যার কারণে আবারো পানি বৃদ্ধি পাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply