Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » ক্যালিফোর্নিয়া ও টেক্সাসে গুলিতে নিহত ৩




যুক্তরাষ্ট্রে আবারও বন্দুক হামলায় টেক্সাস ও ক্যালিফোর্নিয়ায় তিনজন মারা গেছেন। এদিকে শনিবার (১৪ মে) নিউইয়র্কের বাফেলো সুপার মার্কেটে বন্দুক হামলার ঘটনায় আহত তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। বাফেলোর হামলাকে বর্ণবাদী অপরাধ হিসেবে চিহ্নিত করেছে পুলিশ। এদিন আঠারো বছর বয়সী শ্বেতাঙ্গ কিশোর কৃষ্ণাঙ্গদের ওপর নির্বিচারে গুলি চালায়। নিউইয়র্কের বাফেলো সুপার মার্কেটে বন্দুক হামলার একদিন পর আবারও যুক্তরাষ্ট্রে গুলির ঘটনা ঘটলো। রোববার টেক্সাসের হিউস্টনের হ্যারিস কাউন্টিতে একটি খোলা বাজারে নির্বিচারে গুলি চালায় কতিপয় সন্ত্রাসী। স্থানীয় শেরিফ অফিস জানিয়েছে, গুলিবিদ্ধ পাঁচজনের মধ্যে দুজন মারা গেছেন। অপর তিনজনের অবস্থাও আশঙ্কাজনক। হিউস্টন পুলিশ বন্দুক হামলাকারী তিনজনকে চিহ্নিত করেছে। এদের মধ্যে একজনকে আহত অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করা হয়েছে দুটি পিস্তল। রোববার ক্যালিফোর্নিয়ার অরেঞ্জ কাউন্টিতে এশিয়ান গির্জায় দুর্বৃত্তদের গুলিতে প্রাণ হারিয়েছেন একজন, আহত হয়েছেন আরও পাঁচ ব্যক্তি। দুপুর দেড়টার দিকে জেনেভা প্রেসবিটেরিয়ান চার্চে এ হামলা হয়। আরও পড়ুন: যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুক হামলায় সাড়ে ৫ মাসেই নিহত দুই শতাধিক এদিকে, নিউইয়র্কের বাফেলো সুপার মার্কেটে হামলার ঘটনাকে বর্ণবাদী অপরাধ হিসেবে চিহ্নিত করেছে পুলিশ। ১৮ বছর বয়সী শ্বেতাঙ্গ কিশোর অত্যাধুনিক রাইফেল দিয়ে কৃষ্ণাঙ্গদের ওপর হামলা চালায়। বাংলাদেশি অধ্যুষিত বাফেলোতে রোববারও সর্বত্রই ছিল আতঙ্ক। স্থানীয় সময় শনিবার বিকেলে নায়েগ্রা ফলসের শহর হিসেবে খ্যাত নিউইয়র্কের বাফেলো সিটিতে বন্দুক হামলার ঘটনায় ১০ কৃষ্ণাঙ্গ নিহত হন। আহত অপর তিনজনের অবস্থাও আশঙ্কাজনক। আমেরিকায় একের পর এক বন্দুক হামলা ঘটছে। শনিবার বাফেলোর পর রোববার টেক্সাস ও ক্যালিফোর্নিয়ায় গুলির ঘটনা। কাল আবার কোথায়, এই বন্দুক হামলার শেষই-বা হবে কোথায়--এই প্রশ্ন এখন সবার মনে। আরও পড়ুন: ন্যাটোয় তুরস্কের অবস্থান স্পষ্ট করতে কাজ করছে যুক্তরাষ্ট্র: হোয়াইট হাউস যুক্তরাষ্ট্রে বেড়েই চলেছে বন্দুক হামলার ঘটনা। দেশটির বিভিন্ন ওয়েবসাইটের তথ্য মতে, চলতি বছর সাড়ে ৫ মাসেই প্রাণ গেছে দুই শতাধিক মানুষের। আহত অন্তত এক হাজার। একের পর এক বন্দুক হামলায় উদ্বেগে সাধারণ মানুষ। এ অবস্থায় ব্যক্তিগত অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইন সংস্কারের দাবি জানিয়েছে আইনপ্রণেতাসহ বিশেষজ্ঞরা। যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুক সহিংসতা দীর্ঘদিনের সামাজিক সমস্যা। এর সমাধানে নানাভাবে চেষ্টা করছে দেশটির সরকার। কিন্তু কোনোভাবেই লাগাম টানা যাচ্ছে না। দেশটির বিভিন্ন স্থানে প্রায় প্রতিদিনই কোথাও না কোথাও বন্দুক হামলায় প্রাণ হারাচ্ছেন সাধারণ মানুষ।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply