Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » এপ্রিলে চার শতাধিক দুর্ঘটনায় নিহত ৫৪৩




দেশজুড়ে গত এপ্রিল মাসে চার শতাধিক সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে। এতে নিহত হয়েছেন প্রায় সাড়ে পাঁচশ মানুষ। যাঁদের প্রায় অর্ধেকই নিহত হয়েছেন মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায়। এক পরিসংখ্যান বলছে, গত মাসে সড়কে মোট দুর্ঘটনার প্রায় ৪৪ দশমিক ২৬ শতাংশ দুর্ঘটনা ঘটেছে মোটরসাইকেলে। আজ শনিবার বাংলাদেশ রোড সেফটি ফাউন্ডেশন এ তথ্য জানিয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী পরিচালক সাইদুর রহমান জানান, দেশের সাতটি জাতীয় দৈনিক, পাঁচটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল এবং ইলেক্ট্রনিক গণমাধ্যমের তথ্যের ভিত্তিতে প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত এপ্রিল মাসে ৪২৭টি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে। এতে নিহত হয়েছেন ৫৪৩ জন এবং আহত হয়েছেন ৬১২ জন। এতে ১৮৯টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত ২০৬ জন, যা মোট নিহতের ৩৭ দশমিক ৯৩ শতাংশ। সাইদুর রহমান জানান, দুর্ঘটনায় ১১৬ জন পথচারী নিহত হয়েছেন, যা মোট নিহতের ২১ দশমিক ৩৬ শতাংশ। এদের মধ্যে নারী ৬৭ জন ও শিশু ৮১ জন। সড়ক দুর্ঘটনা ছাড়াও এ সময়ে ছয়টি নৌ-দুর্ঘটনায় আট জন নিহত ও ছয় জন নিখোঁজ হয়েছেন। ২১টি রেলপথ দুর্ঘটনায় ২৩ জন নিহত এবং পাঁচ জন আহত হয়েছেন। দুর্ঘটনার কারণ হিসেবে সাইদুর রহমান জানান, ট্রাকসহ পণ্যবাহী দ্রুতগতির যানবাহন ও মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে। মানসিক ও শারীরিকভাবে অসুস্থ ড্রাইভারদের বেপরোয়া গতিতে পণ্যবাহী যানবাহন চালানো এবং অপ্রাপ্তবয়স্ক ও যুবকদের বেপরোয়া মোটরসাইকেল চালানোর কারণে দুর্ঘটনা বাড়ছে। ‘পথচারী নিহতের ঘটনাও ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে’ উল্লেখ করে সাইদুর বলেন, ‘পথচারীরা যেমন সড়কে নিয়ম মেনে চলেন না, তেমনি যানবাহনগুলোও বেপরোয়া গতিতে চলে। ফলে পথচারী নিহতের ঘটনা বাড়ছে।’ যানবাহনভিত্তিক নিহতের চিত্র দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল চালক ও আরোহী ২০৬ জন (৩৭ দশমিক ৯৩ শতাংশ), বাসের যাত্রী ১৩ জন (দুই দশমিক ৩৯ শতাংশ), ট্রাক-পিকআপ-ট্রাক্টর-ট্রলি আরোহী ৬৩ জন (১১ দশমিক ৬০ শতাংশ), মাইক্রোবাস-প্রাইভেটকার-অ্যাম্বুলেন্স-পুলিশ জিপ যাত্রী ১৪ জন (দুই দশমিক ৫৭ শতাংশ), থ্রি-হুইলার যাত্রী (ইজিবাইক-সিএনজি-অটোরিকশা-অটোভ্যান-মিশুক) ১০০ জন (১৮ দশমিক ৪১ শতাংশ), স্থানীয়ভাবে তৈরি যানবাহনের যাত্রী (নসিমন-ভটভটি-আলমসাধু-টমটম) ১৯ জন (তিন দশমিক ৪৯ শতাংশ) এবং বাইসাইকেল-প্যাডেল রিকশা-রিকশাভ্যান আরোহী ১২ জন (দুই দশমিক ২০) নিহত হয়েছেন। দুর্ঘটনায় সম্পৃক্ত যানবাহন দুর্ঘটনায় সম্পৃক্ত যানবাহনের মধ্যে ট্রাক-কাভার্ডভ্যান-পিকআপ ৩০ দশমিক ১১ শতাংশ, ট্রাক্টর-ট্রলি-লরি-ড্রামট্রাক-তেলবাহী ট্যাঙ্কার-গ্যাস সিলিন্ডারবাহী ট্যাঙ্কার ছয় দশমিক ২০ শতাংশ, মাইক্রোবাস-প্রাইভেটকার-অ্যাম্বুলেন্স-পুলিশ জিপ চার দশমিক ৭৫ শতাংশ, যাত্রীবাহী বাস ১০ দশমিক ৪৩ শতাংশ, মোটরসাইকেল ২৬ শতাংশ, থ্রি-হুইলার (ইজিবাইক-সিএনজি-অটোরিকশা-অটোভ্যান-শিশুক) ১৫ দশমিক ৩২ শতাংশ,স্থানীয়ভাবে তৈরি যানবাহন (নসিমন-ভটভটি-আলমসাধু-মাহিন্দ্র-টমটম-লাটাহাম্বা-ডাম্পার) পাঁচ দশমিক ৬৮ শতাংশ এবং বাইসাইকেল-প্যাডেল রিকশা-রিকশাভ্যান এক দশমিক ৪৫ শতাংশ।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply