Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » টাঙ্গাইলে যমুনা নদীর তীব্র ভাঙনে দিশেহারা মানুষ




টাঙ্গাইলে যমুনা নদীর তীব্র ভাঙনে দিশেহারা মানুষ

টাঙ্গাইলে যমুনা নদীর তীব্র স্রোতের সঙ্গে দেখা দিয়েছে ভাঙন। এ কারণে নতুন করে ঘরহীন হয়ে পড়েছেন নদী পাড়ের বাসিন্দারা। রোববার (১৯ জুন) বিকেলে সরেজমিনে গিয়ে এই দৃশ্য দেখা যায়। তবে একই সঙ্গে নিম্নাঞ্চলে পানি প্রবেশ করায় তলিয়ে গেছে কয়েক হাজার একর কৃষি ফসলের জমি। জানা গেছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ভূঞাপুরে যমুনা নদীর পানি ১০ সেন্টিমিটার বেড়ে বিপদসীমার ২১ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তবে বঙ্গবন্ধু সেতু পাড়ে এ নদীর পানি ৩৬ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এ ছাড়া যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় উপজেলার গোবিন্দাসী ইউনিয়নের কষ্টাপাড়া ও চিতুলিয়াপাড়া এলাকায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। তবে পানি বৃদ্ধি হওয়ায় গাবসারা ও অর্জূনা ইউনিয়ন চরাঞ্চলের কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। তবে ভাঙনরোধে স্বেচ্ছাশ্রমে নদীতে বালুভর্তি প্লাস্টিকের বস্তা ফেলছেন স্থানীয়রা। এদিকে কালিহাতী উপজেলার গোবিন্দপুর, গোহালিয়া বাড়ি ইউনিয়ন এবং টাঙ্গাইল সদর উপজেলার কিছু নিম্নাঞ্চল পানিতে তলিয়ে গেছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন এসব এলাকার প্রায় ১০ হাজার মানুষ। জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম জানান, যমুনা ও ঝিনাই নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়াও অন্য সব নদীর পানিও বাড়ছে। এতে করে জেলায় বড় ধরনের বন্যার আশঙ্কা রয়েছে। টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সিরাজুল ইসলাম আরটিভি নিউজকে জানিয়েছেন, যমুনা ও ঝিনাই নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এ ছাড়াও অন্য সব নদীর পানিও বাড়ছে। এতে করে জেলায় বড়সড় একটি বন্যার আশঙ্কা করা হচ্ছে। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আহ্সানুল বাশার জানান, বন্যায় নদী তীরবর্তী নিম্নাঞ্চলের ৫ হাজার হেক্টর ফসলি জমি নিমজ্জিত হয়েছে। পাট, আউস ধান, তিল, শাকসবজিসহ বিভিন্ন ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে। বন্যার পানি সপ্তাহখানেকের মধ্যে নেমে গেলে ফসলের খুব একটা ক্ষতি হবেনা। তবে তার থেকে সময়সীমা বেশি হলে ফসল নষ্ট হয়ে যাবে। টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক ড. মো. আতাউল গণি আরটিভি নিউজকে বলেন, বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply