Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা : একে অপরের বিপক্ষে সর্বোচ্চ গোলের ইতিহাস




ফুটবল মানেই ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা দ্বৈরথ। দুই দলের মুখোমুখি খেলা হোক বা না হোক কথার লড়াইয়ে মেতে থাকবে সমর্থকরা। লাতিন আমেরিকার এই দুই প্রতিবেশীর প্রতিদ্বন্দ্বিতার প্রভাব কেবল আমাদের দেশেই নয়, পুরো পৃথিবীতেই পড়ে। দুই দলের খেলার সময় দুই ভাগে বিভক্ত হয় সারা বিশ্ব। দেশ দু’টির সমর্থনে বিভক্ত হয় পরিবারের সদস্যরা, বিভক্ত হয় প্রিয়জনরাও। ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার অফিসিয়াল (ফিফা অনুমোদিত) ফুটবলের লড়াইটা ২০ সেপ্টেম্বর ১৯১৪ সাল থেকে শুরু হলেও রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব ছিল তারও প্রায় ৯০ বছর আগে। ইতিহাস থেকে জানা যায়, ১৮২৫ সালে সিসপ্ল্যাটাইন ভূখন্ড নিয়ে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে মেতেছিল ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা। প্রায় তিন বছর তাণ্ডবের পর ব্রিটিশ এবং ফরাসিদের মধ্যস্থতায় রণাঙ্গন ছেড়েছিল তারা। দেশ দু’টির যুদ্ধ থামলেও কমেনি উত্তেজনা। যার স্পষ্ট প্রভাব পড়ে ফুটবল মাঠেও। বর্তমান সময়ে লাতিন আমেরিকার দেশ দু’টির ফুটবলারদের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক দেখা গেলেও মাঠের লড়াইয়ে কেউ কাউকে ছাড় দিয়ে কথা বলে না। যার প্রমাণ দুই দলের মুখোমুখি লড়াইয়ে। বিশ্ব ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফার হিসাব অনুযায়ী এখন পর্যন্ত দল দু’টি ১০৯ বার মুখোমুখি হয়েছে। যেখানে আর্জেন্টিনার ৪০ জয়ের বিপরীতে ৪৩টি ম্যাচ জিতেছে ব্রাজিল। এছাড়া ড্র হয়েছে ২৬টি ম্যাচ। এই ম্যাচগুলোতে আর্জেন্টিনা মোট গোল করেছে ১৬৩ আর ব্রাজিল ১৬৫। বিভিন্ন ওয়েবসাইট ও সংস্থার তথ্য অনুযায়ী মোট ১১৪ বার ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা মুখোমুখি হয়েছে। এই হিসাবেও ব্রাজিলই এগিয়ে। তাদের ৪৬ জয়ের বিপরীতে আর্জেন্টিনার জয় ৪২। ড্রয়ের সংখ্যা ২৬। মুখোমুখি লড়াইয়ে গোলের ব্যবধানে ব্রাজিল এগিয়ে থাকলেও প্রথম ম্যাচটি যেমন আর্জেন্টিনা জিতেছিল তেমনই আবার সেলেসাওদের বিপক্ষে সর্বোচ্চ গোলের প্রথম জয়ও আলবিসেলেস্তের। চলুন জেনে নেই দুই দলের সর্বোচ্চ গোল হজমের ম্যাচের ইতিহাস ১৯৪০ সালের ৫ মার্চ রোকা কাপে (ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার মধ্যে আয়োজিত একটি বিশেষ সিরিজ। এটাকে কোপা জুলিও রোকা কাপও বলা হতো) মুখোমুখি হয় ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা। সেবার শিরোপার লড়াইটি ছিল তিন ম্যাচের। যেখানে প্রথম ও শেষ ম্যাচটি জেতে আলবিসেলেস্তেরা। এই সিরিজের প্রথম ম্যাচটি ব্রাজিলকে ৬-১ গোলে হারায় আর্জেন্টিনা। যা আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ব্রাজিলের সর্বোচ্চ গোল হজমের ম্যাচ। আর্জেন্টিনার ঐতিহাসিক এল ভিজো গ্যাসোমেট্রোতে (বর্তমানে স্টুডিও গ্যাসোমেট্রো নামে পরিচিত) অনুষ্ঠিত হয়েছিল ম্যাচটি। সাত গোলের এই ম্যাচে হ্যাট্রটিক করেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড কার্লোস ডেসিডেরিও পিউসেল। বাকি তিল গোলের মধ্যে দু’টি করেন হারমিনিও মাসান্তোনিও। ঐতিহাসিক ম্যাচটির অপর গোলটি ছিল এমিলিও বাল্ডোনেডোর। ব্রাজিলের পক্ষে একমাত্র গোলটি করেন জাইর। খেলা শুরুর মাত্র তিন মিনিটের মাথায় গোলের দেখা পায় আর্জেন্টিনা। প্রথম গোলটি করেন মাসান্তোনিও। এরপর ৩৭, ৫৭ ও ৭৯ মিনিটের মাথায় পর পর তিনটি গোল করেন পিউসেল। এক মিনিটের ব্যবধানে ৮০ মিনিটের মাথায় নিজের দ্বিতীয় ও দলের চতুর্থ গোলটি করেন মাসান্তোনিও। খেলা শেষ হওয়ার ঠিক চার তথা ৬৮ মিনিটে শেষ গোলটি করেন বাল্ডোনেডো। পাঁচ বছর পর আবারও রোকা কাপের আয়োজন করে দেশ দু’টি। এবার আর্জেন্টিনাকে আথিতেয়তা দেয় ব্রাজিল। জিতে নেয় রোকা কাপের শিরোপা। সেই সঙ্গে প্রতিশোধ নেয় পাঁচ বছর আগের ৬ গোলে পরাজয়েরও। রোকা কাপের ওই আসরে প্রথম ম্যাচে হারে ব্রাজিল। তবে দ্বিতীয় ম্যাচে দুর্দান্তভাবে ঘুরে দাঁড়ায় স্বাগতিকরা। ১৯৪৫ সালের ২০ ডিসেম্বর ঐতিহাসিক ওই ম্যাচে এবার আর্জেন্টিনাকে ৬ গোলে হারায় ব্রাজিল। বিপরীতে অবশ্য আর্জেন্টিনা গোল করে দু’টি। সিরিজের তৃতীয় ম্যাচটিও জিতেছিল ব্রাজিল। ৮ গোলের ওই ম্যাচে ব্রাজিলের হয়ে দুই গোল করেন অ্যাডমির। এছাড়া চিকো, জিজিনহো, লিওনিডাস ও হেলেনো ডি ফ্রেইতাস একটি করে গোল করেন। আর্জেন্টিনার হয়ে পেনাল্টি থেকে একটি গোল করেন অ্যাডলফো আলফ্রেডো পেডেরনেরা। আলবিসেলেস্তের দ্বিতীয় গোল আসে রিনালদো ফিওরামন্টি মার্টিনোর পা থেকে। রোকো কাপে এরপর আর কখনো আর্জেন্টিনার কাছে শিরোপা খোয়ায়নি ব্রাজিল। টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ শিরোপা (৭) ব্রাজিলের দখলে। তিনটি জিতেছে আর্জেন্টিনা। একটি শিরোপা দুই দল যৌথভাবে জেতে। অবশ্য ১৯৭৬ সালের পর রোকো কাপের আর আয়োজন হয়নি।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply