Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » » দ্বিতীয় দিনে বাংলাদেশকে লড়াইয়ে রাখলেন মিরাজরা




দ্বিতীয় দিনে বাংলাদেশকে লড়াইয়ে রাখলেন মিরাজরা

অ্যান্টিগা টেস্টের প্রথম দিনটা চরম দুর্দশায় কেটেছে বাংলাদেশের। সেই দুর্দশা কাটিয়ে শুক্রবার টেস্টের দ্বিতীয় দিন কিছুটা হলেও স্বস্তি দিলেন বাংলাদেশের বোলাররা। মেহেদী হাসান মিরাজ-ইবাদত হোসেনদের বোলিংয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে বেশিদূর যেতে দেয়নি বাংলাদেশ। ফলে বাংলাদেশের ওপর বেশির রানের লিড চাপাতে পারেনি ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েটের দল। তবে দ্বিতীয় দিন শেষেও বাংলাদেশের চিন্তার কারণ হয়ে থাকল ব্যাটিং। কারণ দিনের তৃতীয় সেশনের শেষ দিকে দ্বিতীয় ইনিংসে নেমেও দুই উইকেটে হারিয়ে ফেলেছে বাংলাদেশ। ভালো খেলার আভাস দিয়ে ফিরেছেন তামিম ইকবাল(২২)। দায়িত্ব নিতে পারেননি বল হাতে চমক দেখানো মেহেদী মিরাজও(২)। এরপর মাহমুদুল হাসান জয় ও নাজমুল হোসেন শান্তর ব্যাটে চড়ে কোনোমতে দিনের বাকি অংশ পার করে সাকিব আল হাসানের দল। অ্যান্টিগায় দিনের তৃতীয় সেশনে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ২ উইকেটে ৫০ রান নিয়ে দিন শেষ করেছে বাংলাদেশ। দিন শেষে উইকেটে ছিলেন মাহমুদুল হাসান জয় (১৮) । তাঁর সঙ্গে ছিলেন নাজমুল হোসেন শান্ত (৮)। আজ দিনের তৃতীয় সেশনে প্রথম ইনিংসে ২৬৫ রানে থামে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। প্রথম ইনিংসে ১৬২ রানের লিড পায় স্বাগতিকরা। এই লিড থেকে এখনো ১১২ রানে পিছিয়ে থেকে আগামীকাল শনিবার টেস্টের তৃতীয় দিন শুরু করবে বাংলাদেশ। দিনের প্রথম সেশনটা যেভাবে শুরু করেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ তাতে বড় ইনিংসের আভাসই মিলছিল। তবে পরের দেড় সেশনে ক্যারিবীয়দের সেই লক্ষ্য পূরণ হতে দিলেন না বাংলাদেশি বোলাররা। মিরাজ-ইবাদতদের বোলিংয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে নিজেদের নাগালের মধ্যেই থামায় বাংলাদেশ। বল হাতে বাংলাদেশের হয়ে সবচেয়ে ভালো করেছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ৫৯ রান দিয়ে চার উইকেট নিয়েছেন এই অফ স্পিনার। দুই করে নিয়েছেন খালেদ আহমেদ ও ইবাদত হোসেন। একটি করে নিয়েছেন সাকিব আল হাসান ও মুস্তাফিজুর রহমান। ইনিংসের শুরু থেকেই বাংলাদেশকে ভোগাচ্ছিলেন ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েট। উইকেটে মাটি কামড়ে পড়ে থেকে টেস্টের প্রথম দিন দাপট দেখিছেন। আজ শুক্রবার দিনের প্রথম সেশনে বাংলাদেশের মাথা ব্যথার কারণ ছিলেন তিনি। হাঁটছিলেন সেঞ্চুরির পথে। কিন্তু শতকের দেখা পেলেন না। ক্যারিবীয় অধিনায়ককে সেঞ্চুরি করতে দিলেন না খালেদ আহমেদ। আজ দিনের দ্বিতীয় সেশনে সেঞ্চুরির খুব কাছেই ছিলেন ব্র্যাথওয়েট। কিন্তু ঠিক ৯৪ রানের মাথায় তাঁকে সাজঘরে পাঠিয়ে আক্ষেপে ফেলে দেন খালেদ। ২৬৮ বলে তাঁর ইনিংসটি সাজানো ছিল ৯ বাউন্ডারিতে। অধিনায়ক ফেরার পর বেশিক্ষণ টিকল না ক্যারিবীয়রা। একে একে চার উইকেট তুলে নেন মেহেদী হাসান মিরাজ। প্রথম কাইল মায়ার্সকে এলবির ফাঁদে ফেলে নিজের প্রথম শিকার তুলে নেন মিরাজ। এরপর বিদায় করেন জশুয়া ডি সিলভা, আলজারি জোসেফ ও সিলসকে। তাতে বেশিদূর যেতে পারল না ওয়েস্ট ইন্ডিজে। মিরাজ ও ইবাদতদের বোলিংয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে তিনশ’র নিচে থামিয়েছে বাংলাদেশ। লিড নেওয়া থেকে মাত্র ৮ রান দূরে থেকে অ্যান্টিগা টেস্টের দ্বিতীয় দিন শুরু করেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দিনের শুরুতেই স্কোরবোর্ডে এই ৮ রান যোগ করে বাংলাদেশের ইনিংস টপকে যায় ক্যারিবীয়রা। শেষ পর্যন্ত ১৬২ রানের লিড নিয়ে ইনিংস শেষ করতে পেরেছে ক্যারিবীয়রা। এর আগে বৃহস্পতিবার টেস্টের প্রথম দিন প্রথম ইনিংসে ব্যাট করে মাত্র ১০৩ রানে অলআউট হয়েছে বাংলাদেশ। এরপর ব্যাটিংয়ে নেমে প্রথম ইনিংসে ২উইকেটে স্কোর বোর্ডে ৯৫ রান নিয়ে টেস্টের প্রথম দিন শেষ করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। আজ দ্বিতীয় দিন বাংলাদেশের প্রথম লক্ষ্য ছিল যত দ্রুত সম্ভব ওয়েস্ট ইন্ডিজকে থামানো। সেই লক্ষ্যে কিছুটা হলেও সফল বাংলাদেশ। স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডস স্টেডিয়ামে গতকাল ম্যাচটিতে শুরু থেকেই পরীক্ষার মুখে পড়তে হয় বাংলাদেশকে। টস জিতে বাংলাদেশকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে অ্যান্টিগার আর্দ্রতায় বাংলাদেশের ব্যাটারদের জন্য টিকে থাকাই যেন চ্যালেঞ্জিং হয়ে যায়। এই উইকেটে মাটি কামড়ে পড়ে থাকাই ছিল সঠিক উপায়। যেটা করে দেখিয়েছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ। কিন্তু বাংলাদেশ সেটা করতে পারেনি। ইনিংসের শুরু থেকেই মেরে খেলতে গিয়ে উইকেট বিলিয়ে দিয়েছেন সবাই। স্কোরবোর্ডে ১৬ রান তুলতেই সাজঘরে ফিরে যান তিন টপঅর্ডার—মাহমুদুল হাসান জয়, মুমিনুল হক ও নাজমুল শান্ত। তিন জনের একজনও রানের খাতা খুলতে পারেননি। এরপরও উইকেটে থেকে কিছুটা লড়াইয়ের আভাস দেন তামিম ইকবাল। কিন্তু তাঁর লড়াইও স্থায়ী হলো না। দলীয় ৪১ রানে তাঁকেও হারায় বাংলাদেশ। ৪ বাউন্ডারিতে ৪৩ বলে ২৯ রান করে বিদায় নেন এই বাঁহাতি। এরপর বাংলাদেশের ইনিংস মেরামত আর হয়নি। এক সাকিব আল হাসান ছাড়া সবারই ছিল উইকেটে আসা-যাওয়ার তাড়া। বাংলাদেশের স্কোরবোর্ড অন্তত সেটাই বলে। সাকিব ছাড়া বাকি ১০ ব্যাটারের রান যথাক্রমে—২৯, ০, ০, ০, ১২, ০, ২, ৩, ০, ৬। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৫১ রান করেছেন সাকিব। ৬৭ বলে তাঁর ইনিংসে ছিল ছয়টি বাউন্ডারি। সংক্ষিপ্ত স্কোর : বাংলাদেশ ১ম ইনিংস: ৩২.৫ ওভারে ১০৩/১০ (তামিম ২৯, জয় ০, শান্ত ০, মুমিনুল ০, লিটন ১২, সাকিব ৫১, সোহান ০, মিরাজ ২, মুস্তাফিজ ০,ইবাদত ৩, খালেদ ০; রোচ ৮-২-২১-২, সিলস ১০-২-৩৩-৩, জোসেফ ৮.৫-২-৩৩-৩, মেয়ার্স ৫-২-১০-২, মোটি ১-০-১-০)। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১ম ইনিংস: (আগের দিন ৯৫/২) ১১২.৫ ওভারে ২৬৫ (ব্র‍্যাথওয়েট ৯৫, বনার ৩৩, ব্ল‍্যাকউড ৬৩, মেয়ার্স ৭, ডা সিলভা ১, জোসেফ ০, রোচ ০, মোটি ২৩*, সিলস ১; মুস্তাফিজ ১৮-৭-৩০-১, খালেদ ২২-৪-৫৯-২, ইবাদত ২৮-৮-৬৫-২, সাকিব ২১-৫-৪৮-১, মিরাজ ২২.৫-৬-৫৯-৪, শান্ত ১-১-০-০) বাংলাদেশ ২য় ইনিংস : ২০ ওভারে ৫০/২ (তামিম ২২, মেহেদী ২, জয় ১৮, শান্ত ৮, কেমার রোচ ৮-৪-১৯-০, জোসেফ ২-০-১৪-২, মায়ার্স ২-১-১-০)।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply