Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » রাশিয়াকে নিয়ে ম্যাক্রোঁর মন্তব্যে চটেছে ইউক্রেন




রাশিয়াকে নিয়ে ম্যাক্রোঁর মন্তব্যে চটেছে ইউক্রেন

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। ছবি : রয়টার্স ইউক্রেন যুদ্ধ শুরু করে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ‘ঐতিহাসিক’ ভুল করেছেন। কিন্তু, এজন্য রাশিয়াকে অপমান করা উচিত হবে না বলে মনে করেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। তাঁর এ মন্তব্য মোটেও পছন্দ হয়নি ইউক্রেনের।
ম্যাক্রোঁর মন্তব্যের তীব্র নিন্দা জানিয়ে টুইটারে ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিমিত্র কুলেবা লেখেন, ‘রাশিয়ার অপমান এড়ানোর আহ্বান শুধু ফ্রান্স এবং অন্য যে দেশগুলো এটির জন্য আহ্বান করবে, তাদের অপমান করতে পারে। কারণ, রাশিয়া নিজেই নিজেকে অপমান করেছে। কীভাবে রাশিয়াকে তার নিজের জায়গা দেখিয়ে দেয়া যায়, আমাদের বরং সেদিকে মনযোগ দেওয়া ভালো। এটা শান্তি ফিরিয়ে আনবে এবং জীবন রক্ষা করবে।’ গত ফেব্রুয়ারিতে ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসন শুরুর আগেই পুতিনকে থামাতে চেষ্টা করেছিলেন ম্যাক্রোঁ। এমনকি মস্কো সফরে গিয়ে পুতিনের সঙ্গে মুখোমুখি বৈঠকও করেছেন। যুদ্ধ শুরুর পর যুদ্ধবিরতিতে রাজি করাতে পুতিনের সঙ্গে কয়েক দফা টেলিফোনে আলাপ করেন তিনি। যদিও তাতে এখন পর্যন্ত আশানুরূপ কোনো ফল আসেনি। তবে, ম্যাক্রোঁ যুদ্ধ থামানোর চেষ্টায় কমতি রাখেননি। তিনি পুতিনের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে কূটনৈতিক উপায়ে শান্তি ফেরানোর চেষ্টা করে যাচ্ছেন। পূর্ব ইউরোপ ও কয়েকটি বাল্টিক দেশ অবশ্য ম্যাক্রোঁর এ অবস্থানের সমালোচনা করে যাচ্ছে। তাদের অভিযোগ, ম্যাক্রোঁর এ অবস্থানের কারণে আলোচনার টেবিলে পুতিনের ওপর যথেষ্ট চাপ সৃষ্টি বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। আঞ্চলিক একটি পত্রিকায় দেওয়া সাক্ষাৎকারে ম্যাক্রোঁ রাশিয়াকে নিয়ে বলেন, ‘আমাদের অবশ্যই রাশিয়াকে অপমান করা উচিত নয়। যাতে যেদিন যুদ্ধ থামবে সেদিন আমরা কূটনৈতিক উপায়ে একটি প্রস্থানের পথ তৈরি করতে পারি। আমি নিশ্চিত যে, ফ্রান্স শক্তিশালী মধ্যস্থতাকারী ভূমিকা নিতে পারবে।’ শনিবার ম্যাক্রোঁর সাক্ষাৎকারটি প্রকাশ পায়। সেখানে তিনি আরও বলেন, ‘আমি মনে করি এবং আমি তাঁকে (পুতিন) এটা বলেছি যে, তিনি তাঁর জনগণের জন্য, নিজের জন্য এবং ইতিহাসের জন্য একটি ঐতিহাসিক ও গুরত্বপূর্ণ ভুল করছেন।’






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply