Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » চিলির অভিযোগ প্রত্যাখ্যান, বিশ্বকাপে ইকুয়েডর




চিলির অভিযোগ প্রত্যাখ্যান, বিশ্বকাপে ইকুয়েডর ইকুয়েডরের এক খেলোয়াড়ের বৈধতা নিয়ে ফিফার কাছে অভিযোগ জানিয়েছিল চিলি। যে কারণে বাছাইপর্বের বাঁধা পার করেও কাতারে খেলা অনেকটাই অনিশ্চিত হয়ে পড়েছিল ইকুয়েডরের। কিন্তু চিলির সেই অভিযোগকে প্রত্যাখ্যান করে দিয়েছে বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রণ সংস্থা। যে কারণে নভেম্বরে কাতার বিশ্বকাপে খেলতে আর কোনো সমস্যাই থাকলো না দক্ষিণ আমেরিকার দলটির। শুক্রবার ফিফা জানিয়েছে, ইকুয়েডর ডিফেন্ডার বায়রন কাস্তিলোর বিপক্ষে আনীত অভিযোগের কোনো ভিত্তি নেই। এই ডিফেন্ডার সম্পূর্ণ বৈধভাবেই বাছাইপর্বের আটটি ম্যাচ খেলেছেন। এ কারণে ডিসিপ্লিনারি কমিটি এ ব্যাপারে সকল প্রক্রিয়া বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর আগে চিলিস ফুটবল ফেডারেশন দাবি জানিয়েছিল, তারা যে সমস্ত তথ্যাদি ফিফার কাছে দিয়েছে, তাতে নিশ্চিত প্রমাণিত হয় যে, কাস্তিলো আসলে কলম্বিয়ার নাগরিক। চিলির অভিযোগ, জন্ম সনদ জালিয়াতি করে বাছাইপর্ব খেলেছেন এই ডিফেন্ডার। মেক্সিকান সংবাদমাধ্যম ‘টিভি অ্যাজটেকা’-তে প্রকাশিত এক সংবাদ সম্মেলনে চিলির পক্ষে থাকা আইনজীবি কারলেজ্জো দাবি করেন, কাস্তিলোর জন্ম কলম্বিয়ার তুমাকোয়। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘তার মা-বাবার বিয়ে হয়েছে তুমাকোয়। কাস্তিলোর জন্মও তুমাকোয়। ১৯৯৮ সালে তার জন্ম হয়, কিন্তু নথিভুক্ত করা হয় ২০১২ সালে। আমরা এখানে এসেছি, কারণ নিজেদের যুক্তি ও প্রমাণ ন্যায্য এবং পরিষ্কারভাবে তুলে ধরতে চাই।’ কাস্তিলো ভূয়া সনদ দেখিয়ে খেলেছেন- এটি প্রমাণিত হলে বাছাইপর্বে ইকুয়েডরের হয়ে তার অংশগ্রহণ করা আট ম্যাচেরই পয়েন্ট কাটার কথা ছিল ফিফার। আর যেসব ম্যাচে কাস্তিলো খেলেছেন, ওই ম্যাচগুলোর পূর্ণ পয়েন্ট পাবে প্রতিপক্ষ দলগুলো। এতে ইকুয়েডরের হয়ে এই ডিফেন্ডার সবগুলো ম্যাচ খেলায় তাদের পয়েন্ট শূন্য হয়ে যাবে। পক্ষান্তরে টেবিলের চারে উঠে আসবে চিলি। আর পাঁচে চলে যাবে পেরু। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্লে-অফে খেলে তাদের মূল পর্ব নিশ্চিত করতে হবে। চিলির যে এখনো বিষয়টি নিয়ে লড়ে যাওয়ার সুযোগ আছে, সেটাও বিবৃতিতে জানিয়ে দিয়েছে ফিফা। কর্তৃপক্ষ বলেছে, ‘শৃঙ্খলা কমিটির নেয়া এই সিদ্ধান্ত সংশ্লিষ্ট সবাইকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে। ফিফার শৃঙ্খলা নীতি অনুযায়ী, আগামী ১০ দিনের মধ্যে সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার জন্য আপিল করতে পারবে সংশ্লিষ্টরা। সেক্ষেত্রে সেটা ফিফার আইনি বিভাগে প্রকাশিত হবে। ফিফা আপিল কমিটির কাছে আপিল করা সাপেক্ষে বর্তমান সিদ্ধান্ত বলবৎ থাকবে।’






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply