Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » আশ্চর্য হলেও সত্য; গোলাপি মহিষ দেখা গেছে কুরবানির পশুরহাটে




আশ্চর্য হলেও সত্য; গোলাপি মহিষ দেখা গেছে কুরবানির পশুরহাটে

আশ্চর্য হলেও সত্য; গোলাপি মহিষ দেখা গেছে কুরবানির পশুরহাটে গোলাপি মহিষ সচরাচর মহিষ হয় কালো রঙের। কিন্তু, গোলাপি মহিষ দেখেছেন কখনো? আশ্চর্য হলেও সত্য; এমন গোলাপি রঙের মহিষের দেখাই মিলছে কুরবানির পশুরহাটে। এমন দুটি মহিষ আনা হয়েছে চট্টগ্রামের কর্ণফুলি মইজ্জারটেক হাটে। গত কয়েকদিন ধরে ওই মহিষ দেখতে উৎসুক জনতার ভিড় করছেন হাটটির ফেমাস অ্যাগ্রো ফার্মের সামনে। গোলাপি রঙের মহিষের আসল নাম এলবিনো। প্রাণিসম্পদ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কোটিতে একটিও এমন মহিষের দেখা পাওয়া ভার। পৃথিবীজুড়েই এখন বিলুপ্ত প্রায় এই মহিষ। এমন কিছু মহিষ এখনও আছে পাশের দেশ ভারতে। ফেমাস অ্যাগ্রোর ব্যবসায়িক পার্টনার কাজি সিরাজুল ইসলাম চ্যানেল24কে জানান, কিছুদিন আগে সিলেট থেকে মহিষ দুটি সংগ্রহ করা হয়। যা আনা হয়েছে ভারত থেকে। মহিষ দুটির দাম হাঁকা হচ্ছে ১৫ লাখ টাকা। তবে এখন পর্যন্ত দুটি মহিষের দাম ৮/৯ লাখ টাকার বেশি উঠেনি। প্রতিদিনই ক্রেতা আসলেও দশলাখের বেশি উঠছে না দাম। ফলে বুধবার (২৯ জুন) সন্ধ্যা পর্যন্ত বিক্রি হয়নি। সিরাজুল ইসলাম জানান, ১৫ লাখ না হলেও কাছাকাছি দাম পেলে তিনি মহিষ দুটি বিক্রি করে দেবেন। কেননা, এসব মহিষের খাবারের পেছনে তার প্রতিদিন বিপুল অর্থ খরচ হচ্ছে। শুধু গোলাপি রঙেরই নয়, এই হাটে আনা হয়েছে আরও একটি বড় সাইজের মহিষ। যার নাম দেয়া হয়েছে পদ্মা সেতু। মহিষটির মালিক বুধবার (২৯ জুন) সন্ধ্যায় জানান, কালো রঙের মহিষটি দেখতে বেশ লম্বা বলে লোকজন এটির নাম দিয়েছে পদ্মা সেতু। এই মহিষের দাম হাঁকা হচ্ছে সাড়ে ৯ লাখ টাকা। কাছাকাছি দাম পেলে বিক্রি করে দেয়ার কথা জানান মালিক। আরও পড়ুন: স্বামীর মরদেহ বাড়িতে ঢোকার আগ মুহূর্তে স্ত্রীর মৃত্যু, ছেলে হাসপাতালে হাটের ব্যবস্থাপক জানে আলম জানান, মহিষ তিনটি দেখতে প্রতিদিন ভিড় হচ্ছে। এতে অন্যান্য ফার্মে পশু বেচাকেনায় সমস্যা হচ্ছে। তবে, সমস্যা হলেও মানুষের আগ্রহের কারণে তারা কোনো বাধা সৃষ্টি করছেন না। হাটটিতে বড় থেকে মাঝারি সাইজের কয়েকশো গরু-মহিষ আনা হয়েছে। দু-একদিন পর থেকে বেচাকেনা জমবে বলে আশা করছেন জানে আলম।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply