Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি, উত্তরাঞ্চলে অবনতির আভাস




সিলেটে বন্যাকবলিতদের দুর্দশা। ছবি : সংগৃহীত দেশের কিছু নদীর পানি স্থিতিশীল, আবার কিছু নদীর পানি কমতে শুরু করলেও নতুন করে কয়েকটির পানি বাড়ছে। আগামী ২৪ ঘণ্টায় দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সিলেট, সুনামগঞ্জ, নেত্রকোনা, হবিগঞ্জ ও মৌলভীবাজার জেলার বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হতে পারে। অন্যদিকে কিশোরগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, সিরাজগঞ্জ ও টাঙ্গাইল জেলার বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা অবনতি হতে পারে। আজ বুধবার দেশের ১১টি নদীর ২১ পয়েন্টের পানি বিপৎসীমার উপরে উঠেছে। যা গতকাল ছিল ৮ নদীর ১৯ পয়েন্টের পানি। সে হিসেবে সিলেটে পানি কমলেও বাড়ছে অন্য এলাকার পানি। বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের পূর্বাভাস অনুযায়ী, ব্রহ্মপুত্র নদের পানি স্থিতিশীল আছে, অপরদিকে যমুনা ও গঙ্গা-পদ্মা নদীর পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে কুশিয়ারা ও তিতাস ব্যতীত সকল প্রধান নদ-নদীগুলোর পানি কমতে শুরু করেছে। আবহাওয়া সংস্থাগুলোর গাণিতিক মডেলভিত্তিক পূর্বাভাস অনুযায়ী, আগামী ৪৮ ঘণ্টায় দেশের অভ্যন্তরে এবং উজানের বিভিন্ন অংশে ভারী থেকে অতিভারী বর্ষণের সম্ভাবনা কম। আগামী ২৪ ঘণ্টায় ব্রহ্মপুত্র-যমুনা ও দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের প্রধান নদ-নদীগুলোর (তিতাস ব্যতীত) পানি কমতে পারে, অপরদিকে গঙ্গা-পদ্মা নদীর পানি বৃদ্ধি পেতে পারে। আগামী ২৪ ঘণ্টায় তিস্তা নদীর পানি কমতে পারে, অপরদিকে ধরলা ও দুধকুমার নদীর পানি স্থিতিশীল থাকতে পারে। এদিকে, আগামী ২৪ ঘণ্টায় দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সিলেট, সুনামগঞ্জ, নেত্রকোণা, হবিগঞ্জ ও মৌলভীবাজার জেলার বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হতে পারে, অপরদিকে কিশোরগঞ্জ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা অবনতি হতে পারে। আগামী ২৪ ঘণ্টায় কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, বগুড়া ও জামালপুর জেলার বন্যা পরিস্থিতি স্থিতিশীল থাকতে পারে। অপরদিকে সিরাজগঞ্জ ও টাঙ্গাইল জেলার বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা অবনতি হতে পারে। আগামী ২৪ ঘণ্টায় শরীয়তপুর ও মাদারীপুর জেলার নিম্নাঞ্চলে স্বল্পমেয়াদী বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে। কেন্দ্র জানায়, ব্রহ্মপুত্র, যমুনা, ধরলা, ঘাঘট, আত্রাই, সুরমা, কুশিয়ারা, পুরাতন সুরমা, বাউলাই, তিতাস এবং সোমেশ্বরী নদীর ২১ পয়েন্টের পানি বিপৎসীমার উপর দিয়ে বইছে। এরমধ্যে নতুন করে বিপৎসীমার উপরে উঠেছে আত্রাই এবং তিতাস নদীর পানি। এসবের মধ্যে ব্রহ্মপুত্র নদের ৪ পয়েন্টের পানি, যমুনা নদীর ৫ পয়েন্টের, সুরমার তিন, কুশিয়ারার দুই পয়েন্টের পানি বিপৎসীমার উপরে অবস্থা করছে। এছাড়া সবচেয়ে বেশি খারাপ অবস্থা আছে কুশিয়ারা নদীর অমলশীদ পয়েন্টের পানি, সেখানে পানি বিপৎসীমার ১৮৪ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে বইছে। এছাড়া সুরমা নদীর কানাইঘাট পয়েন্টের পানি ১০০ এবং ব্রহ্মপুত্র নদের হাতিয়া পয়েন্টের পানি বিপৎসীমার ১০৩ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে। বৃষ্টিপাতের বিষয়ে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ বৃষ্টি হয়েছে টেকনাফে ১২৩ মিলিমিটার। এছাড়া কুষ্টিয়ায় ১১৪, কক্সবাজারে ১০১, সিলেটের শেরপুরে ৭৫, বরগুনা পয়েন্টে ৫৫, সুনামগঞ্জের দক্ষিণবাগে ৫০ এবং সিলেটের শেওলায় ৩৬ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে। এদিকে ভারতের চেরাপুঞ্জিতে ২৪ এবং শিলংয়ে মাত্র ১১ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। যা গত কয়েকদিনের তুলনায় খুবই কম।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply