Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » ওষুধশিল্পে চ্যালেঞ্জ: কাঁচামাল ও এপিআই উৎপাদন বৃদ্ধির পরামর্শ




ওষুধশিল্পে চ্যালেঞ্জ: কাঁচামাল ও এপিআই উৎপাদন বৃদ্ধির পরামর্শ

ওষুধে প্রায় স্বয়ংসম্পূর্ণ হলেও কাঁচামাল এখনও আমদানি-নির্ভর। গেল অর্থবছরে ওষুধ শিল্পের কাঁচামাল আমদানিতে ব্যয় হয়েছে ১০৫ কোটি মার্কিন ডলার। এমন পরিস্থিতিতে স্থানীয় পর্যায়ে কাঁচামাল ও এপিআই উৎপাদন বাড়ানোর পরামর্শ দিলেন বিশেষজ্ঞরা। একইসাথে রপ্তানি বৃদ্ধি ও এলডিসি পরিবর্তী চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় এখন থেকেই প্রস্তুতি নেয়া জরুরি বলছেন তারা। শনিবার এলডিসি উত্তোরণ পরবর্তী ওষুধ খাতের রপ্তানি ও কৌশল নির্ধারণ শীর্ষক সেমিনারে ঢাকা চেম্বারের এ আয়োজনে মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সিপিডির ফেলো অধ্যাপক ড. মোস্তাফিজুর রহমান। তিনি জানান, গেল অর্থবছরে ওষুধ খাত প্রায় ১৫০ কোটি মার্কিন ডলারের কাঁচামাল আমদানি করেছে। এ সময়ে খাতটির রপ্তানি ছিল ১৮ কোটি ৮৮ লাখ ডলার। একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ ওষুধ খাতের জন্য এপিআই উৎপাদনে সক্ষমতা বাড়ানো জরুরি। দেশের ওষুধখাতে অর্জন আশাব্যঞ্জক। সম্ভাবনাও অনেক। আগামী ৪-৫ বছরের এ খাতের রপ্তানি আয় ৫ বিলিয়ন ডলার হতে পারে বলে জানালেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান। এলডিসি উত্তরণের পর রপ্তানি ক্ষেত্রে বাংলাদেশকে অতিরিক্ত ৮ থেকে ১৫ শতাংশ পর্যন্ত শুল্কের চ্যালেঞ্জে নিতে হবে। বিনামূল্যে মিলবে না পেটেন্ট সুবিধাও। তবে ওষুধ খাতের উন্নয়ন ও সুরক্ষায় সরকারের সহযোগিতা থাকবে বলে জানান প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস। জ্বালানি সঙ্কটের কারণে উদ্ভুত পরিস্থিতি মোকাবেলায় বেসরকারি খাতসহ সবাইকে সচেতন ও সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply