Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » আর্থিক মন্দায় ‘ভোগান্তি’তে রেকর্ড সংখ্যক মার্কিনি




আর্থিক মন্দায় ‘ভোগান্তি’তে রেকর্ড সংখ্যক মার্কিনি

রেকর্ড সংখ্যক মার্কিনি আর্থিক কষ্টে ভুগছেন। দেশটিতে চলমান আর্থিক মন্দার কারণে আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে বেশি নাগরিক জীবনযাত্রায় ‘ভোগান্তি’ পোহাচ্ছেন। এক জনমত জরিপে এ তথ্য উঠে এসেছে। যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতি ক্রমেই মন্দার পথে এগোচ্ছে বলে পূর্বাভাস দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। দেশটির অর্থনীতি দ্বিতীয় প্রান্তিকেও অপ্রত্যাশিতভাবে সংকুচিত হয়ে পড়েছে। এ ছাড়া ধীরগতিতে হলেও গত দুই বছর ধরে বাড়ছে ভোক্তা ব্যয় তথা মুদ্রাস্ফীতিও। ফলে সরকার স্বীকার না করলেও অর্থনীতি ইতোমধ্যে মন্দার কবলে পড়েছে বলে মনে করছেন মার্কিন নাগরিকরা। আর্থিক মন্দার এমন পূর্বাভাসের মধ্যেই সোমবার (২২ আগস্ট) গুরুত্বপূর্ণ একটি জনমত জরিপ প্রকাশ করে গবেষণা প্রতিষ্ঠান গ্যালাপ। জরিপের ফলাফলে উদ্বেগজনক সব তথ্য উঠে এসেছে। জরিপ মতে, অংশ নেয়া ৫.৬ শতাংশ উত্তরদাতা বলেছেন, তারা আর্থিক কষ্টে রয়েছেন এবং আর্থিক ব্যয় সংকুলানে ভোগান্তি (সাফারিং) পোহাচ্ছেন। গ্যালাপের তথ্য মতে, চলতি বছরের শুরু থেকেই আর্থিক মন্দার শিকার মার্কিনির সংখ্যা ক্রমাগতভাবে বেড়ে চলেছে এবং এটা ২০০৮ সালের আর্থিক মন্দা ও ২০২০ সালের করোনাভাইরাস মহামারির সময়কালের চেয়ে ভয়াবহ। জরিপের ক্ষেত্রে সাধারণ নাগরিকদের জীবনযাত্রার মানের ওপর গুরুত্ব দিয়েছে গ্যালাপ। মার্কিন নাগরিকরা তাদের জীবনযাত্রাকে কীভাবে দেখে তার ওপর ভিত্তিতে গ্যালাপের ‘কুয়ালিটি অব লাইফ ইনডেক্স’-এ উত্তরদাতাদেরকে তিনটি ক্যাটাগরিতে ফেলা হয়েছে। আরও পড়ুন: যুক্তরাষ্ট্রে আবারও বন্দুক হামলা, নিহত ২ ক্যাটাগরি তিনটি হচ্ছে ‘থ্রাইভিং’, ‘স্ট্রাগলিং’ ও ‘সাফারিং’। থ্রাইভিং বলতে সচ্ছল বুঝায়। স্ট্রাগলিং বলতে জীবনযাত্রার ব্যয় মেটাতে ‘হিমশিম’ অবস্থা বুঝাচ্ছে। আর সাফারিং দিয়ে বুঝায় সবচেয়ে বাজে অবস্থা তথা ‘অনেক কষ্ট করে চলতে হচ্ছে’। জরিপে উত্তরদাতাদের তাদের জীবনযাত্রার মান পরিমাপের জন্য একটা নির্দিষ্ট স্কোর বা নম্বর রাখা হয়। স্কোর হলো ১০। ১০ এর মধ্যে যারা নিজেদের ৪ কিংবা এরও কম নম্বর দেন তাদের ‘সাফারিং’ ক্যাটাগরির বলে ধরা হয়। আর যারা নিজেদের ৭ বা তার বেশি নম্বর দেন তাদের ফেলা হয় ‘থ্রাইভিং’ ক্যাটাগরিতে। জরিপ মতে, যুক্তরাষ্ট্রের অর্ধেকের বেশি নাগরিকই এখন ‘থ্রাইভিং’ তথা ‘সচ্ছল’। তবে তাদের সংখ্যাও ক্রমেই কমে আসছে। গ্যালাপ বলছে, গত বছরের নভেম্বরে তাদের এক জরিপে অংশ নেয়া ৫৯ শতাংশ মার্কিনিই নিজেদের ‘থ্রাইভিং’ ক্যাটাগরিতে রেখেছিলেন। কিন্তু চলতি বছরের জুলাইতে সবশেষ জরিপে সেই সংখ্যা কমে দাঁড়িয়েছে মাত্র ৫১ শতাংশে। তবে থ্রাইভিং ক্যাটাগরির নাগরিকের সংখ্যা করোনা মহামারির প্রথম দিনকার সময়ের চেয়ে বেড়েছে। যুক্তরাষ্ট্রে করোনা ছড়িয়ে পড়ার পর ২০২০ সালের শুরুর দিকে একের পর এক লকডাউনের কারণে লাখ লাখ মার্কিনি চাকরি হারায়। ফলে ওই সময় ‘থ্রাইভিং’ তথা সচ্ছল ক্যাটাগরির নাগরিকদের সংখ্যা ৪৬ শতাংশে নেমে এসেছিল। এরও প্রায় ১২ বছর আগে ২০০৮-০৯ সালের বৈশ্বিক মন্দার সময় এ সংখ্যা ছিল ৪৬.৪ শতাংশ। আরও পড়ুন: পুলিশি নির্যাতন: জর্জ ফ্লয়েডের স্মৃতি ফিরল আরকানসাসে, বরখাস্ত ৩ গ্যালাপের সবশেষ জরিপ মতে, ‘সাফারিং‘ তথা ভোগান্তি পোহাচ্ছেন এমন নাগরিকের সংখ্যা বর্তমানে ৫.৬ শতাংশ। গ্যালাপ বলছে, ২০০৮ সালে তিনটি ক্যাটাগরি ব্যবহার করে জরিপ শুরু করার পর ‘সাফারিং’ ক্যাটাগরিতে এ সংখ্যা একটা রেকর্ড। গত এপ্রিলেই এটা ছিল ৪.৮ শতাংশ। অর্থাৎ মাত্র তিন মাসের মধ্যেই বেড়েছে ২.৮ শতাংশ।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply