Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » সিরিয়ার সীমান্তচৌকিতে তুরস্কের বিমান হামলা, নিহত ১৭




সিরিয়ার কোবানি অঞ্চলে সিরীয় বাহিনীর একটি সীমান্তচৌকিতে বিমান হামলা চালিয়েছে তুরস্ক। মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) এ হামলা চালানো হয়। এতে অন্তত ১৭ যোদ্ধা নিহত হয়েছেন। একটি পর্যবেক্ষক সংস্থা এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস বলেছে, কুর্দি নিয়ন্ত্রিত কোবানি শহরের কাছে এসব হামলা চালানো হয়। ওই এলাকায় তুর্কি বাহিনী ও কুর্দি নেতৃত্বাধীন সিরিয়ান ডেমোক্রেটিক ফোর্সেসের (এসডিএফ) মধ্যে সোমবার (১৫ আগস্ট) রাতভর সংঘর্ষ হয়। পরদিন সীমান্তচৌকিতে বিমান হামলা চালায় তুরস্ক। তবে নিহত যোদ্ধারা সিরিয়ার সরকারি বাহিনী নাকি কুর্দি বাহিনীর, তা নির্দিষ্ট করে বলেনি সংস্থাটি। কুর্দি নেতৃত্বাধীন এসডিএফ বলেছে, কোবানি সিরীয় সেনাবাহিনীর একাধিক অবস্থান লক্ষ্য করে তুর্কি সামরিক বিমান থেকে অন্তত ১২টি বিমান হামলা চালানো হয়। আরও পড়ুন: ইসরাইলি বিমান হামলায় সিরিয়ার ৩ সেনা নিহত এসডিএফের মুখপাত্র ফরহাদ শামি বলেন, ওই সব হামলায় হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। তবে ঠিক কতজন তা নির্দিষ্ট করেননি তিনি। তবে তার বক্তব্যমতে, হামলায় বেশ কয়েকজন সিরীয় সেনা নিহত হয়েছেন। একটি সামরিক সূত্রের বরাত দিয়ে সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা সানা জানায়, তুরস্কের হামলায় নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে কমপক্ষে তিনজন সিরীয় সেনা রয়েছেন। আহত হয়েছেন ছয়জন। হামলার জেরে সিরিয়া সরকারের প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করেছে সানা। এতে বলা হয়, সিরিয়ার সশস্ত্র বাহিনী পরিচালিত কোনো সামরিক চৌকিতে যেকোনো ধরনের হামলার সরাসরি ও তাৎক্ষণিক সর্বাত্মক জবাব দেয়া হবে। আরও পড়ুন: ধূলিঝড়ের কবলে সংযুক্ত আরব আমিরাত কুর্দি বাহিনীও তুরস্কের অভ্যন্তরে রাতভর হামলা চালিয়েছে। এতে এক সেনা নিহত হয়েছেন বলে তুর্কি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে। এক বিবৃতিতে তুরস্কের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, সিরিয়ার অভ্যন্তরে আঙ্কারার পাল্টা হামলায় ১৩ জন সন্ত্রাসীকে ‘খতম’ করা হয়েছে। এলাকাটিতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। কুর্দি যোদ্ধাদের ‘সন্ত্রাসী’ হিসেবে দেখে তুরস্ক। গত ১৯ জুলাই থেকে সিরিয়ার কুর্দি নিয়ন্ত্রিত এলাকায় হামলা জোরদার করেছে তুর্কি বাহিনী। তুরস্ক ২০১৬ সাল থেকে সিরিয়া সীমান্তে কুর্দি যোদ্ধা ও আইএস নিশানা করে হামলা চালিয়ে আসছে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply