Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » পুরো জার্মানিতেই একমাত্র শলৎজই ঠিকমতো গোসল করতে পারবেন’




বর্তমান গ্যাসের দাম বৃদ্ধি ও বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে আরোপ করা নানা বিধিনিষেধের কারণে সমগ্র জার্মানিতে একমাত্র ওলাফ শলৎজই ঠিকমতো গোসল করতে পারবেন বলে কৌতুক করেছেন রাশিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট দিমিত্রি মেদভেদেভ। মেদভেদেভ সোমবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি ব্যঙ্গাত্মক পোস্টে লিখেছেন, এবং বছরের শেষ নাগাদ দামের কী হবে? তিন হাজার মার্কিন ডলার? চার হাজার মার্কিন ডলার? এর আগে মার্চ মাসের শেষের দিকে মেদভেদেভ বলেছিলেন, রুশ বিরোধী নীতির কারণে জার্মান সরকারসহ ইইউ কর্মকর্তারা নিজেদের পায়ে গুলি চালাচ্ছেন। ইউরোপকে গ্যাস ছাড়া ছেড়ে দেওয়ায় সবচেয়ে ভালো উপায় বলে সে সময় মন্তব্য করেছিলেন তিনি। জার্মান চ্যান্সেলরকে গত সপ্তাহে একজন স্কুল ছাত্র জিজ্ঞাসা করেছিল, তিনি কতবার গোসল করেন। উত্তরে শলৎজ বলেন, ‘প্রতিদিন’। ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের শুরুর পর থেকে রাশিয়ার ওপর একের পর এক নিষেধাজ্ঞা দিচ্ছে পশ্চিমা দেশগুলো। রাশিয়াও হাত গুটিয়ে বসে নেই। এরই মধ্যে নর্ড স্ট্রিম-১ পাইপলাইনে গ্যাস সরবরাহ কমিয়ে দিয়েছে রাশিয়া। ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের ফলে তেল ও গ্যাসের দাম বেড়েছে। তৈরি হয়েছে জীবনযাত্রার সংকট। ফলে বিপাকে পড়েছে ইউরোপের দেশ জার্মানি। জার্মানির অনেক শহর জ্বালানি সঞ্চয়ের পথে হাঁটছে। আসন্ন জ্বালানি সংকট মোকাবেলায় বিদ্যুতের ব্যবহার কমাতে হ্যানোভার শহরের কর্তৃপক্ষ নিয়েছে কঠোর পদক্ষেপ। বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের অংশ হিসেবে শহরের আবাসিক ভবনগুলোতে গরম পানির সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। ভবনেগুলোতে সর্বোচ্চ তাপমাত্রায় গরম রাখার ব্যবস্থাও কমিয়ে আনা হয়েছে বলে রুশ সংবাদমাধ্যম আরটি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে। এর আগে সোমবারই হ্যানোভারের নগর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল স্পোর্টস হল, জিম ও পুলসহ আবাসিক ভবনে গরম পানি সরবরাহ বন্ধ করা হবে। এমনকি নতুন নিয়মের অধীনে সরকারি কর্মকর্তাদেরও কাজের সময় ঠাণ্ডা পানিই ব্যবহার করতে হবে। জার্মানির অগসবার্গও জ্বালানি সঞ্চয়ের পথে হাঁটছে। শহরের ঐতিহাসিক ভবনগুলোর সম্মুখভাগের আলোকসজ্জা বন্ধ করা হয়েছে, বেশিরভাগ ফোয়ারাও বন্ধ। শহরটির পাবলিক পুলে তাপমাত্রাও কমিয়েছে। কোন কোন ট্রাফিক লাইট বন্ধ রাখা যেতে পারে তা নিয়ে পরীক্ষানিরীক্ষা চলছে। অন্যান্য শহরের মতো এই শহরেও সরকারি ভবনগুলোতে উত্তাপ সীমিত রাখার কথা ভাবা হচ্ছে। জার্মানি রাশিয়ান গ্যাসের উপর সবচেয়ে বেশি নির্ভরশীল দেশগুলোর মধ্যে একটি। নর্ড স্ট্রিম-১ পাইপলাইনে গ্যাস সরবরাহ কমিয়ে দেওয়ায় ইউরোপের প্রধান অর্থনৈতিক শক্তি জার্মানির শিল্প-কারখানাগুলো ভবিষ্যৎ হুমকিতে পড়েছে। শীতপ্রধান দেশটিতে আসন্ন শীতে নাগরিকদের বাড়িঘর গরম রাখতে বাড়তি বিদ্যুতের জোগান দেয়া সম্ভব হবে কি না তা নিয়েও দেখা দিয়েছে সংশয়। পরিস্থিতি মোকাবেলায় কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের দিকে ঝুঁকছে জার্মানি। দেশটির অর্থমন্ত্রী রোবার্ট হাবেক এই সংকটকে স্মরণকালের অন্যতম আখ্যা দিয়েছেন। এ ব্যাপারে তিনি বলেছেন, রাশিয়া থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের অন্যতম কাঁচামাল গ্যাস রপ্তানি কমিয়ে নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে সরকার। সেই সঙ্গে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র ফের সচল করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply