Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » » দেশজুড়ে ঘৃণা ছড়াচ্ছেন মোদি: রাহুল গান্ধী




২০২৪ সালের জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে উত্তপ্ত হয়ে উঠছে ভারতের রাজনীতি। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি ও মোদি সরকারের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ এনে মাঠে নামছে প্রধান বিরোধী দল জাতীয় কংগ্রেস। রোববার রাজধানী নয়াদিল্লির ঐতিহাসিক রামলীলা ময়দানের সমাবেশে ক্ষমতাসীন দল বিজেপির কঠোর সমালোচনা করে কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী বলেন, দেশজুড়ে ঘৃণা ছড়াচ্ছেন নরেন্দ্র মোদি। খবর দ্য হিন্দু। সংবাদমাধ্যমের খবরে জানা যায়, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদে রোববার (৪ সেপ্টেম্বর) রাজধানী নয়াদিল্লির ঐতিহাসিক রামলীলা ময়দানে জনসমাবেশের আয়োজন করে ভারতের প্রধান বিরোধী দল ন্যাশনাল কংগ্রেস। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এক লাখের বেশি মানুষ সমাবেশে অংশ নেন। মূলত ২০২৪ সালের জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে মাঠে নামার অংশ হিসেবেই এ কর্মসূচি। কংগ্রেস সমর্থকরা বলছেন, মোদি সরকারের অনিয়ম ও দুর্নীতির প্রতিবাদ জানাতেই সমাবেশে অংশ নিয়েছেন তারা। এক কংগ্রেস কর্মী বলেন, ‘আমরা এখানে মোদির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে এসেছি। মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদ করতে এসেছি। আমরা নারীরা বুঝতে পারছি সংসার খরচ কত বেড়ে গেছে। জিনিসপত্র কেনার মতো অবস্থা নেই।’ আরও পড়ুন: মোদির প্রশংসা করে ভারতকে ‘পরীক্ষিত বন্ধু’ বললেন প্রধানমন্ত্রী আরেকজন বলেন, ব্যবসায়ী, কৃষক, যুবক থেকে শুরু করে সবাই হতাশ। কেউ এই মোদি সরকারকে চায় না। সমাবেশে অংশ নিয়ে মোদি সরকারের কঠোর সমালোচনা করেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। এ সময় বিজেপির বিরুদ্ধে ভারতজুড়ে বিভক্তির রাজনীতি ও ঘৃণা ছাড়ানোর অভিযোগ করে তিনি বলেন, দ্রব্যমূল্য বাড়লেও সেদিকে সরকারের কোনো নজর নেই। আরও পড়ুন: বিশ্বের পঞ্চম অর্থনৈতিক শক্তিধর দেশ ভারত কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী বলেন, ভারতের প্রতিটি মানুষ তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে দুশ্চিন্তায়। নিত্যপণ্যের দাম, বেকারত্ব বেড়েই চলেছে। বিজেপি ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকেই জিনিসপত্রের দাম বাড়ছে। ঘৃণা বাড়ছে। বিদ্বেষ বাড়ছে। বিজেপি এবং আরএসএস ভারতকে ভাগ করতে চাইছে অভিযোগ করে বিতর্কিত কৃষি আইন বাতিলের দাবি জানান রাহুল গান্ধী। বলেন, মোদির বিরুদ্ধে কথা বললেই ইডির মাধ্যমে ভয় দেখানো হচ্ছে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply