Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » আবের রাষ্ট্রীয় অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার প্রতিবাদে এক ব্যক্তির নিজের গায়ে আগুন




জাপানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া রাষ্ট্রীয়ভাবে আয়োজনের প্রতিবাদে নিজের গায়ে আগুন দিয়েছেন এক ব্যক্তি। স্থানীয় সময় বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) টোকিওতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কাছে এ ঘটনা ঘটে। আগামী সপ্তাহে রাষ্ট্রীয়ভাবে শিনজো আবের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া আয়োজনের কথা রয়েছে। খবর গার্ডিয়ানের। সংবাদমাধ্যমের খবরে জানা যায়, টোকিওতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সামনে পুলিশকে জানিয়ে নিজের গায়ে তেল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন ওই ব্যক্তি। তার শরীরের বিভিন্ন অংশ পুড়ে গেছে। পরে উদ্ধার করে ওই ব্যক্তিকে হাসপাতালে নেয়া হয়। টোকিও দমকল বাহিনীর এক কর্মকর্তা বলেন, এক ব্যক্তি টোকিওর কাসুমিগাসেকি জেলায় রাস্তায় দাঁড়িয়ে নিজের গায়ে আগুন লাগিয়ে দেন। পুলিশ জানিয়েছে, বিষয়টি স্পর্শকাতর এবং ওই ব্যক্তির উদ্দেশ্য নিশ্চিত না হওয়ায় তার পরিচয় জানানো সম্ভব হচ্ছে না। ঘটনাস্থলের পাশে ওই ব্যক্তির লেখা একটি নোট পাওয়া গেছে। সেখানে লেখা রয়েছে, ‘ব্যক্তিগতভাবে, আমি একেবারেই আবের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার বিরুদ্ধে।’ জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা বর্তমানে নিউইয়র্কে অবস্থান করছেন। জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে বার্ষিক বৈঠকে যোগ দিতে তিনি সেখানে রয়েছেন। আরও পড়ুন: আবেনোমিকসে বেঁচে থাকবেন আবে আবের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া রাষ্ট্রীয়ভাবে আয়োজন অধিকাংশ জাপানির মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে। এভাবে অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার আয়োজন জাপানে বিরল। তবে প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা বলেছেন, আবে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ-পরবর্তী জাপানের সবচেয়ে দীর্ঘমেয়াদি নেতা এবং তার কূটনৈতিক ও অর্থনৈতিক সাফল্যের জন্য এই সম্মানের যোগ্য তিনি। জানা যায়, রাষ্ট্রীয়ভাবে অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া আয়োজনের জন্য জাপান সরকার ১৪০ কোটি ইয়েন খরচ করার ঘোষণা দিয়েছে। রাজনৈতিক বিরোধীরা বলেন, শিনজো আবের প্রতি সহানুভূতি দেখিয়ে তার অনুসারীদের সমর্থন লাভ করে নিজের অবস্থান শক্তিশালী করতে চাইছেন প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা। আরও পড়ুন: আবে হত্যাকাণ্ড: পদত্যাগ করছেন জাপানের পুলিশ প্রধান জাপানের সবচেয়ে দীর্ঘমেয়াদি প্রধানমন্ত্রী ছিলেন আবে। ২০০৬ থেকে ২০০৭ এবং ২০১২ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত দু-দফায় তিনি প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। পশ্চিমা দেশগুলোর সঙ্গে টোকিওর সম্পর্ককে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যাওয়া এই রাজনীতিক ক্ষমতায় থাকাকালে দেশের অর্থনীতি শক্তিশালী করার পাশাপাশি জাপানকে আবারও বিশ্বশক্তিতে পরিণত করার পথে অনেকটা অগ্রসর হয়েছিলেন। স্বাস্থ্যগত কারণে প্রধানমন্ত্রিত্ব ছেড়ে দেয়ার পরও তিনি রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। ২০২০ সালে ৬৭ বছর বয়সী আবে পদত্যাগ করেন। তিনি নিজে প্রার্থী না হলেও তার দল লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির অন্য সদস্যদের পক্ষে প্রচার চালাচ্ছিলেন তিনি।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply