Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » » উপসাগরীয় অঞ্চলের তিন দেশ সফরে জার্মান চ্যান্সেলর




ইউক্রেন-রাশিয়া ইস্যুতে তীব্র জ্বালানি সংকট নিরসন ও নিম্নমুখী অর্থনীতিকে গতিশীল করতে এবার উপসাগরীয় অঞ্চলের তিনটি দেশের সফরে জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শলজ। শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) দুদিনের সফরে সৌদি আরবের রাজধানী জেদ্দায় পৌঁছান তিনি। সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানের সঙ্গে বৈঠকে দুই দেশের মধ্যে জ্বালানি সহায়তা বাড়ানোর বিষয়ে আলোচনা করেন জার্মান চ্যান্সেলর। জেদ্দা বিমানবন্দরে পৌঁছালে তাকে স্বাগত জানান মক্কার গভর্নর প্রিন্স খালিদ বিন ফয়সাল। পরে সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানসহ দেশটির শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। বৈঠকে জার্মানির বর্তমান জ্বালানি সমস্যা নিরসনে তেল ও গ্যাস ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি শক্তির আমদানি, সৌদি আরবে অস্ত্রসরবরাহ, দুই দেশের বাণিজ্য ও অর্থনীতিসহ নানা ইস্যুতে পারস্পারিক সহযোগিতা নিয়ে দ্বিপক্ষীয় আলোচনায় অংশ নেন। জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শলজ বলেন, দেখুন সৌদি আরবের সঙ্গে আমাদের রয়েছে সুদীর্ঘকালের অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক গভীর সম্পর্ক। এই সময়ে এসে সেই সম্পর্ক আরও জোরদার করার উদ্দেশ্যই আমার এই সফর। এই সফরে আমরা দুই দেশের যেসব বিষয়ে আরও উন্নতি করতে পারি সেগুলো নিয়ে সৌদি প্রিন্সের সঙ্গে আলোচনা করেছি। একান্ত আলাপে আমরা ভবিষ্যতের নানা সমস্যা নিয়ে কথা বলেছি, বিশেষ করে বিশ্বের উষ্ণতা কমানোসহ সৌদি থেকে তেল গ্যাস ছাড়াও নবায়নযোগ্য হাইড্রোজেন জ্বালানি শক্তির আমদানিও ছিল আমাদের আলোচনার প্রধান বিষয়বস্তু। সঙ্গে প্রযুক্তিগত সহযোগিতার বিষয়টি তো আছেই। আরও পড়ুন: রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ: উভয় চাপে জার্মানি বৈঠকে সৌদি প্রিন্স মুহাম্মদ বিন সালমানকে ইস্তাম্বুলে সৌদি কনসুলেটে সাংবাদিক জামাল খাশোগির হত্যার বিষয়টি ছাড়াও দেশটির মানবাধিকার পরিস্থিতি তুলে ধরেন। এ সময় শলজ বলেন, কে খাশোগি হত্যার পরিকল্পনা করেছিল তা মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন যেমন জানেন তেমনি আমাদের কাছেও বিষয়টি পরিষ্কার। উত্তরে বরাবরের মতোই বিষয়টি অস্বীকার করেন ৩৭ বছর বয়সী সৌদি প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান। শলজ আরও বলেন, সৌদি প্রিন্সের সঙ্গে অন্য যে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেছি তা হলো এখানে মানবাধিকার লঙ্ঘন ও সাধারণ মানুষের বাকস্বাধীনতা রুদ্ধ করবার সৌদি সরকারের প্রয়াসকে জার্মানি কোনোভাবেই সমর্থণ করে না। বিশেষ করে নারীদের সমঅধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য সৌদি সরকার কী করছে, তা আমরা পর্যবেক্ষণ করছি। ইউক্রেনে রুশ অভিযানের কারণে তেল ও গ্যাসের তীব্র জ্বালানি সংকটে জার্মানি। এতে দারুণ দুর্ভোগে পড়েছে গতিশীল অর্থনীতির এ দেশটি। সংকট কাটাতে জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শলজ বিশ্বের নানা দেশ সফর করলেও খুব একটা আলোর মুখ দেখছেন না। তাই অব্যাহত মন্দাভাব কাটাতে উপসাগরীয় অঞ্চলে সফর করছেন। তার সফরসঙ্গী রয়েছেন জার্মানির বিখ্যাত সিমেন্স এনার্জি, থিসেনক্রুপ ও এয়ারবাসের মতো ১১টি প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply