Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথকে যত হত্যাচেষ্টা




রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ, যিনি টানা ৭০ বছর রাজত্ব করে ব্রিটেনের সবচেয়ে দীর্ঘ মেয়াদি রাজশাসকের সম্মান অর্জন করেন। শক্তিশালী নিরাপত্তা বলয়ের মধ্যে থেকে করেছেন রাজ্য শাসন। তবে এত নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্যে থাকলেও তাকে পড়তে হয়েছিল গুপ্তঘাতকের কবলে। বেশ কয়েকবার হত্যার চেষ্টা করা হয় রানিকে। ছবিঃ সংগৃহীত দ্বিতীয় এলিজাবেথ ইংল্যান্ডসহ মোট ১৫টি দেশের রানি ছিলেন। তাই তাকে অনেক রাজকীয় সফরে যেতে হতো। আর হত্যাকাণ্ডের জন্য গুপ্তঘাতকরা তার এই সফরের সময়গুলোকেই বেছে নিত। তবে কপালজোরে প্রতিবারই তিনি বেঁচে যান। প্রথম হত্যাচেষ্টা চালানো হয় ১৯৭০ সালে অস্ট্রেলিয়া সফরকালে। রানি ও তার স্বামী প্রিন্স ফিলিপ সেই সফরের পুরোটাই সম্পন্ন করেছিলেন ট্রেনে চড়ে। তাদের ট্রেন যখন লিথগো শহর পার হচ্ছিল, ঠিক সেখানে রেলপথে একটি বড় গাছের গুঁড়ি পাওয়া যায়। কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে নিশ্চিত ছিল, এটি দুর্ঘটনাবশত নয়, ব্যাপারটি সম্পূর্ণই পরিকল্পিত। কেননা, সেখানকার দায়িত্বরত পরিচ্ছন্নতাকর্মী ট্রেন আসার আগে জায়গাটি পরিষ্কারের সময় গুঁড়িটি দেখেননি। তবে ট্রেন ধীরগতিতে চলায় রানি বেঁচে যান। অস্ট্রেলিয়া এ ঘটনাটি এত বছর গোপন রেখেছিল। তবে ২০০৯ সালে ওই ষড়যন্ত্রের ঘটনাটি জনসম্মুখে প্রকাশ করেন, সে সময়ে দুর্ঘটনার তদন্তে নিয়োজিত থাকা দুজন কর্মকর্তা। আরও পড়ুন: পবিত্র কোরআন বুঝতে আরবি শিখেছিলেন ব্রিটেনের রাজা চার্লস রানির ওপর দ্বিতীয় হামলা হয়েছিল লন্ডনে, ১৯৮১ সালে। রানির জন্মদিন উপলক্ষে রীতি অনুযায়ী কুচকাওয়াজের আয়োজন করা হয়েছিল। আয়োজনের শুরুতে রানি তার ঘোড়া 'বার্মিজের' ওপর বসেছিলেন। দর্শকদের ভিড়ের মাঝে 'মার্কাস সার্জেন্ট' নামের ১৭ বছর বয়সী এক কিশোর পিস্তল নিয়ে রানির অপেক্ষায় ছিল এবং তাকে লক্ষ্য করে গুলিও ছোড়ে। সৌভাগ্যক্রমে তার করা ছয়টি গুলির কোনোটিই রানির গায়ে লাগেনি। তার ঘোড়া গুলির আওয়াজে চমকে গিয়েছিল ঠিকই, তবে রানি তা সামলে নেন। পরে ছেলেটিকে গ্রেফতার করে পাঁচ বছরের জন্য কারাগারে পাঠানো হয়। এ ঘটনার কয়েক মাস পরেই ঘটে তৃতীয় চেষ্টা। রানি এলিজাবেথ নিউজিল্যান্ডের 'ডুনেডিনে' সফরে গিয়েছিলেন। সেখানে তিনি যখন গাড়ি থেকে নামছিলেন, তখনই শোনা যায় এক গুলির শব্দ। 'ক্রিস্টোফার লুইস' নামে এক যুবক ওই কাজটি করেছিল। সে রানির গাড়ি থেকে কাছের এক ভবনের ষষ্ঠ তলায় বাথরুমে লুকিয়ে গুলি চালিয়েছিল। তবে লুইসের অবস্থান সুবিধাজনক স্থানে না হওয়ায় রানিকে লক্ষ্যভেদ করতে পারেনি তার ছোড়া বুলেট। অস্ট্রেলিয়ার মতো নিউজিল্যান্ডও এই হত্যাচেষ্টার ঘটনাটি গোপন করেছিল। পরবর্তী সময়ে ২০১৮ সালে তা প্রকাশিত হয়। আরও পড়ুন: ৪৬ হাজার ৫০০ কোটি টাকার রাজপ্রাসাদ! লুইস ছিল একজন মানসিক ভারসাম্যহীন কিশোর। এ ঘটনার আগেও সে অগ্নিসংযোগ এবং প্রাণী নির্যাতনের মতো কাজ করেছিল। এ ছাড়া রাজপরিবারের প্রতি তার এক ঘোর কাজ করত। পরবর্তী সময়ে প্রিন্স চার্লস যখন ১৯৮৩ সালে নিউজিল্যান্ড সফর করেছিলেন, তখন লুইস জেল থেকে পালানোর চেষ্টা করেছিল তাকে হত্যার জন্য। কিন্তু ব্যর্থ হয়। এরপর ১৯৯৫ সালে রানি যখন পুনরায় নিউজিল্যান্ড সফরে আসেন, নিউজিল্যান্ড সরকার লুইসকে ৬০০ মাইল দূরে পাঠিয়ে দেয়, যাতে রানিকে ক্ষতি করার কোনো সুযোগ না পায়। এ ছাড়া ২০২১ সালে রানির 'উইন্ডসর' প্রাসাদের বাইরে তির-ধনুকসহ ১৯ বছরের এক যুবককে গ্রেফতার করা হয়। যার নাম 'জাসওয়ান্ত'। জানা যায়, ১৯১৯ সালে জালিয়ানওয়ালাবাগ হত্যাকাণ্ডের প্রতিশোধ নিতেই রানিকে হত্যা করতে এসেছিল সে। একদিকে মহা ক্ষমতার অধিকারী, অন্যদিকে শক্তিশালী নিরাপত্তা বলয়ের মধ্যে থেকে বেশ কয়েকবার হত্যাচেষ্টার মুখোমুখি হয়েও স্বাভাবিক মৃত্যুর মধ্য দিয়ে ৭০ বছরের টানা ক্ষমতার ইতি টানেন রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply