Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » পুলিৎজারজয়ীদের মধ্যে শিশুটি কে?




গ্রুপ ছবিটিতে অংশ নেয়া সবাই পুলিৎজার পুরস্কার বিজয়ী। কেউ সাংবাদিক, কেউ সাহিত্যিক আবার কেউ সংগীতজ্ঞ। গত বৃহস্পতিবার (২০ অক্টোবর) যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক শহরের ম্যানহাটানে কলাম্বিয়া ইউনিভার্সিটিতে পুরস্কারপ্রদান অনুষ্ঠানে একসঙ্গে ক্যামেরাবন্দি হন তারা। কিন্তু হাস্যোজ্জ্বল মুখগুলোর মধ্যে নিরানন্দ চেহারার এই শিশুটি কে? সেও কি পুলিৎজার জিতেছে? ইন্টারনেটজুড়ে ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোতে ছবিটি রীতিমতো ভাইরাল হয়েছে। আর এরপরই শিশুটির পরিচয় নিয়ে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন লাখো মানুষ। সবাই জানতে চাইছেন, কে এই শিশুটি? কী তার পরিচয়? শুক্রবার (২১ অক্টোবর) নিজেদের ওয়েবসাইটে ছবিটি প্রকাশ করে ব্রিটিশ সংবাদ সংস্থা রয়টার্স। ছবিটি সংবাদমাধ্যমটির ‘টপ ফটোস অব দ্য ডে’র গ্যালারিতে স্থান করে নিয়েছে। সেখানে শিশুটির পরিচয়ও জানিয়েছে রয়টার্স। বলেছে, শিশুটির নাম ইউনুস সিদ্দিকি। বয়স ৬। প্রয়াত কাশ্মীরি ফটোসাংবাদিক দানিশ সিদ্দিকির ছেলে। পুরস্কার সে পায়নি। পেয়েছেন তার বাবা দানিশ সিদ্দিকি। ২০২২ সালের পুলিৎজার পুরস্কার জেতেন প্রয়াত সাংবাদিক দানিশ সিদ্দিকি। রয়টার্সের ফটোসাংবাদিক হিসেবে ফিচার ফটোগ্রাফি বিভাগে এই পুরস্কার পান তিনি। আরও পড়ুন: পুলিৎজার পুরস্কার নিতে যেতে কাশ্মীরি চিত্রসাংবাদিককে বাধা দানিশের সঙ্গে এই পুরস্কার ভাগ করে নেন আরও তিনজন। তারা হলেন- আদনান আবিদি, সানা ইরশাদ মাট্টো ও অমিত দাভে। ভারতে যখন করোনা তাণ্ডব চলছিল, তখন সেই ছবি তুলে পুলিৎজার জয় করেন দানিশ। কিন্তু তিনি এখন আর বেঁচে নেই। গত বছরের জুলাই মাসে দানিশ আফগানিস্তানে তালেবানের হাতে হত্যার শিকার হন বলে মনে করা হয়। ২০২১ সালে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ চলাকালে ভারতে ছবি তোলার কাজ করেছিলেন দানিশ। এরপরই তিনি আফগানিস্তানে চলে যান। সেই সময় তালেবানের কাছে কাবুলের পতন ঘটে। এর আগে ২০১৮ সালেও পুলিৎজার পুরস্কার পেয়েছিলেন দানিশ। রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সমস্যা নিয়ে ছবি তোলেন তিনি। সেই ছবির জন্য দানিশকে দেয়া হয় পুলিৎজার। এ ছাড়াও হংকংয়ের প্রতিবাদ, তালেবানসহ নানা গুরুত্বপূর্ণ ঘটনার ছবি তোলেন তিনি। পুলিৎজারের ওয়েবসাইটে ঘোষণা করা হয়,‌ ভারতে করোনা পরিস্থিতি চলাকালে দানিশ যে সব ছবি তুলেছেন, সেই ছবিতে একই সঙ্গে ভারতীয়দের একে অপরের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা ও করোনার কারণে ধ্বংসযজ্ঞ উঠে এসেছে। একইসঙ্গে দর্শককে একটি উচ্চতর অনুভূতি প্রদান করেছে। আরও পড়ুন: পুলিৎজার পুরস্কার পেলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ফাহমিদা দানিশ বেঁচে নেই। তাই তার সন্তানদের হাতেই পুরস্কার তুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় পুলিৎজার কর্তৃপক্ষ। গত বৃহস্পতিবার (২০ অক্টোবর) নিউইয়র্কের ম্যানহাটানে কলাম্বিয়া ইউনিভার্সিটিতে অনুষ্ঠিত হয় পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান। সেই অনুষ্ঠানে যোগ দেয় দানিশ সিদ্দিকির ৬ বছর বয়সী ছেলে ইউনুস সিদ্দিকি ও ৪ বছর বয়সী মেয়ে সারা সিদ্দিকি। পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানের এক ফাঁকেই পুলিৎজারজয়ীদের গ্রুপ ছবিতে বাবা দানিশ সিদ্দিকির জায়গা পূরণ করে ছেলে ইউনুস সিদ্দিকি। কিন্তু আর সবার মুখে হাসি থাকলেও তার মুখে হাসি নেই। হয়ত ওই মুহূর্তে প্রয়াত বাবার কথাই মনে পড়ছিল তার।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply