Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » » অর্থমন্ত্রী হয়েই কর বাড়ানোর ইঙ্গিত জেরেমি হান্টের




দায়িত্ব নেয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই কর বৃদ্ধির বিষয়ে দেশবাসীকে সতর্ক করেছেন ব্রিটেনের নতুন অর্থমন্ত্রী জেরেমি হান্ট। এ সময় তিনি স্বীকার করেন, পূর্বসূরি কোয়াসি কোয়ার্টেং ঘোষিত কর কমানোর সংক্ষিপ্ত বাজেটে ‘ভুল’ ছিল। বিবিসির খবরে জানা যায়, শনিবার (১৫ অক্টোবর) এক সাক্ষাৎকারে সাবেক এ পররাষ্ট্র ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, তার পূর্বসূরি কোয়াসি কোয়ার্টেং প্রাথমিকভাবে উচ্চ আয়ের মানুষের জন্য কর কমাতে চেয়েছিলেন। একইসঙ্গে অফিস ফর বাজেট রেসপনসিবিলিটি থেকে কোনো পূর্বাভাস ছাড়াই তাদের বাজেট পরিকল্পনা উপস্থাপন করেছিলেন। এ দুটো ভুলের কারণে দেশটিতে রাজনৈতিক বিশৃঙ্খলা এবং টালমাটাল বাজার পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। এমনকি ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতায় টিকে থাকা নিয়ে তৈরি হয়েছে অনিশ্চয়তা। মূলত এরই প্রেক্ষাপটে আগের পরিকল্পনা বাদ দিয়ে কর বাড়ানোর ইঙ্গিত দেন নতুন অর্থমন্ত্রী জেরেমি হান্ট। কর বৃদ্ধির কারণ হিসেবে জেরেমি হান্ট বলেছেন, জনগণকে বাজেট দায়বদ্ধতা বিষয়ে আস্থায় না এনেই অতিরিক্ত করের অর্থ বাজেটে যোগ হবে এমন ভবিষ্যদ্বাণী করা একটি ভুল ছিল এবং প্রধানমন্ত্রী তা স্বীকারও করে নিয়েছেন। আর তাই আমি এখানে। নতুন অর্থমন্ত্রী এ বিষয়ে আরও বিস্তারিত জানাতে অস্বীকৃতি জানান। মূল্যস্ফীতির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে সুযোগ সুবিধা বাড়ানোর যে প্রতিশ্রুতি বরিস জনসন দিয়েছিলেন সে বিষয়েও মন্তব্য করেননি তিনি। তবে জানিয়েছেন, মূল্যস্ফীতির কারণে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের প্রয়োজনের প্রতি তিনি সচেতন। কর বাড়ানোর পরিকল্পনা এবং তা থেকে সরে এসে আবারও আগের অবস্থানেই ফিরে এসেও আগের মতোই বাজেটের আকার বজায় রাখা একটি বিপর্যয়কর বাজেটের জন্ম দিতে যাচ্ছিল। এ বিষয়ে তার পূর্বসূরি কোয়াসি কোয়ার্টেংয়ের করা ভুল স্বীকার করে জেরেমি হান্ট বলেছেন, এ জন্য প্রধানমন্ত্রী লিজ ট্রাস এখনো ক্ষমতা হারানোর হুমকিতে রয়েছেন। আরও পড়ুন: যুক্তরাজ্যে মূল্যস্ফিতি আরও বাড়ার আশঙ্কা ব্রিটিশ অর্থমন্ত্রী বলেন, এসব ভুলের কারণে দেশটিতে রাজনৈতিক বিশৃঙ্খলা এবং টালমাটাল বাজার পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। এমনকি এ জন্য ট্রাসের ক্ষমতায় টিকে থাকা নিয়ে তৈরি হয়েছে অনিশ্চয়তা। মূলত এরই প্রেক্ষাপটে আগের পরিকল্পনা বাদ দিয়ে কর বাড়ানোর কথা ভাবা হচ্ছে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply