Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » » অস্ট্রেলিয়াকে ৮৯ রানের বড় ব্যবধানে হারি দিয়েছে নিউজিল্যান্ড।




অস্ট্রেলিয়াকে গুঁড়িয়ে কিউয়িদের ‘প্রথম’ জয়!

অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে স্বাগতিক দলের বিপক্ষেই প্রথমবারের মতো টি-টোয়েন্টি ম্যাচে জয় পেয়েছে নিউজিল্যান্ড। তাও রীতিমতো ফিঞ্চ-ওয়ার্নারদের গুঁড়িয়ে দিয়ে। শনিবার (২২ অক্টোবর) সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে চলতি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সুপার টুয়েলভের প্রথম ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে ৮৯ রানের বড় ব্যবধানে হারি দিয়েছে নিউজিল্যান্ড। অজিদের বিপক্ষে তাদের মাটিতে এর আগে ৩টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেললেও কোনো ম্যাচেই জয় পায়নি নিউজিল্যান্ড। ৪র্থ বারের চেষ্টায় এই ফরম্যাটে অজিদের মাটিতে স্বাগতিকদের হারানোর স্বাদ পেলো কেন উইলিয়ামসনের দল। এছাড়াও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মঞ্চে দুই দলের তিনবারের দেখায় দুই জয় নিয়ে এগিয়ে গেল কিউয়িরা। একবারই হেরেছিল তারা। সেটাও গত ফাইনালের মঞ্চে। এবারের বিশ্বকাপের সাক্ষাৎ তাই নিউজিল্যান্ডের জন্য প্রতিশোধের মঞ্চও ছিল। এদিন টসে হেরে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে দুই ওপেনার ও জিমি নিশামের কল্যাণে ৩ উইকেটে ২০০ রানের স্কোর দাঁড় করায় কিউইরা। লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ১৭ ওভার ১ বলে ১১১ রানে গুটিয়ে যায় অজিরা। এদিন আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ব্যাট হাতে ঝড় তোলেন দুই ওপেনার ফিন অ্যালেন ও ডেভন কনওয়ে। পাওয়ার-প্লেতে তারা তোলেন ৬৫ রান। যার মধ্যে অ্যালেন একাই ১৬ বলে ৫টি চার ও ২ ছয়ে করেন ঝড়ো ৪২ রান। এরপর তিনে নেমে অধিনায়ক উইলিয়ামসন ২৩ ও গ্লেন ফিলিপস ১২ রান করে ফিরে যান। চতুর্থ উইকেট জুটিতে জিমি নিশামকে নিয়ে অবিচ্ছিন্ন ৪৮ রানের জুটি গড়ে দলীয় দুইশ রান স্পর্শ করেন কনওয়ে। এরমধ্যে নিশাম ১৩ বলে ২ ছয়ে ২৬ রানে অপরাজিত থাকেন। তবে কিউয়িদের পক্ষে কনওয়ে খেলেন ম্যারাথন ইনিংস। ওপেনিংয়ে নেমে ৫৮ বলে ৭ চার ও ২ ছয়ে অপরাজিত ৯২ রানের ইনিংস খেলেন এই বাঁহাতি। সেঞ্চুরি না পাওয়ার আক্ষেপ নিয়ে মাঠ ছাড়লেও প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত খেলে অপরাজিত থেকে গড়েন বিশ্ব রেকর্ড। লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরু থেকে কোনো পর্যায়ে ম্যাচে থাকতে পারেনি অজিরা। দ্বিতীয় ওভারে দুর্ভাগ্যজনকভাবে বোল্ড হয়ে ওয়ার্নারের (৫ রান) বিদায়ে আউট হওয়ার সুইচ গেট ওপেন হয় অস্ট্রেলিয়া শিবিরের। এরপর ৫০ রানের মধ্যে ৪ উইকেট হারিয়ে বসে দলটি। অধিনায়ক ফিঞ্চ (১৩ রান), মিচেল মার্শ (১৬), মার্কাস স্টয়নিস (৭), টিম ডেভিড (১১), ম্যাথু ওয়েডরা (২) ব্যাট হাতে চরম ব্যর্থ হোন। গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ২৮ রান করে প্রতিরোধের চেষ্টা করেন। তবে তাতে খুব একটা লাভ হয়নি। শেষদিকে কামিন্স ২১ রান করলে শতরানের কোটা পেরোয় অজিরা। এদিন বল হাতে কিউই বোলাররা ছিলেন দুর্দান্ত। সাউদি ৩ উইকেট নেন মাত্র ৬ রানের বিনিময়ে। এছাড়াও মিচেল স্যান্টনারও ৩ উইকেট পান তবে ৩১ রানের বিনিময়ে। ট্রেন্ট বোল্ট ২ উইকেট নিতে খরচ করেন ২৪ রান।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply