Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » ইতিহাস গড়া হলো না সাকিবদের




নেদারল্যান্ডসের কাছে দক্ষিণ আফ্রিকার হারে প্রথমবারের মতো টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ওঠার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছিল বাংলাদেশের সামনে। কিন্তু বিতর্কিত আম্পায়ারিংয়ের কবলে পড়ে শেষ পর্যন্ত সেই স্বপ্ন পূরণ হলো না টাইগারদের। যার ফলে ইতিহাস গড়া হলো না সাকিবদের। শেষ পর্যন্ত গ্রুপ-২ থেকে সেমিফাইনালে জায়গা করে নিলো পাকিস্তান। আর হেরে গ্রুপে পাঁচ নম্বরে থেকেই বিদায় নিল বাংলাদেশ। রোববার (৬ নভেম্বর) অ্যাডিলেড ওভালে টস জিতে আগে ব্যাটিং করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে মাত্র ১২৮ রানের স্কোর গড়ে বাংলাদেশ। জবাব দিতে নেমে ১৮ ওভার ১ বল খেলে ৫ উইকেট হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় পাকিস্তান। ফলে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল খেলার ইতিহাস গড়তে পারল না সাকিবরা। এদিন স্বপ্নের সেমিফাইনালে যাওয়ার লড়াইয়ে পাকিস্তানকে ১২৮ রানের লক্ষ্য দিতে পারে বাংলাদেশ। জবাবে শুরুতে জীবন পেয়েই ওপেনিং জুটিতেই ৫৭ রান যোগ করেন বাবর-রিজওয়ান। দারুণ এই জুটি ভেঙেছেন দলে সুযোগ পাওয়া নাসুম আহমেদ। ৩৩ বলে ২৫ রান করা বাবর আউট হয়েছেন মোস্তাফিজের ক্যাচে। তার ইনিংসে ছিল ২টি চার। এক ওভার পর এবাদত হোসাইন বিদায় দিয়েছেন প্রথম ওভারেই জীবন পাওয়া রিজওয়ানকেও। ৩২ বলে ৩২ রান করা এই ব্যাটার ক্যাচ তুলেছেন ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে থাকা শান্তর কাছে। তার ইনিংসে ছিল দুটি চার ও একটি ছয়। যাতে ১১.৪ ওভার শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ দাঁড়ায় ২ উইকেটে ৬৬ রান। এদিন ১২৭ রানের অল্প পুঁজি নিয়েও শুরুতেই উইকেট পেতে পারতো বাংলাদেশ। তবে সোহানের ক্যাচ মিসে জীবন পান মোহাম্মদ রিজওয়ান। আর তাতে উদ্বোধনী জুটিতে পঞ্চাশোর্ধ্ব স্কোর গড়ে পাকিস্তান। পরে মোহাম্মদ হারিস ও শান মাসুদের ১৪ বলে ২৯ রানের জুটিতে জয়ের পথে অনেকটাই এগিয়ে যায় বারব আজমের দল। শেষ পর্যন্ত শান মাসুদের ১৪ বলে ২৪ রানে ভর করে ১১ বল হাতে রেখেই পাকিস্তান তুলে নেয় কাঙ্ক্ষিত জয়। পাঁচ উইকেট হারিয়েই পৌঁছে যায় স্বপ্নের সেমিফাইনালে। যদিও মাঝে মারকুটে হারিসকে আউট করেন সাকিব। সাউদিকে টপকে টি-টোয়েন্টিতে সেরা উইকেট শিকারীর আসনটি পুনরুদ্ধার করেন টাইগার অধিনায়ক। ১৮ বলে একটি চার ও দুটি ছয়ে ৩১ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন হারিস। সোহানের ভুলে তিন ওভারে ২৬ রান দিয়েও এদিনও কোনও উইকেট পেলেন না তাসকিন। যার ফলে বাংলাদেশও পেল না কাঙ্ক্ষিত ফল। এছাড়া সাকিব, নাসুম, এবাদত ও মুস্তাফিজ নেন একটি করে উইকেট। তবে ২২ রান দিয়ে ৪ উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরা হন শাহিন শাহ আফ্রিদি।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply