Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » ডিসি-ইউএনও-এসিল্যান্ড নিয়োগে নতুন নীতিমালা




ডেপুটি কমিশনার (ডিসি), উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও), এসিল্যান্ডসহ (সহকারী কমিশনার-ভূমি) মাঠ প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ে নিয়োগের ক্ষেত্রে কিছু শর্ত যুক্ত করে নতুন নীতিমালা জারি করেছে সরকার। এতে আগের নীতিমালার অস্পষ্টতা দূর করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্নিষ্টরা। 'জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণাধীন কর্মচারীগণের পদায়ন নীতিমালা, ২০২২' পরিপত্র আকারে জারি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। নতুন নীতিমালা জারি করায় 'বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের কর্মকর্তাদের পদায়ন নীতিমালা, ২০১৫' এবং 'জেলা প্রশাসক, অতিরিক্তি জেলা প্রশাসক, ইউএনও এবং মহানগর হাকিম হিসেবে কর্মকর্তা নির্বাচন বা পদায়নের নীতিমালা-১৯৯৭ (সংশোধিত ২০১০, ২০১৩, ২০১৫)' বাতিল করা হয়েছে বলে বুধবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে। নীতিমালায় বলা হয়েছে, বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের অতিরিক্ত সচিব বা যুগ্ম সচিবদের মধ্য থেকে বিভাগীয় কমিশনার পদে পদায়ন করা হবে। বিভাগীয় কমিশনার পদে পদায়নের জন্য জেলা প্রশাসক পদে কর্ম অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের কর্মচারীদের মধ্য থেকে উপসচিব পদে পদোন্নতি প্রাপ্তির এক বছর পর জেলা প্রশাসক পদে পদায়নের জন্য ফিট লিস্ট প্রণয়ন করা হবে। ফিট লিস্টে থাকা কর্মকর্তাদের উপপরিচালক, স্থানীয় সরকার বা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক বা সচিব, জেলা পরিষদ বা প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, পৌরসভা এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উভয় পদে মোট কমপক্ষে দুই বছরের চাকরির অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। পূর্ববর্তী পাঁচ বছরের বার্ষিক গোপনীয় অনুবেদনের রেকর্ড এবং পুরো চাকরিজীবনের শৃঙ্খলা প্রতিবেদন সন্তোষজনক হতে হবে। প্রকল্প ও ক্রয় ব্যবস্থাপনা সম্পর্কিত জ্ঞান, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সম্পর্কে সম্যক ধারণা, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিষয় সম্পর্কে জ্ঞান এবং বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় দক্ষতা থাকতে হবে। ম্যাজিস্ট্রেসি ও ভূমি ব্যবস্থাপনা বিষয়ে অভিজ্ঞতাসম্পন্ন হতে হবে। জেলা প্রশাসক পদের ফিট লিস্ট প্রণয়নে আগের মতোই মন্ত্রিপরিষদ সচিবের নেতৃত্বে কমিটি থাকবে। নিজ জেলা বা স্বামী বা স্ত্রীর জেলায় জেলা প্রশাসক পদে পদায়ন করা যাবে না বলে নীতিমালায় উল্লেখ করা হয়েছে। বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের কর্মচারীদের মধ্য থেকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার পদে পদায়ন করা হবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদে পদায়নের জন্য যোগ্য কর্মচারী বাছাই করে ফিট লিস্ট প্রণয়ন করা হবে। ফিট লিস্টে যাঁরা থাকবেন তাঁদের সিনিয়র স্কেলপ্রাপ্তি ও নূ্যনতম ছয় বছর চাকরিকাল পূর্ণ হতে হবে। সর্বশেষ পাঁচ বছরের বার্ষিক গোপনীয় অনুবেদন, সার্ভিস রেকর্ড ও শৃঙ্খলাজনিত প্রতিবেদন সন্তোষজনক হতে হবে। বিবেচনাধীন কর্মচারীদের চাকরিকালের সততা ও সুনাম বিবেচনা করা হবে। বিবেচনাধীন কর্মচারীর ডোসিয়ারসহ বিবেচ্য পাঁচ বছরের গোপনীয় অনুবেদনের গড় নম্বর নূ্যনতম ৮৫ শতাংশ হতে হবে। সহকারী কমিশনার (ভূমি) পদে কমপক্ষে এক বছর চাকরির অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। কর্মচারীরা জ্যেষ্ঠতা অনুযায়ী বিবেচিত হবেন। সম্ভাব্য শূন্য পদের ভিত্তিতে ফিট লিস্ট প্রণয়ন করা হবে। ফিট লিস্টভুক্ত কর্মচারীদের মধ্য থেকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদে পদায়ন করা হবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কর্মকাল সাধারণত দুই বছর হবে। তবে বিশেষ প্রশাসনিক কারণ ছাড়া এক বা একাধিক কর্মস্থলে কর্মকাল তিন বছরের বেশি হবে না এবং কোনো কর্মস্থল থেকে এক বছরের আগে বদলি করা যাবে না। সহকারী কমিশনার (ভূমি) পদে কর্মরত ছিলেন এমন উপজেলায় পরবর্তী সময়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদে পদায়ন করা যাবে না। নিজ জেলা বা স্বামী বা স্ত্রীর জেলায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদে পদায়ন করা যাবে না। চাকরির মেয়াদ তিন বছর পূর্তি, নির্ধারিত প্রশিক্ষণ সমাপ্তকরণ ও চাকরি স্থায়ীকরণের পর যথাসম্ভব জ্যেষ্ঠতা অনুযায়ী বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের সহকারী কমিশনারদের মধ্য থেকে সহকারী কমিশনার (ভূমি) পদে পদায়নের জন্য ভূমি মন্ত্রণালয়ে ন্যস্ত করা হবে। সহকারী কমিশনারের (ভূমি) কর্মকাল সাধারণত দুই বছর হবে। সহকারী কমিশনার (ভূমি) পদে কোনো কর্মস্থলে এক বছর পার হওয়ার পর অন্য কর্মস্থলে বদলি করা যাবে। সহকারী কমিশনার (ভূমি) হিসেবে প্রথম পদায়ন জেলা সদর ও মহানগর অধিভুক্ত এলাকার বাইরে এই নীতিমালায় উল্লিখিত ?'খ' ও 'গ' শ্রেণির উপজেলায় হবে। সহকারী কমিশনার (ভূমি) পদে এক বছর দায়িত্ব পালনের পর কর্মচারীদের দক্ষতা, সততা, জনসেবা প্রদানের মানসিকতা ইত্যাদি যাচাই করে 'ক' শ্রেণির উপজেলায় বা রাজস্ব সার্কেলে পদায়ন করা যাবে। সহকারী কমিশনার (ভূমি) পদ থেকে প্রত্যাহারের পর সহকারী কমিশনার বা সিনিয়র সহকারী কমিশনার পদে বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয় বা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে পরবর্তী পদায়নের জন্য কর্মচারীদের বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে ন্যস্ত করা যাবে। নিজ জেলা বা স্বামী/স্ত্রীর জেলায় সহকারী কমিশনার (ভূমি) পদে পদায়ন করা যাবে না। এ ছাড়া নীতিমালায় সহকারী কমিশনার, সিনিয়র সহকারী কমিশনার পদে পদায়নের শর্তের কথা বলা হয়েছে। একই সঙ্গে ল্যান্ড অ্যাকুইজিশন অফিসার/রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর/জেনারেল সার্টিফিকেট অফিসার/নেজারত ডেপুটি কালেক্টর/চার্জ অফিসার পদে পদায়ন এবং জেলা পরিষদের সচিব/ক্যান্টনমেন্ট এক্সিকিউটিভ অফিসার/ পৌরসভার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা/সমপর্যায়ের পদে পদায়নের শর্ত উল্লেখ করা হয়েছে নীতিমালায়।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply